ঢাকা, বুধবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৮ ৩:৫৪:৫৫

Ekushey Television Ltd.

অল্প সময়ে বেশি পড়ার কৌশল

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৩:৫০ পিএম, ৪ নভেম্বর ২০১৮ রবিবার

ভালো রেজাল্টের জন্যে একদিকে আপনাকে পড়তে হবে প্রচুর। আবার সময়ও আপনার কম। এজন্যে কোয়ান্টা রিডিং। এ পদ্ধতিতে পাঠ্যবইয়ের অপ্রয়োজনীয় শব্দগুলো বাদ দিয়ে প্রয়োজনীয় শব্দগুলোই আপনি পড়বেন এবং মনে রাখবেন। যেমন, নিচের প্যারাগ্রাফটি পড়ুন।

বিভিন্ন ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অঞ্চলের জনগণ নিজ নিজ অঞ্চলের ভাষায় কথা বলে। এগুলো আঞ্চলিক কথ্য ভাষা বা উপভাষা। পৃথিবীর সব ভাষায়ই উপভাষা আছে। এক অঞ্চলের জনগণের মুখের ভাষার সঙ্গে অপর অঞ্চলের জনগণের মুখের ভাষার যথেষ্ট পার্থক্য দেখা যায়। ফলে এমন হয় যে, এক অঞ্চলের ভাষা অন্য অঞ্চলের লোকের কাছে দুর্বোধ্য হয়ে ওঠে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, চট্টগ্রাম অঞ্চলের সাধারণের কথ্য ভাষা দিনাজপুর বা রংপুরের লোকদের কাছে খুব সহজবোধ্য নয়। এ ধরনের আঞ্চলিক ভাষাকে বলার ও লেখার ভাষা হিসেবে সার্বজনীন স্বীকৃতি দেয়া সুবিধাজনক নয়। কারণ তাতে বিভিন্ন অঞ্চলের ভাষাভাষীদের মধ্যে ভাবের আদান-প্রদানে অন্তরায় দেখা দিতে পারে। সে কারণে দেশের শিক্ষিত ও পণ্ডিতসমাজ একটি আদর্শ ভাষা ব্যবহার করেন। বাংলা ভাষাভাষী শিক্ষিত জনগণ এ আদর্শ ভাষাতেই পারস্পরিক আলাপ আলোচনা ও ভাবের আদান-প্রদান করে থাকেন। বিভিন্ন অঞ্চলের কথ্যভাষার সমন্বয়ে শিষ্টজনের ব্যবহৃত এ ভাষাই আদর্শ চলিত ভাষা। 

এবার পড়ুন নিচের প্যারাগ্রাফটি

ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অঞ্চলের জনগণ নিজ অঞ্চলের ভাষায় কথা বলে। এগুলো আঞ্চলিক কথ্য ভাষা বা উপভাষা। পৃথিবীর সব ভাষায়ই উপভাষা আছে। বিভিন্ন অঞ্চলের মুখের ভাষার যথেষ্ট পার্থক্য দেখা যায়। অন্য অঞ্চলের লোকের কাছে দুর্বোধ্য হয়ে ওঠে। চট্টগ্রাম অঞ্চলের কথ্য ভাষা দিনাজপুর বা রংপুরে সহজবোধ্য নয়। সার্বজনীন স্বাকৃতি দেওয়া সুবিধাজনক নয়। ভাবের আদান-প্রদানে অন্তরায় দেখা দিতে পারে। দেশের শিক্ষিত ও পণ্ডিতসমাজ একটি আদর্শ ভাষা ব্যবহার করেন। এ ভাষাই আদর্শ চলিত ভাষা।

প্রথম প্যারাগ্রাফের অপ্রয়োজনীয় শব্দগুলো যা প্রথমবার পড়ার পর আর আপনার পড়ার দরকার নেই সেগুলো বাদ দিয়ে সৃষ্টি হয়েছে পরের প্যারাগ্রাফটি। খেয়াল করে দেখুন, প্রথম প্যারাগ্রাফ থেকে মনে রাখা দরকার এমন সব কথাগুলোই আছে পরের প্যারাগ্রাফে। কোয়ান্টা রিডিং-এ আপনার পড়ার গতি শুধু বাড়বে তাই নয়, বাড়বে মনোযোগ ও বোঝার ক্ষমতা।

SQ3R পড়ার কৌশল

S= survey

পড়তে বসার আগে যা পড়বেন তাতে কোয়ান্টা রিডিং পদ্ধতিতে দ্রুত একবার চোখ বুলানোই সার্ভে। এক্ষেত্রে যে অধ্যায়টি পড়বেন তার শিরোনাম, উপশিরোনাম, ছবি, ক্যাপশন, গ্রাফ, ডায়াগ্রামগুলোতে চোখ বুলান। সার্ভের মধ্য দিয়ে আপনি বুঝতে পারবেন কী পড়তে যাচ্ছেন।

Q=Question

চ্যাপ্টারের শিরোনামগুলোকে প্রশ্নে রূপান্তরিত করুন। কী, কে, কেন, কীভাবে, কখন, অথবা তুলনা কর, পার্থক্য কর, বর্ণনা কর, তালিকা  কর ইত্যাদি পরিভাষায় এই প্রশ্ন করা যেতে পারে। যেমন, বইয়ের শিরোনাম হলো উপমহাদেশে ব্রিটিশ শাসনের অবসান। প্রশ্নে রূপান্তরিত করলে এটি হবে, উপমহাদেশে ব্রিটিশ শাসন অবসানের প্রেক্ষাপট বর্ণনা কর। প্রশ্ন করার ফলে আপনি সচেতন হয়ে উঠবেন যে কী পড়তে যাচ্ছেন আপনি।

R=Read

আপনার প্রশ্নগুলোর উত্তর পাবার জন্যে এবার পড়া শুরু করুন। যেমন, অধ্যায়ের নাম- আমাদের শরীরের কথা, উপশিরোনাম রক্ত। প্রশ্ন হলো, রক্ত কী? রক্তের উপাদানগুলো কি কি? এদের কাজ কী? বইয়ে এই প্রশ্নগুলোর উত্তর হিসেবে দেয়া আছে হয়তো এরকম কিছু কথা-

‘রক্ত না থাকলে মানুষের পক্ষে বেঁচে থাকা সম্ভব হতো না। সে চেষ্টা হতো তেল ছাড়া গাড়ি চালানোর মতো। রক্তের কাজ হচ্ছে শরীরের সর্বত্র প্রয়োজনীয় বস্তু সরবরাহ করা। সেই সঙ্গে অপ্রয়োজনীয় বস্তু বের করে দেয়া। একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের শরীরে ৫ লিটারের মতো রক্ত থাকে। দু’রকম কণিকা রক্তে থাকে: লোহিত কণিকা ও শ্বেত কণিকা। বেশিরভাগ লোহিত কণিকা তৈরি হয় হাড়ের মজ্জায়। শ্বেতকণিকার ভূমিকা হচ্ছে শরীরকে রক্ষা করা। তারা জীবাণুদের সঙ্গে লড়াই করে আর এন্টিবডি নামে রাসায়নিক বস্তু সৃষ্টি করে যার কাজ হচ্ছে আততায়ী জীবাণু ধ্বংস করা। রক্তে প্রতি ঘন মিলিমিটারে ৪০ থেকে ৬০ লক্ষ লোহিতকণিকা থাকে। এরাই প্রয়োজনীয় অক্সিজেন আর কার্বন ডাই অক্সাইডের ব্যবস্থা করে।’

R= Recite

যা পড়েছেন সেগুলোকে জোরে জোরে আওড়ানোই রিসাইট। পড়া নিজেকে শোনান। ঠিকমতো কি হচ্ছে? না হলে আবার পড়ুন। এতে মনে রাখা সহজ হবে।

R= Revise

এতক্ষণ যা পড়লেন তা বার বার ঝালাই করাই হলো রিভাইস। নিয়মিত বিরতিতে এই রিভিশন দিতে হবে।



© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি