ঢাকা, ২০১৯-০৩-২৩ ২১:১৩:১৬, শনিবার

Ekushey Television Ltd.

ঠাকুরগাঁওয়ে বিজিবি`র সঙ্গে গ্রামবাসীর সংঘর্ষে নিহত চার

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৬:৩১ পিএম, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ মঙ্গলবার

ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার বেতনা সীমান্তে বহরমপুর গ্রামবাসীর সঙ্গে বিজিবির সংঘর্ষে এবং বিজিবির গুলিতে নবাব (৩৫) সাদেক (৪৫), জয়নুল (১২) ও সাদেকুল (৩২) নামে চার গামবাসী নিহত হয়েছেন। এই ঘটনায় বিজিবি সদস্যসহ ১৬ জন আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার সকাল ১১টা থেকে এই ঘটনা ঘটে বলে নিশ্চিত করেছেন হরিপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এমজে আরিফ বেগ।
ওই উপজেলার রুহিয়া এলাকার নজরুল ছেলে নবাব ও মৃত জহিরউদ্দীন ছেলে সাদেক এবং বহরমপুর এলাকার নুর ইসলামের ছেলে জয়নুল ও আব্দুর রহিমের ছেলে সাদেকুল।

আহতরা হলেন- মিঠু, ইসহাদিতি, সাদেকুল, তৈমুর, রাসেল, জয়নুল, মুনতাহারা, বাবু, নওশাদ, হান্নান, জয়নুল ও নুর নাহার। এলাকাবাসী জানায়, বরহমপুর গ্রামের মাহাবুব আলী গত ০৬ মাসে আগে একটি গরু ক্রয় করে। সেই গরু মঙ্গলবার সকালে স্থানীয় যাদুরানী বাজারে বিক্রি করার জন্য বাড়ি থেকে বের হয়। এ সময় বেতনা ক্যাম্পের বিজিবি`র সদস্যরা ভারতীয় গরু সন্দেহে গরুগুলো বিজিবি ক্যাম্পে নিয়ে যাওয়ার জন্য মাহাবুবের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিতে গেলে মাহাবুবের পরিবার ও এলাকাবাসীর মধ্যে বিজিবির সংঘর্ষ বাঁধে।

পরে বিজিবি`র গুলি ছোড়লে যাদুরানী বাজারের উদ্দেশ্যে আসা দুজন পথচারীসহ স্থানীয় দুজন নিহত হয় এবং গুলিবিদ্ধ হয় ১৬ জন।

হরিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আব্দুস সামাদ বলেন, গুলিবৃদ্ধ ১৪ জনের গুলি বের করে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করা হয়েছে। উন্নত চিকিৎসার জন্য দিনাজপুর আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
হরিপুর থানার ওসি আমিরুজ্জামান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে নিয়ে আনা হয়েছে। এলাকায় পুলিশ মোতায়ন করা হয়েছে।
ঠাকুরগাঁও ৫০ বিজিবি অধিনায়ক লে. কর্নেল তুহিন মো. মাসুদ বলেন, বিজিবি একটি প্ট্রোল টিম চারটি গরু জব্ধ করে ফেরার পথে চোরাকারবারীরা এলাকাবাসী দেশীয় বিভিন্ন অস্ত্র নিয়ে বিজিবির ওপর হামলা চালায়। তাদের শান্ত থাকতে অনুরোধ করা হলেও তারা কোন কথা শুনেনি। বরং তারা উত্তেজিত হয়ে বিজিবি অস্ত্র ছিনিয়ে নেওয়ার চেস্টা করে। এ সময় চার জন বিজিবি সদস্য আহত হওয়ার পর কয়েক রাউন্ড ফাকা গুলি করে। কিন্তু তারপরও পরিবেশ শান্ত না হওয়ায় আত্মরক্ষার জন্য বাধ্য হয়ে বিজিবি গুলি করে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার এমজে আরিফ বেগ বলেন, আমি ঘটনাস্থলেই আছি। সবকিছু জেনে পরে জানাচ্ছি। এঘটনার খবর পেয়ে জেলা প্রশাসক ড, কেএম কারুজ্জামান সেলিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

এসএইচ/

ফটো গ্যালারি



© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি