ঢাকা, শনিবার   ১৬ নভেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ২ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

তেঁতুলিয়া নদীতে ইলিশ শিকারি ১৯ জেলে আটক

বাউফল (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা

প্রকাশিত : ১৫:০৫ ২৩ অক্টোবর ২০১৯ | আপডেট: ১৫:৪২ ২৩ অক্টোবর ২০১৯

পটুয়াখালীরতে মা ইলিশ শিকার করার অপরাধে ১৯ জেলেকে আটক করেছে কোস্টগার্ড। বুধবার সকাল সাড়ে ৭ টার দিকে তেঁতুলিয়া নদীতে মাছ শিকারের সময় তাদের আটক করা হয়।

আটকরা হলেন- চন্দ্রদ্বীপের চর ওয়াডেল এলাকার রাশেদ হাওলাদার (৩০), নান্নু ব্যাপারী (৩২), সেলিম হাওলাদার (৩০), পারভেজ (১৭), রীপন (৩২), বাহদুর (২৮), চর মিয়াজনের নিজাম হাং (২১), রাজ্জাক চৌকিদার (৩৫), কেশবপুরের জাফরাবাদের হিরন (২২), জাকারিয়া (১৮), ভরিপাশা গ্রামের জুলহাস (৩৭), পাশের ভোলা জেলার বোরহানউদ্দিনের সাছরা গ্রামের সিদ্দিক মাঝি (২৮), সজীব বাবুর্চি (১৬), সোহেল (১৬), ইমরান (১৮), মাসুদ (১৭), কামরুল (১২), বাথান বাড়ি এলাকার শাকিল (১২) ও জিহাদ (১১)।

কোস্টগার্ডের সি জি এস পাবনা (পি- ১১১) জাহাজের দায়িত্বে থাকা সিনিয়র চিফ পেটি অফিসার ওবায়দুল হক জানান, তেঁতুলিয়া নদীর চন্দ্রদ্বীপের চরওয়াডেল, খানকা, বাতিরখাল, চর রায়সাহেব, মমিনপুরের লালচর ও নিমদি পয়েন্টে ইলিশ শিকারের সময় অভিযান চালিয়ে ওইসব জেলেদের আটক করা হয়। একইসঙ্গে ৩ লাখ মিটার অবৈধ কারেন্টজালসহ প্রায় ৭ মন ইলিশ মাছ জব্দ করা হয়। পরে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে উপজেলা প্রশাসনের কাছে আটক জেলেদের হস্তান্তর ও নিমদি লঞ্চঘাট এলাকায় জালগুলো পুড়িয়ে দেওয়া হয়। স্থানীয় কয়েকটি এতিমখানাসহ দু:স্থদের মাঝে বিতরণ করা হয় মাছগুলো।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. জসীম উদ্দিন জানান, জেলেদের মধ্যে ভোলার সাছরা এলাকার অনোয়ার বাবুর্চির ছেলে মাসুদ (১৭), শাহজাদার ছেলে কামরুল (১২) ও লোকমান খার ছেলে শাকিল (১২) দ্বিতীয়বার কোস্টগার্ডের হাতে আটক হয়েছে। আগেরবার বয়স বিবেচনায় তাদের প্রত্যেককে এক হাজার টাকা জরিমান ও মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল।

আটক মাসুদ জানান, ভোলার বোরহানউদ্দিনের মহসিন নামে একজন টাকার প্রলোভন দিয়ে ও জোর করে তাদেরকে দ্বিতীয়বারের মতো ইলিশ শিকারে নিয়ে আসে তেঁতুলিয়ায়।

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি