ঢাকা, শনিবার   ২৮ মে ২০২২, || জ্যৈষ্ঠ ১৪ ১৪২৯

দুই শহরে যুদ্ধবিরতির ঘোষণা রাশিয়ার

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৩:০৩, ৫ মার্চ ২০২২ | আপডেট: ১৪:০৮, ৫ মার্চ ২০২২

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

ইউক্রেনের সঙ্গে সঙ্ঘাতে সাময়িক যুদ্ধবিরতির ঘোষণা দিয়েছে রাশিয়া। রাশিয়ার পক্ষ থেকেই এই ঘোষণা এসেছে।

সাড়ে পাঁচ ঘণ্টার জন্য এই যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করা হয়েছে। 

সংবাদ সংস্থা এএফপি-র তথ্য অনুযায়ী জানা গেছে যে, মারিউপোলের বাসিন্দাদের দেশ ছাড়ার সুযোগ দিয়ে সাময়িক ভাবে এই ঘোষণা করল রাশিয়া।

মারিউপোলের পাশাপাশি ভলনোভাখা শহরেও জারি হয়েছে এই যুদ্ধবিরতি। কিভ-মস্কো সঙ্ঘাতের দশম দিনে এসে যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করল মস্কো সরকার। চলতি সপ্তাহে বেলারুশে দ্বিতীয় দফার শান্তি বৈঠকের পরে রাজধানী কিভ-সহ ইউক্রেনের বিভিন্ন শহরের বেসামরিক বাসিন্দাদের নিরাপদে সরে যাওয়ার সুযোগ দিতে ঐকমত্য হয়েছিল। তারই ভিত্তিতে মস্কোর এই সিদ্ধান্ত বলে মনে করা হচ্ছে।

দক্ষিণের শহর খারসেনের দখল নিলেও রুশ বাহিনী এখনও আরও দু’টি গুরুত্বপূর্ণ বন্দর ওডেসা ও মারিউপোলকে দখল করতে পারেনি। ওই দু’ই শহরে রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র ও বিমানহানায় বেশ কয়েকজন বেসামরিক নাগরিকের মৃত্যুর খবরও মিলেছে।

রাশিয়া যুদ্ধের কৌশল বদলাচ্ছে বলে মনে করা হচ্ছিল। তার মধ্যেই এই সাড়ে পাঁচ ঘণ্টার যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করল রাশিয়া।

দশম দিনেও উত্তেজনা অব্যাহত ছিল। বরং ইউক্রেনে একের পর এক গুরুত্বপূর্ণ জায়গাকে কব্জা করতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে রাশিয়া। ইউক্রেনে অবস্থিত ইউরোপের বৃহত্তম পারমাণবিক কেন্দ্র আক্রমণ করার পর রুশ সেনাদের লক্ষ্য ছিল ইউক্রেনের গুরুত্বপূর্ণ বন্দর মারিউপোল।

শনিবার মারিউপোলের মেয়র জানিয়েছিলেন, দিন কয়েক ধরে প্রবল আক্রমণ হচ্ছে বন্দরে। ইউক্রেন সেনারাও প্রতিরোধ করছে। এর আগে ইউক্রেনের রাজধানী শহর কিভের একাংশ এবং খেরসনের কিছু জায়গায় নিজেদের ঘাঁটি গেড়ে ফেলেছে রাশিয়া।

শনিবার ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভোলোদেমির জেলেনস্কি আমেরিকার সিনেটরদের সঙ্গে ভার্চুয়াল মাধ্যমে বৈঠক করবেন বলে খবর পাওয়া গেছে। সেখানে ইউক্রেনের বর্তমান পরিস্থিতি আমেরিকাকে জানাবেন। তার আগেই এল সাময়িক যুদ্ধ বিরতির এই খবর।

এর আগে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে বৈঠক করার আহ্বান জানিয়েছিলেন ইউক্রনের প্রেসিডেন্ট ভোলোদিমির জেলেনস্কি। বেলারুশ সীমান্তে দ্বিতীয় দফার শান্তি বৈঠকের মধ্যেই রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে সরাসরি আলোচনার বসতে চেয়েছিলেন জেলেনস্কি। 

বৃহস্পতিবার রাতে সাংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেন, ‘‘যুদ্ধ বন্ধ করার এক মাত্র পথ, আমার সঙ্গে রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের মুখোমুখি আলোচনা।’’ তবে জেলেনস্কির ওই প্রস্তাবের বিষয়ে কোনও প্রতিক্রিয়া জানায়নি ক্রেমলিন।

এসএ/
 


Ekushey Television Ltd.

© ২০২২ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি