ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১:১০:৪৯

Ekushey Television Ltd.

নিউইয়র্কে বাংলাদেশি দুই পুলিশ অফিসারকে সম্মাননা

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৩:৩৬ পিএম, ২৬ জানুয়ারি ২০১৯ শনিবার | আপডেট: ০৩:৩৮ পিএম, ২৬ জানুয়ারি ২০১৯ শনিবার

পেশাগত ক্ষেত্রে সাফল্যের জন্য বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত দুই পুলিশ কর্মকর্তা সম্মাননা দিয়েছে নিউইয়র্কের কনস্যুলেট জেনারেল অব বাংলাদেশ। দুই পুলিশ কর্মকর্তা খন্দকার আবদুল্লাহ ও সাইদ আলী। সম্প্রতি সময়ে তারা বিশ্বের সবচেয়ে অভিজাত ও শক্তিশালী পুলিশ বাহিনী হিসেবে পরিচিত এনওয়াইপিডির ক্যাপ্টেন পদে পদোন্নতি পয়েছেন খন্দকার আব্দুল্লাহ।

সেই সঙ্গে পরম সাহসিকতার সঙ্গে পাতাল রেল স্টেশনে একা সন্ত্রাসীদের সঙ্গে লড়াই করার জন্য পুলিশ ডিপার্টমেন্টের স্বীকৃতি অর্জন করেছেন সায়ীদ আলী।

এই দুই কৃতি পুলিশ অফিসারের সম্মানে গতকাল শুক্রবার কনস্যুলেট অফিসে বিশেষ এই সম্মাননার আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে এই দুই পুলিশ অফিসারকে ক্রেস্ট দিয়ে সম্মাননা জানানো হয়।

সম্মাননা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। এতে সম্মানিত অতিথি হিসেবে ছিলেন নিউইয়র্কের ডেপুটি চিফ অব পুলিশ চার্লস শ্যুল। এ সময় ওই দুই কৃতি পুলিশ অফিসারের পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে জাতিসংঘের রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন বলেন, প্রবাসীদের যেকোনো ধরনের সাফল্য বাংলাদেশের মুখকে উজ্জ্বল করে।

দুই পুলিশ অফিসারকে বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, তাদেরকে দেখে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা আগামী প্রজন্ম ভালো কাজের জন্য উদ্বুদ্ধ হবে।নিউইয়র্কের ডেপুটি চিফ অব পুলিশ চার্লস শ্যুল বলেন, এনওয়াইপিডিতে পুলিশ, ট্রাফিক ও অন্যান্য পদ মিলিয়ে প্রায় ১ হাজার বাংলাদেশি সদস্য নিয়োজিত রয়েছেন। তারা এই বাহিনীতে অত্যন্ত নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করছে বলে প্রশংসা করেন তিনি।

এ সময় বাংলাদেশের উন্নয়নের প্রসঙ্গ টেনে চার্লস শ্যুল বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশটি বেশ ভালোভাবে এগিয়ে চলেছে।

নিউইয়র্কের কনসাল জেনারেল ওই দুই পুলিশ অফিসারের পরিবারের সদস্যদের অভিনন্দন জানান। সেইসঙ্গে প্রবাসে ছড়িয়ে থাকা সবাইকে দেশের ভাবমূর্তি যেন উজ্জ্বল হয় এমন কাজে যুক্ত থাকার আহ্বান জানান তিনি। ভবিষ্যতেও যারা এমন ভালো কাজে যুক্ত থাকবে, তাদেরকেও সম্মাননা জানানোর ধারা অব্যাহত রাখার কথা বলেন কনসাল জেনারেল। অনুষ্ঠানে সাংবাদিক ছাড়াও সুধী, জাতিসংঘ স্থায়ী মিশন ও কনস্যুলেটের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সবমিলিয়ে `অদম্য বাংলাদেশ` শীর্ষক অনুষ্ঠানটি পরিণত হয় এক আনন্দ আড্ডায়।

 

টিআর/



© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি