ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৫ জুলাই ২০২৪

বাঘা যতীন গবেষণাকেন্দ্র পুরস্কার গ্রহণ করলেন ৩ জন

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ২২:০১, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

‘বাঘা যতীন গবেষণাকেন্দ্র প্রবর্তিত পুরস্কার-২০২৩’ গ্রহণ করলেন তিন লেখক। তারা হলেন কথাসাহিত্যে ‘আকবর হোসেন কথাসাহিত্য পুরস্কার’, প্রবন্ধে ‘বাঘা যতীন প্রবন্ধ পুরস্কার’ ও কবিতায় ‘গগন হরকরা কবিতা পুরস্কার।

যারা পুরস্কার পেলেন তারা হলেন— কথাসাহিত্যে অনীক মাহমুদ,  প্রবন্ধে মাসুদ রহমান ও কবিতায় খসরু পারভেজ।

শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) বিকেল ৩টায় রাজধানীর কাঁটবন মোড়ে অবস্থিত কবিতা ক্যাফে  আয়োজিত অনুষ্ঠানে তারা এই পুরস্কার গ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাঘা যতীন গবেষণাকেন্দ্রের প্রধান উপদেষ্টা এএসএম কামাল উদ্দিন। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. রাশিদ আসকারী।

সাব্বির আহমেদ ও আম্বিয়া আক্তার কণার সঞ্চালনায়  অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাঘা যতীন গবেষণাকেন্দ্রের সভাপতি অধ্যাপক ড. রকিবুল হাসান। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন— কবি কথাশিল্পী রফিকুজ্জামান রণি,  গীতিকবি মিলন হাসান, কবি ও কথাশিল্পী ড. শাফিক আফতাব, কথাশিল্পী মনি হায়দার, বাংলাদেশ রাইটার্স ক্লাবের সভাপতি কবি রবিউল হক এবং কবি ও গবেষক বিলু কবীর।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, বাঘা যতীন গবেষণা কেন্দ্র প্রবর্তিত পুরস্কার প্রদানের মাধ্যমে ঔপন্যাসিক আকবর হোসেন, বিপ্লবী বাঘা যতীন ও লোকসংগীতকার গগন করাকে পুনর্জীবন দেওয়া হলো। এই তিন মহৎ বাঙালির নামে তিনটি পুরস্কার প্রদান করার জন্য বাঘা যতীন গবেষণা কেন্দ্রকে ধন্যবাদ জানান তারা।

উল্লেখ্য, কুষ্টিয়ার কয়া গ্রামে জন্মগ্রহণকারী বিশিষ্ট লেখক অধ্যাপক ডক্টর রকিবুল হাসানের উদ্যোগে ২০২৩ সাল থেকে প্রথমবারের মতো এ উদ্যোগ নেয় বাঘা যতীন গবেষণা কেন্দ্র। শিল্প সাহিত্য সংস্কৃতির দায়বদ্ধতা থেকে কেন্দ্রের সঙ্গে সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করছে স্বপ্নভূমি। প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক তরুণ গীতিকার ও লেখক মিলন হাসান জানান, বাঘা যতীন আমাদের সাহসের প্রতীক, স্বাধীনতার চেতনা জাগানিয়া বারুদ বিস্ফোরণের  নাম। মুক্তিকামী মানুষের দীপ্ত প্রতিভা বাঘা যতীনের নামে প্রবর্তিত পুরস্কারে স্বপ্নভূমি আজীবন সন্নিবিষ্ট থাকবে। গবেষণা কেন্দ্রের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. রকিবুল হাসান বলেন, বোধ ও বোধোদয়ের তাগিদে বাঘা যতীন পুরস্কারের সূচনা। ক্রমশ গবেষণার পরিধি ও ব্যাপ্তি বাড়ানো হবে। শিল্প বোদ্ধাসহ বিভিন্ন মানুষের সাড়া ও প্রশংসা পাচ্ছি। মোবাইল সংস্কৃতির দু:সময়ে বাঘা যতীন গবেষণা কেন্দ্র অনন্য অনবদ্য ও সময়োপযোগী ভূমিকা রাখবে বলেই মনে করি।


Ekushey Television Ltd.


Nagad Limted







© ২০২৪ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি