ঢাকা, রবিবার   ২০ অক্টোবর ২০১৯, || কার্তিক ৫ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

মানুষ মাত্রই ভুল, নিউজ করবেন কেন

মোংলা প্রতিনিধি

প্রকাশিত : ২১:৩৭ ১০ অক্টোবর ২০১৯

ঘুষের টাকা দিতে বিলম্ব হওয়ায় এক জেলেকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ উঠেছে বন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। পশ্চিম সুন্দরবনের নীল কমল ক্যাম্পের ওসি শ্যামপ্রসাদ রায়ের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ ওঠে। এবিষয়ে ওসি শ্যাম প্রসাদ সাংবাদিকদের বলেন, মানুষ মাত্রই ভুল এ নিয়ে নিউজ করবেন কেন। 

সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার মনিপুর গ্রামের মৃত রজব আলী গাজীর ছেলে জেলে মোঃ আব্দুল হান্নান গাজী বলেন, সুন্দরবন বিভাগের পাশ পারমিট নিয়ে বারো মাসই তারা সাগরে মাছ ধরেন।এ জন্য তারা বন বিভাগের দুবলা অফিসে নিয়মিত রাজস্ব দেন। তবে সাগরে যেতে পশ্চিম সুন্দরবনের নীল কমল ক্যাম্পের সামনে দিয়ে যাতায়াত করতে হয়। 

ওখানকার ওসি শ্যামপ্রসাদ রায় প্রতি গোনে (অমাবস্যা ও পূর্ণিমা) এক লাখ ৬০ হাজার টাকা করে নেন। নতুবা নানাভাবে হয়রানি করেন তিনি। এদিকে গত অমাবস্যার গোনে জেলে হান্নানের নিয়ন্ত্রণাধীন ৩০ টি নৌকা হতে ওসিকে ঘুষ বাবদ এক লাখ ৬০ হাজার টাকার মধ্যে আগাম ৯০ হাজার টাকা দিয়ে সাগরে মাছ ধরতে যান। 

বাকি ৭০ হাজার টাকা দিতে বিলম্ব হওয়ায় রোববার (৬ অক্টোবর) দুপুরে জেলে মোঃ আব্দুল হান্নান গাজীকে ব্যপক মারধর করে যখম করে বাকি ওই টাকা নিয়ে নেন ওসি শ্যামপ্রসাদ রায়। এসময় ওসি এবং তার কর্মচারী ইকরাম ও মঞ্জু হান্নানের নৌকা থেকে তিন’শ পিচ ইলিশ মাছ লুট করে নিয়ে যায় বলেও হান্নান বলেন।

পরে মারধরের শিকার হান্নান গাজীকে আহত অবস্থায় তার সাথে থাকা জেলেরা খুলনার কয়রার জায়গির মহল সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করেন। অভিযোগ রয়েছে, ওসি শ্যামপ্রসাদ রায় খুলনার কয়রার জেলে গনি, খালেক, রাজ্জাক, সাইদ, ইসহাক, আজিজুল ও ডুমুরিয়ার সংকর, সুধান্ন ও দিলিপের কাছ থেকে মাছ ধরা বাবদ ওই নির্দিষ্ট অংকের ঘুষের টাকা আদায় করে থাকেন। 

তার দাবিকৃত ওই টাকা না দিলে তিনি নানা অযুহাতে মামলা দিয়ে হয়রানি করেন বলেও জেলেরা জানান। এদিকে ওসি শ্যামপ্রসাদ রায়ের মারধরের শিকার জেলে মোঃ আব্দুল হান্নান গাজী পশ্চিম সুন্দরবনের ডিএফও’র (বিভাগীয় বনকর্মকর্তা) কাছে অভিযোগ দিয়েছেন। এ বিষয়ে ডিএফও বশির আল মামুন বলেন, “আমি এ বিষয়ে অভিযুক্ত শ্যামপ্রসাদ রায়ের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেব”।

ওসি শ্যামপ্রসাদ রায়ের কাছে জানতে চাইলে মারধরের বিষয়ে তিনি বলেন, মানুষ মাত্রই ভুল এ বিষয়ে নিউজ করবেন কেন।তবে জেলেদের কাছ থেকে ঘুষের টাকা নেওয়ার বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে বলেন, আসেন স্বাক্ষাতে কথা বলব। আর এ বিষয়টি এসিএফ আবু সালেহ সব জানেন। এ বিষয়ে এসিএফ আবু সালেহ বলেন আমি খোঁজ খবর নিয়ে জানাব। পরে তিনি আর ফোন ধরেন নি।


টিআর/ 


 

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি