ঢাকা, সোমবার   ৩০ নভেম্বর ২০২০, || অগ্রাহায়ণ ১৬ ১৪২৭

Ekushey Television Ltd.

সুখী সমৃদ্ধ দেশ গঠনে জাতি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ: সরকারি দল

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ২৩:০৮ ২০ জানুয়ারি ২০২০ | আপডেট: ২৩:১০ ২০ জানুয়ারি ২০২০

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর আনীত ধন্যবাদ প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকারি দলের সদস্যরা বলেছেন, সন্ত্রাস-জঙ্গী ও দুর্নীতিমুক্ত সুখী সমৃদ্ধ সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠায় জাতি আজ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ।

গত ৯ জানুয়ারি চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর ধন্যবাদ প্রস্তাব উত্থাপন করলে সরকারি দলের সদস্য আ স ম ফিরোজ তা সমর্থন করেন।

গত ৯ জানুয়ারি একাদশ জাতীয় সংসদের ষষ্ঠ ও বছরের প্রথম অধিবেশনের শুরুর দিন সংবিধান অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ সংসদে ভাষণ দেন।

রাষ্ট্রপতির ভাষণে আনীত ধন্যবাদ প্রস্তাবের ওপর আজ আলোচনায় অংশ নেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ.ম রেজাউল করিম, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান, পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক, সরকারি দলের তোফায়েল আহমেদ, মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী, আবদুল আজিজ, শহীদুল ইসলাম বকুল, মীর মোশতাক আহমেদ রবি ও জাতীয় পার্টির গোলাম কিবরিয়া টিপু,।

আলোচনায় অংশ নিয়ে তোফায়েল আহমেদ বলেন, ঐতিহাসিক ৬ ও ১১ দফা দাবির স্বপক্ষে বাঙালি জাতির আন্দোলনের কথা তুলে ধরে ’৬৯ এর গণঅভ্যুত্থানের কথা বিশেষভাবে উল্লেখ করেন। পাশাপাশি ’৬৯ এর ২০ জানুয়ারি আত্মহুতি দেয়া শহীদ আসাদের ও ২৩ জানুয়ারি শহীদ মতিউরের কথা তুলে ধরেন। তিনি সেই অগ্নিঝরা দিনগুলোর কথা সবিস্তারে তুলে ধরেন। তিনি ২৩ ফেব্রুয়ারি তৎকালিন রেসকোর্স ময়দানের বিশাল সমাবেশ থেকে জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানকে বঙ্গবন্ধু উপাধিতে ভ’ষিত করার কথাও বিষেশভাবে উল্লেখ করেন। পাশাপাশি জয় বাংলা শ্লোগানের কথাও উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, সেদিনের সমাবেশেই প্রথম জয় বাংলা শ্লোগান দেয়া শুরু করা হয়।

তিনি বলেন, ’৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান ছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের ড্রেস রিহার্সেল। সেদিনের আন্দোলনের মাধ্যমেই বাঙালির মুক্তি আন্দোলন চূড়ান্ত পরিণতির দিকে ধাবিত হয়ে লক্ষ্যের দিকে দ্রুত ধাবিত হয়।’

তোফায়েল আহমেদ আলোচনায় বাঙালি জাতির মুক্তি ও মহান স্বাধীনতা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্ব, আত্মত্যাগ সর্বোপরি স্বাধীনতার ঘোষণা, তার আহবানে রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীনতা অর্জনের কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ’৭৫ এর ১৫ আগস্টে ঘাতকরা নির্মমভাবে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার মাধ্যমে সুখী সমৃদ্ধশালী সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার পথকে রুদ্ধ করে দিয়েছিল। তার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে সেই স্বপ্নের সমৃদ্ধ সোনার বাংলার দিকে নিয়ে যাচ্ছেন।

আলোচনায় অংশ নিয়ে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী স.ম. রেজাউল করিম বলেন, সবার জন্য আবাসন সুবিধা নিশ্চিত করতে ব্যাপক কর্মসূচি ও প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। প্রভাবশালী ব্যক্তিদের দখল থেকে ১শ’ একর জমি উদ্ধার করা হয়েছে। ফাইল যাতে কেউ আটকিয়ে রাখতে না পারে তার জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বিভিন্ন অভিযোগে এ পর্যন্ত ৯২ জন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্ব বিশ্বে বাংলাদেশ আজ এক উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। উন্নয়ন কর্মকান্ডে ইর্ষান্বিত হয়ে পঁচাত্তরের খুনী চক্র আবার বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্র করছে। জনগণকে এ ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে।

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী বলেন, বিমান এখন লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রুপলাভ করতে যাচ্ছে। সবকটি বিমান বন্দরের উন্নয়ন কাজ চলছে। ২০৪১ সালে বিশ্বসভায় বাংলাদেশ একটি উন্নত-সমৃদ্ধ দেশের মর্যাদায় অভিষিক্ত করতে হলে ” উন্নয়নের জন্য শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ করতে সরকার কাজ করে যাচ্ছে।

আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকারি দলের অন্যান্য সদস্যরা বলেন, দুর্নীতি, সন্ত্রাস, মাদক ও জঙ্গিবাদ সম্পূর্ণরূপে নির্মূলের মাধ্যমে শোষণমুক্ত সমাজ-প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের ‘সোনার বাংলা’ গড়ে তুলতে বাঙালি জাতি আজ ঐক্যবদ্ধ।

তারা বলেন, গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা, আইনের শাসন ও অব্যাহত আর্থসামাজিক উন্নয়নে সকল রাজনৈতিক দল, শ্রেণি ও পেশা নির্বিশেষে সবাই আজ একতাবদ্ধ। সুশাসন ও সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা, গণতন্ত্রের প্রাতিষ্ঠানিক রূপায়ন এবং সমাজের সকল স্তরে জনগণের সর্বাত্মক অংশগ্রহণের মাধ্যমে “এ বছর আমরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং ২০২১ সালে মধ্য-আয়ের দেশ হিসেবে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করবো।

তারা বলেন, রাষ্ট্রপতি তাঁর ভাষণে ২০৪১ সালে বিশ্বসভায় বাংলাদেশ একটি উন্নত-সমৃদ্ধ দেশের মর্যাদায় অভিষিক্ত হবে ” উন্নয়নের জন্য শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ, গণতন্ত্র ও সুশাসন প্রতিষ্ঠা, সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদ নির্মূল, নারীর ক্ষমতায়ন, শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়ন ও বিকাশ, জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সরকারের উন্নয়ন প্রকল্পের চিত্র তুলে ধরেন। বাসস

এসি
 


New Bangla Dubbing TV Series Mu
New Bangla Dubbing TV Series Mu

© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি