ঢাকা, বুধবার   ২৩ অক্টোবর ২০১৯, || কার্তিক ৯ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

‌সুবীর নন্দীর গান সংরক্ষণের দাবি জানিয়েছে শিল্পীরা

প্রকাশিত : ২৩:২৫ ২২ মে ২০১৯

সদ্যপ্রয়াত বরেণ্য সঙ্গীতশিল্পী সুবীর নন্দীর স্মরণে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে স্মরণসভার আয়োজন করে শিল্পকলা একাডেমি। তার গানকে যথাযথভাবে সংরক্ষণের দাবি জানিয়েছে তার পরিবারের সদস্য ও শিল্পীরা।

বুধবার তার স্মরণে আয়োজিত এই স্মরণসভায় এ দাবি জানান তারা। স্মরণসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ এমপি। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন,সঙ্গীতশিল্পী সাবিনা ইয়াসমিন।

পরিবারের পক্ষে কথা বলেন সুবীর নন্দীর মেয়ে  ফাল্গুনী নন্দী। শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীর সভাপতিত্বে আরও কথা বলেন শিল্পী সৈয়দ আবদুল হাদী, আকরামুল ইসলাম, রফিকুল আলম, ইন্দ্রমোহন রাজবংশী, আবিদা সুলতানা, শুভ্রদেব, সুরকার মকসুদ জামিল মিন্টু, মানাম আহমেদ সাব্বির ও কোনাল। উপস্থিত ছিলেন সুবীর নন্দীর স্ত্রী পূরবী নন্দী। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সঙ্গীতশিল্পী দিনাত জাহান মুন্নী।

সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী বলেন, `কপিরাইট আইনের খসড়া ইতিমধ্যেই প্রণয়ন হয়েছে। এটি পাস হলে সুবীর নন্দীসহ সব শিল্পীর গান যথাযথভাবে সংরক্ষিত হবে। আইনের মাধ্যমে তাদের গানের রয়্যালিটি পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া সম্ভব হবে বলেও আমি মনে করি।`

সাবিনা ইয়াসমিন বলেন, `সুবীর নন্দীর প্রতিটি গান সংরক্ষণ করে রাখা উচিত। তার আগে যারা আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন, তাদের গানও সংরক্ষণ করতে হবে। আর এ কাজটি সরকারকেই করতে হবে। তাহলে আমাদের নতুন প্রজন্ম জানতে পারবে, তাদের পূর্বসূরিরা কী গান গাইতেন, কেমন করে গাইতেন।`

সৈয়দ আবদুল হাদী বলেন, `কোনো শিল্পী চলে গেলে তার জন্য অশ্রুবর্ষণ করি, তাদের মহাত্ম্য তুলে ধরে বক্তব্য রাখি। পক্ষান্তরে নিজেদের মহৎ বানানোর চেষ্টা করি।` তিনি এ সময় শিল্পীরা বেঁচে থাকতে তাদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য সবার কাছে অনুরোধ করেন।

উল্লেখ্য, চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ৭ মে সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন শিল্পী সুবীর নন্দী।

কেআই/

 

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি