ঢাকা, শনিবার   ০৬ মার্চ ২০২১, || ফাল্গুন ২১ ১৪২৭

বখাটেদের শ্লীলতাহানী সইতে না পেরে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা

নওগাঁ প্রতিনিধি

প্রকাশিত : ১৮:০৫, ৬ সেপ্টেম্বর ২০২০

নওগাঁ শহরের খাস-নওগাঁ মহল্লায় বখাটেদের শ্লীলতাহানির ঘটনায় সিফাত সুলতানা স্বর্ণা (১৫) নামে এক স্কুল ছাত্রী আত্মহত্যা করেছে। এ ঘটনায় ছাত্রীর বাবা দিপু দেওয়ান শ্লীলতাহাটির চেষ্টা ও আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে বখাটে রিহান ইসলাম (২৩) ও সৌরভ (২২) নামে দুই যুবকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। 

তবে আজ রোববার বিকেল পর্যন্ত তাদের কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। রিহান খাঁ নওগাঁ মহল্লার জনৈক আনোয়ার হোসেনরে ছেলে ও সৌরভ একই এলাকার বাসিন্দা বলে জানা গেছে। 

মামলা অভিযোগে জানা যায়, নওগাঁ পিএম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী সিফাত সুলতানা স্বর্ণা স্কুলে আসা যাওয়ার পথে দীর্ঘদিন ধরে একই এলাকার বাসিন্দা ও নওগাঁ পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের কম্পিউটার বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রিহান ও সৌরভ তাকে উত্যক্ত করে আসছিল। এ নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে কয়েক দফা বেঠকও হয়। সে সময় রিহানের পরিবার তাদের ছেলেরা স্বর্ণাকে আর উত্যক্ত করবে না বলে আশস্ত করে। 

গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে স্বর্ণাকে বাড়ির পাশের রাস্তা থেকে মোটরসাইকেলে করে রিহান ও সৌরভ কৌশলে তুলে নিয়ে শহরের একটি পরিত্যাক্ত বাড়িতে নিয়ে আটকে রাখে। সেখানে তারা স্বর্ণার শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে। এক সময় ওইদিন রাত ১০টার দিকে ওই কিশোরি তাদের হাত থেকে কৌশলে ছুটে নিজ বাড়িতে ফিরে আসে। 

বাড়িতে ফিরে সে তার মা-বাবাকে বিষয়টি জানায়। পরিবারের লোকজন বিষয়টি নিয়ে হতভম্ব হয়ে পড়ে। আত্ম সম্মানের ভয়ে সিফাতের বাবা-মা বখাটে রিহান ও সৌরভের বিরুদ্ধে তখন কোনও অভিযোগ করেননি। এদিকে লোক লজ্জায় ও অপমান সহ্য করতে না পেরে শুক্রবার রাতে শয়নকক্ষের সিলিং ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে স্বর্ণা।

ওই কিশোরীর বাবা দীপু দেওয়ান বলেন, ‘বখাটে রিহান তার বন্ধুর সহযোগিতায় অনেক দিন ধরে আমার মেয়েকে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। এ ব্যাপারে রিহানের মা-বাবাকে বলেও কোনো কাজ হয়নি। সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রিহান আমার মেয়েকে জোর করে তুলে নিয়ে যায় এবং তার ওপর শারীরিক নির্যাতন চালায়। আমার মেয়ে এই অপমান সহ্য করতে না পেরে আত্মহত্যা করেছে। আমি বিচার চাই।’

এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রিহান ও সৌরভ নওগাঁ পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের কম্পিউটার বিভাগের শিক্ষার্থী হলেও তারা বখাটেপনাসহ নানা অপরাধের সঙ্গে জড়িত। রিহানের বিরুদ্ধে এর আগে নওগাঁ সদর থানায় চাঁদাবাজির একটি মামলা রয়েছে। ওই মামলায় সে গ্রেফতার হয়েছিল। 

এ ব্যাপারে নওগাঁ সদর মডেল থানার ভরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোহরাওয়ার্দী হোসেন বলেন, ‘ঘটনা জানার পর ওই কিশোরির লাশ উদ্ধার করা হয়। পরে নওগাঁ সদর হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় রিহান ও সৌরভের বিরুদ্ধে মামলা থানায় মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে রিহান ও সৌরভ পলাতক রয়েছে। তবে তাদেরকে গ্রেফতারের সব ধরনের চেষ্টা অব্যাহত আছে।’

এআই//এমবি 


 


Ekushey Television Ltd.

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি