ঢাকা, শুক্রবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২২, || মাঘ ১৪ ১৪২৮

পরিকল্পিত উন্নয়ন ও নাগরিক সুবিধা নিশ্চিতের অঙ্গীকার

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সংবাদদাতা 

প্রকাশিত : ২২:৪৮, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২১

নাগরিক সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিতের পাশাপাশি একটি উন্নত, আধুনিক ও বাসযোগ্য পৌরসভা গড়ে তোলার অঙ্গীকার করেছেন আসন্ন শিবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়রপ্রার্থী সৈয়দ মনিরুল ইসলাম। বুধবার বিকেলে শিবগঞ্জ ডাক বাংলো চত্বরে নির্বাচন পরিচালনা কমিটি আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে উন্নয়ন পরিকল্পনা উপস্থাপন করেন। দুঃসময়ের ক্ষতচিহ্ন মুছে ফেলে নতুন করে শিবগঞ্জকে সাজানোর লক্ষে মেয়র পদে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি মন্তব্য করে তিনি বলেন, আমার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি হচ্ছে- টেকসই উন্নয়নের মাধ্যমে বাসযোগ্য আধুনিক শিবগঞ্জ গড়ে তোলা। তিনি বলেন, পৌরসভার সমস্যার গুরুত্ব অনুসারে স্বল্প, মধ্যম ও দীর্ঘমেয়াদি কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করে তা বাস্তবায়ন করা হবে। দলমত ও জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে পৌরবাসির সব জাতি-গোষ্ঠীর সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও ধর্মকর্মের অধিকার নিশ্চিত করতে কাজ করার প্রতিশ্রুতি দেন আওয়ামী লীগের এই মেয়রপ্রার্থী।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চশিক্ষা লাভ করা সৈয়দ মনিরুল ইসলাম বলেন, কাগজে-কলমে প্রথম শ্রেণি হিসেবে মর্যাদা পেলেও তেমন উন্নয়ন হয়নি এ পৌরসভার। প্রথম শ্রেণির পৌরসভার যে রূপ হওয়ার কথা তা নেই, নেই তেমন নাগরিক সুবিধাও। আমি নির্বাচিত হলে প্রথম শ্রেণির পৌরসভা হিসেবে নাগরিকদের কাঙ্খিত সব সুবিধা নিশ্চিত ও উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে আমি সচেষ্ট থাকবো। টেকসই রাস্তা নির্মাণ ও আধুনিকায়ন, সুপেয় পানি সরবরাহসহ শিবগঞ্জকে উন্নত পৌরসভা হিসেবে গড়ে তোলা হবে। আর আমি বিশ্বাস করি; সেটা আমার পক্ষে করা সম্ভব।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে মনোনয়ন পাওয়ার পর পৌরসভার সাধারণ মানুষের কাছে অভুতপূর্ব সাড়া পেয়েছি জানিয়ে তিনি বলেন, শিক্ষাজীবনে ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হয়ে ছাত্রলীগের গুরত্বপূর্ণ পদের দায়িত্ব পালন করেছি। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের একজন ক্ষুদ্র কর্মী হিসেবে বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে শিবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে নৌকা প্রতিক প্রদানের মধ্যদিয়ে নেত্রী আমাকে বিশাল দায়িত্ব প্রদান করেছেন। মনোনয়ন প্রাপ্তির পর আমার প্রিয় শিবগঞ্জকে উন্নত ও আধুনিক শিবগঞ্জ পৌরসভা বিনির্মাণের জন্য বিভিন্ন পরিকল্পনা হৃদয়ে ধারণ করেছি। শিবগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থানের বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে পরামর্শ করে ঐতিহ্যবাহী শিবগঞ্জ পৌরসভার জন্য একটি উন্নয়ন পরিকল্পনা তৈরি করেছি। আমার পরিকল্পনা বা ইশতেহার হচ্ছে, জনতার ইস্তেহার আর সেই উন্নয়নের বাস্তবায়ন আমার অঙ্গিকার।

মনিরুল ইসলাম বলেন, আমি মনে করি একটি টেকসই উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন মহাপরিকল্পনা। আমি যদি মেয়র নির্বাচিত হই তবে শিবগঞ্জ পৌরসভার পরিকল্পনা অনুযায়ী প্রতিটি উন্নয়ন বাস্তবায়ন করবো। ঐতিহ্যবাহী শিবগঞ্জ পৌরসভা দেশের প্রথম শ্রেণির পৌরসভার একটি। অথচ পৌরসভার ১৩২ কিলোমিটার সড়কের মাত্র ৩১ কিলোমিটার সড়ক পাকা। বাকি রাস্তা কাঁচা। আমি মেয়র নির্বাচিত হলে প্রথম শ্রেণির এই পৌরসভায় এক কিলোমিটার সড়কও কাঁচা থাকবে না। পর্যায়ক্রমে ৫ বছরে সব সড়ককে পাকা সড়কের আওতায় আনবো এবং ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার কথা বিবেচনায় রেখে গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোকে প্রশস্ত করে নির্মাণ করবো। পায়ে হেঁটে নিরাপদে চলাচলের জন্য ফুটপাতের ব্যবস্থা করবো। আলোকিত শিবগঞ্জ পৌরসভা বিনির্মিণে সড়ক বাতিগুলো আধুনিক করা হবে যাতে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা নিশ্চিত করা যায়।

দুর্নীতিমুক্ত সেবা নিশ্চিতের অঙ্গীকার ব্যক্ত করে তিনি বলেন, যাবতীয় সেবাপ্রাপ্তির জন্য এবং সব অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ কর্তৃপক্ষকে সরাসরি অবহিত করার সুযোগ সৃষ্টির প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে। এলাকার আইনশৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে শিবগঞ্জ বাজারসহ গুরুত্বপূর্ণ এলাকাসমূহে সিসি ক্যামেরা স্থাপন, শিল্প ও বাণিজ্য উদ্যোক্তা সৃষ্টিতে উদ্যোগ গ্রহণ, খেলাধুলার পুরনো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনতে ও তরুণ প্রজন্মকে খেলাধুলায় সম্পৃক্ত করতে আরো উন্নত আধুনিক শিবগঞ্জ স্টেডিয়াম, সুইমিংপুল ও জিমনেসিয়াম নির্মাণ, মসজিদ-ঈদগাহ-কবরস্থানের উন্নয়ন, পৌর এলাকায় মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্র নির্মাণ, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা উন্নত করতে বর্জ্য শোধনাগার নির্মাণ, জলাবদ্ধতা নিরসনে ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন, নাগরিক সেবাকে অনলাইনের আওতায় আনা, আমের বাজার সৃষ্টিতে উদ্যোগ গ্রহণ ও আম সংরক্ষণে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণসহ ২৬টি উন্নয়ন পরিকল্পনা তুলে ধরেন।

পৌর পরিষদের জবাবদিহিতার বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রতিমাসে পৌরসভার আয়-ব্যয়ের হিসাব প্রকাশ করে স্বচ্ছতা আনয়ন করা হবে। ব্যবস্থাপনায় সুশাসন নিশ্চিত করে সেবার মান উন্নত করা হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- শিবগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ নাজমুল কবির মুক্তা, সাধারণ সম্পাদক আতিকুল ইসলাম টুটুল খান, সাংগঠনিক সম্পাদক প্রভাষক মো. আসাদুজ্জামান আসাদ, কানসাট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বেনাউল ইসলামসহ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

আরকে//


Ekushey Television Ltd.

© ২০২২ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি