ঢাকা, রবিবার   ১৯ মে ২০২৪

ঝিনাইদহে সাবেক মেয়রসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

প্রকাশিত : ০৮:৫৭, ৩১ জানুয়ারি ২০২৩

চেক জালিয়াতির মাধ্যমে পৌরসভার অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে ঝিনাইদহ পৌরসভার সাবেক মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুল করিম মিন্টুসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। 

সোমবার রাতে কার্যালয়ের উপ-পরিচালক ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মো. জাহিদ কামাল গণমাধ্যমকর্মীদের এ তথ্য জানান। গত ২২ জানুয়ারি দুদক ঝিনাইদহ সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. বজলুর রহমান বাদী হয়ে এ মামলা করেন।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন পৌরসভার প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান চাঁন, সাবেক সচিব (সাময়িক বরখাস্ত) আজমল হোসেন ও সাবেক হিসাবরক্ষক (সাময়িক বরখাস্ত) মো. মোকলেচুর রহমান।

মামলার বিবরণে বলা হয়, ঝিনাইদহ পৌরসভার বিভিন্ন কাজের বিলের টাকা আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে সোনালী ব্যাংক লিমিটেডের ঝিনাইদহ শাখার হিসাব নং-৩১৬ থেকে ৩ লাখ ৫৮ হাজার ১৯ টাকার বিপরীতে চেক জালিয়াতির মাধ্যমে ৩৩ লাখ ৫৮ হাজার ১৯ টাকা উত্তোলন করে ৩০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেন। যা ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনে শাস্তিযোগ্য অপরাধ। প্রাথমিক তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ওই মামলা করা হয়েছে।

দুর্নীতির দায়ে সাবেক সচিব আজমল হোসেন ও হিসাবরক্ষক মোকলেচুর রহমানকে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। মন্ত্রণালয়ের জারিকৃত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ঝিনাইদহ পৌরসভার ফান্ড তছরুপ ও চেক জালিয়াতির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আজমল ও মোকলেচুরের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করা হয়। 

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ পৌর শাখা-১–এর উপসচিব আবদুর রহমান এ প্রজ্ঞাপন জারি করেন।

এ বিষয়ে জানতে সাবেক মেয়র সাইদুল করিম মিন্টুর মুঠোফোনে ফোন দেওয়া হলে তাঁর নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়। পৌরসভার প্রশাসনিক কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান চাঁন জানান, তিনি এ বিষয়ে কিছুই জানেন না। তাদের নামে মামলা হওয়ার কথা নয়। কারণ, মন্ত্রণালয় বিষয়টি তদন্ত করে দুজনকে দায়ী করে তাদের সাময়িক বরখাস্ত করেছে।

এএইচ


Ekushey Television Ltd.





© ২০২৪ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি