ঢাকা, সোমবার   ২৭ মে ২০২৪

অফিস সময়ে ব্যক্তিগত চেম্বারে চিকিৎসক, সেবা বঞ্চিত কারাবন্দীরা

কালকিনি (মাদারীপুর) প্রতিনিধি

প্রকাশিত : ১৪:০৮, ২৮ মার্চ ২০২৩

মাদারীপুর জেলা কারাগারে কর্মরত চিকিৎসক ডাঃ অখিল সরকার (কোড নং-১২৪৩১৪)র বিরুদ্ধে কারাবন্দীদের চিকিৎসা সেবা না দিয়ে অফিস সময়ে ব্যক্তিগত চেম্বারে রোগী দেখার অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়টি শহরের লোকজনের আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু হলেও প্রভাবশালী মহলের সঙ্গে ওই চিকিৎসকের সুস্পর্কের কারণে বিষয়টি এতদিন গোপনই ছিল।

সম্প্রতি অফিস সময়ে তার ব্যক্তিগত চেম্বারে বসে রোগী দেখার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। বিষয়টি নিয়ে সচেতন মহলে বেশ আলোচনার ঝড় উঠে। 

ভাইরাল হওয়া ২ মিনিট ২৪ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে দেখা যায় ডাঃ অখিল সরকার অফিস চলাকালীন সময়ে তার ব্যক্তিগত চেম্বারে বসে রোগী দেখছেন। ওই সময় তাকে জেলখানা ছেড়ে ব্যক্তিগত চেম্বারে বসার কারণ জানতে চাইলে তিনি সঠিক কোন জবাব দিতে পারেননি।

এদিকে, অনেকেই জানান মাদারীপুরের বিভিন্ন মহলের প্রভাবশালীদের সঙ্গে সম্পর্ক রেখেই এসব করে যাচ্ছেন ডাঃ অখিল সরকার।  তিনি সরকারি চিকিৎসক হওয়া সত্ত্বেও সরকারি কর্তব্য ফাঁকি দিয়ে ব্যক্তিগত চেম্বার করে যাচ্ছেন। 

সচেতন মহল মনে করেন, ডাঃ অখিল সরকার তার কর্মস্থল মাদারীপুর জেলখানায় দুপুর ২টা পর্যন্ত সময় দেয়ার কথা থাকলেও পকেট ভারি করতে সময় দেন ব্যক্তিগত চেম্বারে।

তাই উক্ত ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে বিচারের দাবি জানিয়েছেন মাদারীপুরের সচেতন মহল।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন কারারক্ষী জানায়, প্রায়ই ডাক্তার মোটরসাইকেল করে এসে কিছুক্ষণ থেকেই দুপুর ২টার আগেই চলে যান।

এ ব্যাপারে জানতে অফিস টাইমে ডাঃ অখিল সরকারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, মাদারীপুর কারাগারের একমাত্র চিকিৎসক হিসেবে তার জন্য নির্ধারিত কোন সময় বেধে দেওয়া নেই। সরকার নির্ধারিত অফিস সময়ের বাইরেও অনেক সময় রাতেও তিনি কারাগারে রোগী দেখতে যান। তার সুনাম নষ্ট করতে একটি মহল ষড়যন্ত্র করছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

এ বিষয়ে মাদারীপুরের সিভিল সার্জন ডাঃ মুনীর আহমেদ বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে সরকার নির্ধারিত সময়ে বাইরে গিয়ে রোগী দেখার কোন নিয়ম নেই। যদি সে এমন কাজ করে থাকে তবে তদন্ত সাপেক্ষে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এএইচ


Ekushey Television Ltd.





© ২০২৪ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি