ঢাকা, শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১১:৪৩:৩৩

Ekushey Television Ltd.

অপরাধ মোকাবেলায় অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠানসমূহের বোঝাপড়া জরুরি  

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১১:১০ পিএম, ১১ জুলাই ২০১৮ বুধবার | আপডেট: ১১:৩৯ পিএম, ১১ জুলাই ২০১৮ বুধবার

অপরাধীদের মোকাবেলা করা এবং ঝুঁকি ব্যবস্থাপনার জন্য অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠানসমূহের সুনির্দিষ্ট বোঝাপড়া থাকা অত্যন্ত জরুরি বলে মন্তব্য করেছেন আইসিসি বাংলাদেশ সভাপতি মাহবুবুর রহমান।       

আইসিসি কর্মশালা ”Changing Faces of International Trade fraud : Current Risks, Prevention & Responses” এর সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তৃতা প্রদানকালে তিনি একথা বলেন। কর্মশালাটি ১০ জুন ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয়। আইসিসি বাংলাদেশ কর্মশালাটির আয়োজন করে।      

তিনি বলেন, প্রতারণা ও তথ্য নিরাপত্তা ঝুঁকি বিভিন্নভাবে এবং বিভিন্ন চ্যানেলে এসে থাকে, একারনে অপরাধীদের মোকাবেলা করা এবং ঝুঁকি ব্যবস্থাপনার জন্য অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠানসমূহের সুনির্দিষ্ট জ্ঞান থাকা অত্যন্ত জরুরি। বুদ্ধিমত্তার সাথে কৌশলগত পরিকল্পনা থাকলে যে কোন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মারাত্মক ক্ষতি হওয়ার আগেই ঝুঁকি কমানো এবং ঝুকি চিহ্নিত করার সুযোগ বেশী থাকে।  

কিছু কিছু ক্ষেত্রে এ ঝুঁকি মোকাবেলার জন্য নতুন প্রযুক্তিতে বিনিয়োগের প্রয়োজন হতে পারে; আবার প্রাতিষ্ঠানিক সিলোসগুলোর মধ্যে সেতু নির্মাণ ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ট্রেনিং করানো যেতে পারে। সব ক্ষেত্রেই যে কোন পদক্ষেপ এমনভাবে নিতে হবে যাতে কাষ্টমারকে ঝুঁকি স্পর্শ করার আগেই ঝুঁকি চিহ্নিত করার ক্ষমতা প্রতিষ্ঠানের থাকে, বলেন মাহবুবুর রহমান।

জিডিপি অনুযায়ী বাংলাদেশ বিশ্বে ৩৩তম বৃহত্তম অর্থনীতি এবং দ্বিতীয় বৃহত্তম তৈরী পোশাক উৎপাদনকারী দেশ। নিশ্চিতভাবেই দেশ উদীয়মান টাইগার হিসাবে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াতে পরিচিতি পেয়েছে। ফলশ্রুতিতে এর সাথে সংশিষ্ট সেবা শিল্পসমূহের প্রসার হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে শিপিং, ফ্রেট ফরওয়ার্ডিং, কাষ্টমস ক্লিয়ারেন্স, কমার্শিয়াল ব্যাংকিং এবং লিগেল সার্ভিস ইন্ডাষ্ট্রিজ। স্বচ্ছন্দ বাণিজ্যিক লেনদেন এবং আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের জন্য শক্তিশালী আইনগত সহায়তা প্রয়োজন নিম্নোক্ত বিষয়গুলোর ক্ষেত্রে : ভ্যাট, ট্যাক্স,কাষ্টমস সংক্রান্ত বিষয়াদি, বিক্রয় চুক্তির শর্তাবলী নির্ধারণ, স্থানীয় এবং আন্তর্জাতিক বৈদেশিক বিনিময় নিয়ন্ত্রণ আইনকে মেনে নেয়া, আন্তর্জাতিক বাণিজ্য আইন, INCOTERMS, UCP 600 ইত্যাদি। তাই এ কর্মশালা সময়োপযোগী হয়েছে বলে আইসিসিবি সভাপতি মত দেন। 

আইসিসিবি নির্বাহী বোর্ডের সদস্য মো: ফজলুল হক, কর্মশালা পরিচালনাকারী আইসিসি কমার্শিয়াল ক্রাইম সার্ভিসেস এর ডিরেক্টর এবং প্রধান পতেংগাল মুকোন্দন এবং আইসিসিবি সেক্রেটারী জেনারেল আতাউর রহমানও কর্মশালায় বক্তৃতা দেন।

ঢাকায় ৩৭টি বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে মোট ১৯৩ জন এবং চট্রগ্রামে ২৯টি বানিজ্যিক ব্যাংক থেকে ৭৪ জন কর্মশালায় অংশগ্রহন নেন। চট্রগ্রামের কর্মশালাটি ১১ জুলাই অনুষ্ঠিত হয়েছে।  

এসি 

 



© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি