ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৩ জানুয়ারি ২০২০, || মাঘ ১০ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

চাকরির প্রলোভনে নারী পোশাক শ্রমিককে গণধর্ষণ, আটক ২

সাভার প্রতিনিধি

প্রকাশিত : ১৯:২০ ৬ নভেম্বর ২০১৯ | আপডেট: ২২:১০ ৬ নভেম্বর ২০১৯

রাজধানী ঢাকার অদূরে শিল্পাঞ্চল আশুলিয়ায় এক নারী পোশাক শ্রমিককে  চাকরির দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে গণধর্ষণের অভিযোগে ২ জনকে আটক করেছে থানা পুলিশ।

মঙ্গলবার রাতে তাদের আটক করা হয়। আটককৃতরা হল, ঢাকা জেলার আশুলিয়া থানার বড় রাঙ্গামাটিয়া গ্রামের মাইন উদ্দিনের ছেলে মিজানুর রহমান (৩০), ধামরাই থানার কামারপাড়া গ্রামের বদর উদ্দিনে ছেলে দেলোয়ার হোসেন (৩০)। 

গণধর্ষণের অভিযোগে দায়ের করা মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, নাটোর জেলার গুরুদাসপুর থানার ধারাবাড়ীসাহা নয়াবাজার গ্রামের ইউসুফ আলী তার স্ত্রীকে নিয়ে আশুলিয়া বড় রাঙ্গামাটি এলাকার সাগরের বাড়ীতে ভাড়া থেকে স্থানীয় পোশাক কারখানায় কাজ করেন। তার স্ত্রী গত ৫ মাস ধরে বেকার থাকায় বিভিন্ন কারখানায় চাকরি খোঁজছিলেন। 

গত ৫ নভেম্বর বেলা ১১টার দিকে চাকরি দেওয়ার কথা বলে সোহেল (৩০) নামের একজন তাকে ডেকে মাইন উদ্দিনের বাড়ীর একটি কক্ষে নিয়ে যায়। ওই কক্ষে বাড়ীর মালিকের ছেলে মিজান, দেলোয়ার ও আ: রাজ্জাকসহ তিন জন আগে থেকেই অবস্থান করছিল। মিজানের কক্ষে প্রবেশ করার পরই দরজার বাহির থেকে আটকে দিয়ে সোহেল চলে যায়। এরপর রাজ্জাক তার মুখ চেপে ধরে রেখে পালাক্রমে মিজান ও দেলায়ার তাকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণ করে। 

ধর্ষকরা দুপুরের পর ধর্ষণের ঘটনা অন্য কাউকে জানালে প্রানে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে ওই নারীকে ছেড়ে দেয়। এরপর তার স্বামী ও আত্মীয়-স্বজনদের বিষয়টি অবহিত করে একদিন পর আশুলিয়া থানায় এসে একটি অভিযোগ দায়ের করেন।
  
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও আশুলিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) জাবেদ মাসুদ বলেন, ভুক্তভোগী পোশাক শ্রমিক নারীর অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে ৪ আসামীর মধ্যে ১ ও ২নং আসামীকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনার সাথে আরও ২ জন জড়িত রয়েছে। তারা একই মামলার এজাহারনামীয় আসামী।

তিনি আরও জানান, এজাহার নামীয় অন্যান্য আসামীদের আটক করতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। আটককৃতদের পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সময় চেয়ে বুধবার দুপুরে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

কেআই/এসি
 
 

© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি