ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ১৭ অক্টোবর ২০১৯, || কার্তিক ২ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

চেয়ারম্যানের সঙ্গে বিরোধের জেরে কব্জি হারালো যুবক

রাজশাহী অফিস

প্রকাশিত : ০০:১৫ ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে নদীর ঘাট নিয়ে বিরোধে রুবেল হোসেন (২৮) নামের এক যুবকের দুই হাতের কব্জি কেটে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে উপজেলার উজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে।

দীর্ঘদিন ধরে নদীর ঘাট নিয়ে ওই চেয়ারম্যানের সঙ্গে তার বিরোধ চলছিল বলে জানিয়েছেন দুই হাতের কব্জি হারানো ওই যুবক। তিনি উপজেলার নয়ালাভাঙ্গা গ্রামের খোদা বক্সের ছেলে।

গতকাল বুধবার গভীর রাতে রুবেল হোসেনকে উদ্ধার করে তার পরিবারের সদস্যরা প্রথমে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে সেখান থেকে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৩১ নং ওয়ার্ডে স্থানান্তর করা হয়। 

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ফেরদৌস ডা. সাইফুল ফেরদৌস বলেন, রুবেল হোসেনের দুই হাতের কব্জি বিছিন্ন রয়েছে। সেটি জোড়া লাগানো আর সম্ভব নয়। তার অবস্থা আশঙ্কা মুক্ত নয়। বর্তমানে তাকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। 

দুই হাতের কব্জি হারানো রুবেল জানান, শিবগঞ্জের উজিরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা ফয়েজ উদ্দিনের সাথে নদীর ঘাট নিয়ে তার দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। এর জের ধরে তাকে চোখ বেঁধে তুলে নিয়ে গিয়ে দুই হাতের কব্জি কেটে দিয়েছে। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হয়। 

হাসপাতালে রুবেলের চাচাতো ভাই আব্দুস সালাম বলেন, বুধবার রাতে রুবেল তার দুই বন্ধুকে নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় শিবগঞ্জের উজিরপুর বেড়িবাঁধের কাছে কয়েকজন তাদের পথ রোধ করেন এবং পাশেই ইউপি চেয়ারম্যান ফয়েজের চেম্বারে গিয়ে দেখা করতে বলে। 

রুবেল বন্ধুদের নিয়ে চেয়ারম্যানের চেম্বারে গেলে, তার দুই বন্ধুকে সেখানে আটকে রাখা হয়। এরপর রুবেলের মুখ ও চোখ গামছা দিয়ে বেঁধে পদ্মা নদীর বাঁধের নিচে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তাকে নির্যাতন করে দুই হাতের কব্জি কেটে নেয় চেয়ারম্যানের লোকজন। রাত ১টার দিকে খবর পেয়ে স্বজনরা গিয়ে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরে অবস্থার অবনতি হলে তাকে রামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আব্দুস সালাম আরো জানান, পদ্মা নদীর ফেরি ঘাট নিয়ে চেয়ারম্যান ফয়েজের সঙ্গে রুবেলের বিরোধ রয়েছে। স্থানীয় এমপি ও তার ভাইয়ের মধ্যস্থতায় উভয় পক্ষ মিলে মিশে ঘাটটি চালাচ্ছিল। কিন্তু কিছু দিন ধরে চেয়ারম্যান ফয়েজ ফেরি ঘাটটি পুরো নিজের নিয়ন্ত্রণে নিতে চাচ্ছিলেন। এর জের ধরেই তার লোকজন রুবেলকে তুলে নিয়ে গিয়ে দুই হাতের কব্জি কেটে নিয়েছে। 

চাঁপাইনবাবগঞ্জের পুলিশ সুপার টি এম মোজাহিদুল ইসলাম (বিপিএম,পিপিএম) বলেন, এ ঘটনায় থানায় বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত থানায় কোনো মামলা হয়নি। তবে রাতেই ঘটনার খবর পেয়ে এর সঙ্গে জড়িতদের গ্রেফতারে পুলিশের একটি টিম অভিযান শুরু করে। রাতে সন্দেহভাজন দুইজনকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা। 

আই/এসি
 

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি