ঢাকা, শনিবার   ১৯ অক্টোবর ২০১৯, || কার্তিক ৪ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নিখোঁজ শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৪:৫১ ২৩ জুলাই ২০১৮ | আপডেট: ১৪:৫৩ ২৩ জুলাই ২০১৮

নিখোঁজ হওয়া নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএ-এর ৫ম সেমিস্টারের ছাত্র মো. সাইদুর রহমান পায়েলের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া এলাকার নদীতে ভাস্যমান অবস্থায় তার লাশ দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দেয়। এরপর গজারিয়া থানার পুলিশ এসে তার লাশ উদ্ধার করে।

গতকাল ২১ জুলাই হানিফ পরিবহনের একটি বাসে (নং ৯৬৮৭) চট্টগ্রাম থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাত্রা করছিলেন তিনি। তার সিট নাম্বার (এ-৩)। এ সময় তার সঙ্গে ছিল বন্ধু আকিবুর রহমান আদর (২১)।

স্বজনদের সুত্রে জানা যায়, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএ ৫ম সেমিস্টারে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থী সাইদুর রহমান পায়েল (২১) ঢাকা ফেরার পথে মেঘনা ব্রিজের কাছে প্রকৃতির ডাকে সারাদিতে গাড়ি থেকে নামার পরে, গাড়ি ছেড়ে দেওয়ায় সে আর বাসে উঠতে পারেনি। সারাদিন তাঁর খবর না পেয়ে পরিবারের পক্ষ থেকে তার মামা গোলাম সরওয়ার্দী বিপ্লব নারায়ণগঞ্জের বন্দর থানায় একটি জিডি করে।

পায়েলের পিতার নাম গোলাম মাওলা, মাতা- কহিনুর মাওলা। গ্রামের বাড়ি সন্দ্বীপের পূর্ব হরিশপুর ইউনিয়নে। পায়েলের মামা কামরুজ্জামান চৌধুরী টিটু জানান, আমার ভাগিনা গত (শনিবার) ঢাকা যাওয়ার পথে মেঘনা ব্রিজের পরে গাড়ি থামলে সে সময় পায়েল (প্রকৃতির ডাকে) সাড়া দিতে বাস থেকে নামে। তার অপেক্ষা না করে গাড়ি ছেড়ে দেয় ফলে সে গাড়িতে আর উঠতে পারেনি। এমন কি তার মোবাইলও গাড়িতে থেকে যায়।
সকালে পায়েলের মা কহিনুর বেগম ছেলের মোবাইল নাম্বারে ফোন করলে পাশের সিটের থাকা তার রুমমেট আদর জানান পায়েল গাড়িতে নেই।’

উল্লেখ্য, গাড়ির সুপার ভাইজার জনিকে (৩০) ফোন করলে সে নিখোঁজ পায়েলের মামা বিপ্লবকে জানায়, গত ২১ জুলাই চট্টগ্রামের এ কে খান গেইটের কাউন্টার থেকে রাত ১০টায় টিকেট কেটে রওনা করে। রাত আনুমানিক ৪.৩০ দিকে বন্দর থানাধীন ক্যাসেল রেস্টুরেন্টের কাছে গাড়ি এসে পৌঁছালে গাড়ি জ্যামের কবলে পরে এমন সময় সে (পায়েল) গাড়ি থেকে বের হয়। জ্যাম ছেড়ে রাস্তা ফাঁকা হলে গাড়ি দ্রুত ছেড়ে দেয় ফলে সে গাড়িতে উঠতে পারেনি।’

উল্লেখ্য, সাইদুর রহমান পায়েল ঢাকার বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় একটি ফ্ল্যাটে বন্ধুদের নিয়ে ভাড়া থাকতেন। তার পিতা গোলাম মাওলা, মাতা- কহিনুর বেগম আই ব্লক হালিশহরে বসবাস করেন। তার গ্রামের বাড়ি চট্টগ্রামের জেলার সন্দ্বীপ উপজেলার পূর্ব হরিশপুর গ্রামে।

এমজে/

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি