ঢাকা, ২০১৯-০৬-১৯ ২১:১১:৪০, বুধবার

Ekushey Television Ltd.

স্কুলে একটির বেশি বই নয়, প্রধান শিক্ষকের নির্দেশ!

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৬:০১ পিএম, ১১ জানুয়ারি ২০১৯ শুক্রবার

আজকাল শিশুদের গাদা-গাদা বইয়ের বোজা বইতে হয়। প্রায়শ এমন চিত্র দেখা যায়। স্কুল ব্যাগে বইয়ের চাপে শিশুরা অস্থির। এতে করে শিশুর মানসিক-শারীরিক বিকাশে বাঁধা গ্রস্ত হয়। শিশুর নিজ শরীরের ওজনের চেয়েও বেশি ওজনের বই বহন করতে হয় প্রতিদিন। এছাড়া ক্লাস-পরীক্ষা, হোম ওয়ার্ক, কোচিং এর ফলে শিশুদের মনোজগতে দারুণ প্রভাব ফেলে।  

আমাদের দেশের মতো ভারতের বিভিন্ন স্কুলেও এমন পদ্ধতি বিদ্যমান রয়েছে। অথচ ব্যাগের ওজন কমানোর জন্য নির্দেশ রয়েছে ভারতে। কিন্তু তাতে কোন লাভ হচ্ছে না, বরং দিন দিনই বাড়ছে স্কুল ব্যাগের ওজন।

সম্প্রতি স্কুল ব্যাগের ওজন কমাতে ভারতের গুজরাট রাজ্যের আনন্দ কুমার খালাস নামের একজন প্রধান শিক্ষক অভিনব এক পদ্ধতি গ্রহণ করলেন। তিনি কাজটি করেন স্কুলের অন্যান্য শিক্ষকদের সঙ্গে আলোচনা করেই।

প্রধান শিক্ষক আনন্দ ও তার সহকর্মীরা ঠিক করেছেন, প্রতি মাসে স্কুলে শিশুদের যা পড়ানো হবে তার একটা সিলেবাস তারা আগে থেকেই তৈরি করবেন। এর পর সেই সিলেবাস অনুযায়ী সব বই থেকে নির্দিষ্ট বিষয় গুলি কেটে নিয়ে একটি মাত্র আলাদা বই তৈরি করা হবে। এর সঙ্গে থাকবে ক্লাস ওয়ার্কের জন্য আলাদা কিছু সাদা পৃষ্ঠাও। অর্থাৎ একাধিক বইয়ের বদলে স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের এখন বহন করতে হবে একটি মাত্র বই। এতে শিক্ষার্থীদের বই বহনের ভার অনেকটা লাঘব হবে। আনন্দের এই পদক্ষেপ অনেককেই আকৃষ্ট করেছে, হয়েছে প্রশংসিতও। 

জানা যায়, প্রধান শিক্ষক আনন্দ সম্প্রতি তার মেয়েকে স্কুলে দিতে যাওয়ার সময় খেয়াল করেন তার মেয়ের স্কুলের ব্যাগটি অত্যন্ত ভারী। ব্যাগটি বহন করতে মেয়েটির বেশ কষ্ট হচ্ছে। যেহেতু তিনি নিজেও একটি স্কুলের প্রধান শিক্ষক তাই তিনি বুঝতে পারেন, তার স্কুলের বাচ্চাদেরও নিশ্চয়ই একই রকম কষ্ট হয় বইয়ের ভার বহন করতে গিয়ে। এই সমস্যার সমাধান করতে গিয়ে তিনি নিজের স্কুলের শিক্ষকদের সঙ্গে আলোচনা করেন। সেখানেই ঠিক হয় এমন অভিনব পদ্ধতি।

সূত্র : আনন্দবাজার।

 

কেআই/এসএইচ/

ফটো গ্যালারি



© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি