ঢাকা, বুধবার   ২০ নভেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ৭ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

আবারও রাস্তায় নামল চিলির জনগণ

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৪:১৫ ২৭ অক্টোবর ২০১৯ | আপডেট: ১৪:১৭ ২৭ অক্টোবর ২০১৯

আরও একবার আর্থিক বৈসাম্য দূর, বর্ধিত বেতন আর পেনশনের দাবিতে রাস্তায় নামল চিলির জনগণ। গতকাল রাজধানী সান্তিয়াগোতে দশ লাখেরও বেশি মানুষ সমবেত হয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। দেশের অন্যান্য শহরেও একইভাবে বিক্ষোভে অংশ নিয়েছেন আরও কয়েক লাখ মানুষ।

নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে জীবনযাত্রা দুর্বিষহ হয়ে ওঠার মধ্যে গত ৬ অক্টোবর মেট্রোরেলের ভাড়া ও বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে প্রায় ১০/১২ দিন রাস্তায় বিক্ষোভ করেছিল চিলির জনগণ। তখন পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে প্রাণ গিয়েছিল ১৭ জনের। আহত হন শতাধিক এবং গ্রেফতার হন কয়েক হাজার। এর কয়েক দিন যেতে না যেতেই আবার রাস্তায় নামলো চিলির জনগণ।

গতকাল চিলির ধনকুবের প্রেসিডেন্ট সেবাস্তিয়ান পিনিয়েরার বিরুদ্ধে শহরের প্রতিটি রাস্তা সাধারণ মানুষের ভিড়ে রুদ্ধ হয়ে পড়েছিল। বাস-ট্রাকের চালক থেকে শুরু করে প্রতিটি পেশার মানুষ অফিস ছেড়ে বিক্ষোভে সামিল হন। প্রেসিডেন্ট-বিরোধী পোস্টারে ছেয়ে গিয়েছিল সান্তিয়াগোর রাস্তা। বিক্ষোভ থেকে দাবি ওঠে, ‘প্রেসিডেন্ট, নিজের গদি ছাড়ো’।

লাতিন আমেরিকার সবচেয়ে ধনী দেশ চিলিতে ৭০ লাখ জনগণের বসবাস। খুব সম্প্রতি বাস-ট্রেনের ভাড়া অত্যধিক হারে বাড়ানোর সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে রাস্তায় নামে এই দেশের লাখো মানুষ। তখন জরুরি অবস্থা জারি করেছিল সরকার। ওই অবস্থায় শহরের গলিতে গলিতে পাহাড়ায় ছিল প্রায় বিশ হাজার সেনা। যা এখনও বলবত রয়েছে চিলির রাজধানীতে।

গতকালও এর ব্যতিক্রম ছিল না। দুপুর থেকে জমতে থাকা ভিড় তাই রাত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ঘরেও ফিরতে বাধ্য হয়। অশান্তির ভয়ে শহরের প্রায় প্রতিটি গলিতেই সেনা নামিয়েছিল চিলির সরকার। বিক্ষোভ চলাকালীন সময়ে কালো রঙের গাড়িতে চড়ে সেনাদের টহল দিতে দেখা যায়।

শহরের গভর্নর কার্লা রুবিলার বারায়োনা টুইট করে লেখেন, ‘আজ এক ঐতিহাসিক দিন। লাখ লাখ মানুষের এই শান্তিপূর্ণ মিছিলই বলে দেয় চিলিতে নতুন দিন আসছে। ষাট লাখের এই শহরে পথে নেমেছে দশ লাখেরও বেশি মানুষ।’  

গভর্নরের সুরই অবসরপ্রাপ্ত এক শিক্ষিকা টুইটারে লিখেন, ‘এ দেশে দিন বদল না দেখে মরতে চাই না। সবচেয়ে বড় কথা, ভাল বেতন আর ভাল পেনশন চাই সকলে।’

এ রকম বিক্ষোভ দেখে সরকারের টনক নড়েছে। ইতিমধ্যে প্রেসিডেন্ট পিনিয়েরা বর্ধিত বিদ্যুৎ বিল কমানোর জন্য আইনসভার সদস্যদের তড়িঘড়ি নির্দেশ দিয়েছেন। সেই সঙ্গে ন্যূনতম বেতন বাড়ানোর কথা বলছেন। কুড়ি শতাংশ পেনশন বাড়ানোর সিদ্ধান্তও নিয়েছেন বলে ঘোষণা দেন।

এএইচ/

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি