ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, || ফাল্গুন ৮ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের ডিজিটাল সার্ভিস ডিজাইন ল্যাবের সমাপনী

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ২১:২০ ২৯ জানুয়ারি ২০২০

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে এবং এটুআই-এর ডিজিটাল এক্সিলারেটরের সহযোগিতায় ২৯ জানুয়ারি, ২০২০ পূর্ত ভবনের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত হল নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের ডিজিটাল সার্ভিস ডিজাইন ল্যাবের সমাপনী অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহম্মেদ পলক এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব (সমন্বয় ও সংস্কার) শেখ মুজিবুর রহমান। 

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. আবদুস সামাদ। নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সঞ্জয় কুমার বণিক এর সঞ্চালনায় এটুআই-এর চীফ স্ট্যাটেজিস্ট (ই-গভর্ন্যান্স) ফরহাদ জাহিদ শেখ ল্যাবে ডিজাইনকৃত ও পরিকল্পনাকৃত ডিজিটাল সার্ভিসগুলো সমন্বয় করে ‘ডিজিটাল সার্ভিস ডেলিভারি প্ল্যাটফর্ম’ এর প্রস্তাবনা উপস্থাপন করেন। প্রস্তাবিত এই সমন্বিত প্ল্যাটফর্ম দ্রুত বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

ডিজাইন ল্যাবের সমাপনী অনুষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্‌মেদ পলক বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে ইতোমধ্যে প্রায় ৬০০ এর বেশি নাগরিক সেবা ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে চলে এসেছে। সরকারের আরো ২০০০ এর অধিক সেবা ডিজিটাইজ করতে একটি সুন্দর পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। তিনি বলেন, ইতোমধ্যে প্রায় ২৫টি মন্ত্রণালয়ে ডিজিটাল সার্ভিস ডিজাইন ল্যাব সম্পন্ন হয়েছে। আমরা প্রত্যাশা করছি ২০২০ সাল জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে, আমরা অন্তত ১০০টি জনবান্ধব সেবা ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে সহজলভ্য করব। যার মাধ্যমে ১০০ মিলিয়ন মানুষ অর্থাৎ ১০ কোটি মানুষ এই ডিজিটাল সেবাগুলো গ্রহণ করতে পারবে। এই ১০০টি বিশেষ সেবার মধ্যে আমরা নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়কেও সমন্বয় করেছি কারণ আমাদের নৌপথ ও বন্দরগুলো অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি হিসেবে ব্যাপক ভূমিকা পালন করছে। প্রযুক্তি ব্যবহারে নৌপরিবহণকে স্বয়ংক্রিয় করতে পারলে জনগণের হয়রানি, সময় ও অর্থ অপচয় রোধ হবে এবং সেবার মান বৃদ্ধি পাবে এবং দুর্নীতি একেবারেই নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসা সম্ভব হবে। 

একটি ডিজিটাল সিস্টেম দেশের অর্থনীতিকে অনেক বেগবান করে উল্লেখ করে মাননীয় প্রতিমন্ত্রী বলেন, চট্টগ্রাম সী-পোর্টে কাস্টমস্ প্রক্রিয়া ডিজিটাইজ করার মাধ্যমে মাত্র ৫ বছরে পোর্টের আয় বৃদ্ধি পেয়েছে ১০ হাজার কোটিরও বেশি। এর মাধ্যমে একদিকে সরকারের আয় বৃদ্ধি পেয়েছে অন্যদিকে দূর্নীতিও রোধ করা গেছে। টেন্ডার কার্যক্রম ডিজিটাল স্পেসে চলে যাওয়া একদিকে যেমন মানুষের ভোগান্তি কমেছে অন্যদিকে অনিয়ম করার সুযোগও বন্ধ হয়েছে। এভাবে আমরা দেশীয় প্রযুক্তি উদ্ভাবন করছি এবং দেশের গন্ডি পেরিয়ে একটি ডিজিটাল ইকোনমি করার পথে এগিয়ে যাচ্ছি। বিদেশী কোন পরামর্শক ছাড়াই দেশের মেধাবীরাই এইসব ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম তৈরি করেছে। 

ডিজিটাল সার্ভিস ডিজাইন ল্যাবে মোট ৭২টি সেবার ৩৭টি সিস্টেমের ক্ষেত্রে (২০টি জিটুবি, ৬টি জিটুসি এবং ১১টি জিটুজি) ৫টি গ্রুপের পর্যালোচনায় নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়-এর একটি ইন্টিগ্রেটেড ডিজিটাল সার্ভিস ডেলিভারি প্ল্যাটফর্মের বিষয় উঠে এসেছে। সেবাসমূহ ৫টি সফটওয়্যারের মাধ্যমে ইন্টিগ্রেটেড প্ল্যাটফর্ম তৈরি করা হবে। যা হলো লাইসেন্স, রেজিস্ট্রেশন, সার্টিফিকেট, পার্মিশন ও এনওসি ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম, মেরিন এডুকেশন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম, লীজ ও রেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম, শেয়ারহোল্ডারস ও লিগ্যাল অ্যাফেয়ার্স ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম এবং শীপ ও কার্গো ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম। 

ডিজিটাল সার্ভিস রোডম্যাপ-২০২১ কর্মশালায় সনাক্তকৃত সিস্টেমসমূহ দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য আইসিটি বিভাগের আওতাধীন এবং মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও ইউএনডিপি এর সহায়তায় পরিচালিত এটুআই-এর ডিজিটাল সার্ভিস এক্সিলারেটর টিমের সহযোগিতায় নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় গত ২৬ জানুয়ারি থেকে ৪ দিনব্যাপী ‘ডিজিটাল সার্ভিস ডিজাইন ল্যাব’ আয়োজন করেছে। এই ল্যাবে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়-কেন্দ্রিক সকল গুরুত্বপূর্ণ সেবা প্রদান পদ্ধতি বিশ্লেষণের ক্ষেত্রে সেবা প্রদানের ধাপ, প্রয়োজনীয় কাগজপত্র, সেবা প্রাপ্তির সময় ও খরচ এবং সেবা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে বিদ্যমান সমস্যাসমূহ বিবেচনায় আনা হয়েছে। সেবাপ্রাপ্তিতে নাগরিকদের সময়, অর্থ এবং যাতায়াত হ্রাসের লক্ষ্যে সেবা প্রদান পদ্ধতি বিশ্লেষণের মাধ্যমে সেবাসমূহকে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন তৈরির পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। ডিজাইন ল্যাব কর্মশালায় নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়-এর ৪৫জন কর্মকর্তা, ০৮জন সরকারি-বেসরকারি ডিজিটাল সার্ভিস এনালিস্ট, ১০জন এটুআই-এর কর্মকর্তা এবং ০৯জন সংশ্লিষ্ট সেবাগ্রহীতা অংশগ্রহণ করেন। 

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রীর ভিশন ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে বিগত ২০১৮ সালে ৫৪টি মন্ত্রণালয়/বিভাগ এবং তার আওতাধীন ৩৯৪টি অধিদপ্তর/দপ্তর/সংস্থার ১৭৯২ জন অংশগ্রহণকারী সরকারি কর্মকর্তা, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়/বিভাগের সচিব মহোদয়, সম্মানিত দপ্তর প্রধানগণ, এটুআই-এর ডিজিটাল সার্ভিস এক্সিলারেটর টিম ও আইটি রিসোর্স পার্সনদের সহযোগিতায় ২/৩ দিনব্যাপী ডিজিটাল সার্ভিস বাস্তবায়ন পরিকল্পনা কর্মশালার মাধ্যমে ২০২১ সাল পর্যন্ত ১৮৪৭টি ডিজিটাল সার্ভিস (মোবাইল-সার্ভিস/ ডিজিটাল সিস্টেম) এর বাস্তবায়ন পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়েছে।

ডিজিটাল সার্ভিস ডিজাইন ল্যাবের সমাপনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় ও এটুআই-এর কর্মকর্তাবৃন্দ এবং গণমাধ্যমকর্মীগণ উপস্থিত ছিলেন।    

আরকে//

New Bangla Dubbing TV Series Mu
New Bangla Dubbing TV Series Mu

© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি