ঢাকা, রবিবার   ১৭ নভেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ৩ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

পুতিনের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বিকে নির্বাচনের অযোগ্য ঘোষণা

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১০:১৪ ২৬ ডিসেম্বর ২০১৭

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বর্তমান প্রেসিডেন্ট ভ্লামিদির পুতিনের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী আলেক্সি নাভানলিকে নির্বাচনের অযোগ্য ঘোষণা করেছে দেশটির নির্বাচন কমিশন।

গতকাল সোমবার দেশটির কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন তাকে নির্বাচনের অযোগ্য ঘোষণা করে। ফৌজদারি অপরাধের দায়ে দণ্ডিত আলেক্সি নাভানলি ২০১৮ এর নির্বাচনে অংশ নিতে পারবে না বলে কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনের প্রধান এলা পামফিলোভা নির্বাচন কমিশনকে জানিয়েছে।

 অন্যান্য নির্বাচন কমিশনারদের সঙ্গে আলোচনাকালে তিনি বলেন, রাশিয়ার আইনে কোন ব্যক্তি ফৌজদারি অপরাধের দায়ে দণ্ডিত হলে তার নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার কোনো সুযোগ নেই।

রাশিয়ার গণমাধ্যমগুলো এক নির্বাচন কমিশনারের বরাত দিয়ে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। এর আগে নাভানলি তার ব্যক্তিগত ওয়েবসাইটে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের ভিডিও বক্তব্য আপলোড করেন।

এদিকে নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্তে ক্ষোভ প্রকাশ করে নাভানলি জনগণকে নির্বাচন বয়কট করার আহ্বান জানিয়েছেন। একইসঙ্গে মানুষদের ভোটপ্রদান থেকে বিরত রাখতে, তাদের প্রভাবিত করার জন্য দলের কর্মীদের নির্দেশ দেন তিনি।

উল্লেখ্য, একটি কাঠ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান থেকে নাভানলি অর্থ আত্মসাত করেছে, এমন অভিযোগ এনে গত ফেব্রুয়ারিতে তাকে পাঁচ বছরের কারাদন্ড দিয়েছে দেশটির একটি আদালত। রায়ের পরপরই নাভানলি অভিযোগ করেন, তিনি নির্দোষ। রাজনীতি থেকে বিরত রাখতেই তাঁকে মিথ্যা মামলায় সাজা দেওয়া হয়েছে।

নাভানলি একটি দুর্নীতি বিরোধী সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা। এছাড়া তিনি আইন পেশার সঙ্গে জড়িত। গত বছরের শুরুর দিকেই তিনি পুতিনের কট্টোর সমালোচক হয়ে উঠেন। একইসঙ্গে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভ্লামিদির পুতিনের প্রতিদ্বন্দ্বীতা করার ঘোষণা দেন। এরপরই  তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলা দায়ের করা হয়। 

আগামী বছরের মার্চের দিকে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে। ওই নির্বাচনেও রাশিয়ার বর্তমান প্রেসিডেন্ট ভ্লামিদির পুতিন নির্বাচনে লড়ার ঘোষণা দিয়েছেন। ছয় বছরের জন্য দেশটির প্রধান হওয়ার দৌড়ে পুতিনের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বিবেচনা করা হতো ৪১ বছর বয়সী নাভানলিকে । তাই তাঁর অনুপস্থিতিতে আবারও হয়তো পুতিন-ই হয়তো ক্ষমতায় বসতে যাচ্ছে, এমন ইঙ্গিত গণমাধ্যমের।

 সুত্র: জিনহুয়া

এমজে/ এআর

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি