ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ১৩ মে ২০২১, || বৈশাখ ২৯ ১৪২৮

রাজস্ব আদায়ে ৮৫ হাজার কোটি টাকা ঘাটতি

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ২৩:২৫, ৭ জুলাই ২০২০

জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)’র সদ্য সমাপ্ত (২০১৯-২০) অর্থবছরে রেকর্ড পরিমাণ রাজস্ব ঘাটতি হয়েছে। বিশাল এ ঘাটতির পাশাপাশি প্রবৃদ্ধিও ঋণাত্মক। অর্থাৎ ২০১৮-১৯ বছরের সমপরিমাণ রাজস্বও ২০১৯-২০ অর্থবছরে আহরণ করতে পারেনি রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সাময়িক হিসাব অনুযায়ী, গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে মোট ঘাটতি ৮৫ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। গেল অর্থবছরে এনবিআরের সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রা ৩ লাখ ৫০০ কোটি টাকার বিপরীতে আদায় হয়েছে ২ লাখ ১৫ হাজার কোটি টাকা। যা গত অর্থবছরের তুলনায় ৮ হাজার ৪৯২ কোটি টাকা কম। গত অর্থবছরে রাজস্ব আদায় হয়েছিল ২ লাখ ২৩ হাজার ৮৯২ কোটি টাকা। হিসেব অনুযায়ী প্রবৃদ্ধি কমেছে ৩ দশমিক ৭৯ শতাংশ।

তথ্য মতে, রাজস্ব আয়ের তিন খাতের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আদায় হয়েছে ভ্যাট থেকে। গত অর্থবছরে মোট ভ্যাট আদায় হয়েছে ৮১ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। এরপরে বেশি আদায় হয়েছে আয়কর থেকে। আয়কর থেকে মোট আদায় হয়েছে ৭৩ হাজার ২০০ কোটি টাকা। এছাড়া কাস্টম থেকে আদায় হয়েছে ৬০ হাজার ৬০০ কোটি টাকা।

যেখানে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ভ্যাট আদায় হয়েছিল ৮৭ হাজার ৬১০ কোটি টাকা। আয়কর আদায় হয়েছিল ৭২ হাজার ৯০০ কোটি টাকা। আর শুল্ক আদায় হয়েছিল ৬৩ হাজার ৩৮২ কোটি টাকা।

এনবিআরের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, এটি সাময়িক হিসাব। এ সপ্তাহের মধ্যে চূড়ান্ত পরিসংখ্যান প্রকাশ করা হবে। এতে খাতভিত্তিক বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরা হবে।

এনবিআর সূত্র জানায়, দেশ স্বাধীন হওয়ার পর একবার ১৯৭৫-৭৬ অর্থবছরে রাজস্ব আয়ে নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি হয়েছিল। ওই সময় দেশে রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে রাজস্ব আয়ে মারাত্মক প্রভাব পড়ে। এর পরবর্তী বছরগুলোতে রাজস্ব আয় বাড়লেও নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি হয়নি।

মূলত করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে অর্থনীতি বিপর্যস্ত হওয়ায় রাজস্ব আহরণে ধস নেমেছে। সাধারণত অর্থবছরের শেষ সময়ে বিশেষ করে মে ও জুনে রাজস্ব আদায় বাড়ে। 

আরকে//


Ekushey Television Ltd.

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি