ঢাকা, শুক্রবার   ২৩ আগস্ট ২০১৯, || ভাদ্র ৮ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

সর্বোচ্চ ৫ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্রে কর ৫ শতাংশ

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৫:৩৯ ২৯ জুলাই ২০১৯ | আপডেট: ১৫:৪৫ ২৯ জুলাই ২০১৯

অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারিদের সঞ্চয়পত্রের মুনফা থেকে উৎসে কর কাটার ক্ষেত্রে কিছুটা ছাড় দিয়েছে সরকার। পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত পেনশনার সঞ্চয়পত্রের মুনাফা থেকে আগের মতোই ৫ শতাংশ হারে উৎসে কর কাটা হবে।

আজ সোমবার সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল । অর্থমন্ত্রী জানান, শিগগিরই এ ব্যাপারে এনবিআর প্রজ্ঞাপন জারি করবে। চলতি অর্থবছরের বাজেট ঘোষণার সময় মন্ত্রী সব ধরনের সঞ্চয়পত্রের উৎসে কর ১০ শতাংশ কাটা হবে বলে জানিয়েছিলেন। কিন্তু এটি কার্যকরের ২৯ দিনের মাথায় সংশোধন করা হলো। 

নতুন বাজেটে সব ধরনের সঞ্চয়পত্রের মুনাফা থেকে ১০ শতাংশ হারে উৎসে কর কেটে রাখার ঘোষণা দেয়া হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশ ব্যাংক বৃহস্পতিবার সব ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের এ সংক্রান্ত যে সার্কুলার পাঠিয়েছে, তাতে ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত পেনশনার সঞ্চয়পত্র কিনলে সেই মুনাফা থেকে ৫ শতাংশ হারে উৎসে কর কাটার নির্দেশ দিয়েছে। আর ৫ লাখ টাকার বেশি হলে ১০ শতাংশ হারেই কর কাটতে বলা হয়েছে।

সব ধরনের সঞ্চয়পত্রে সর্বোচ্চ ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগ করলে উৎসে কর ৫ শতাংশ কাটা হবে। ৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগ করলে উৎসে কর কাটা হবে ১০ শতাংশ। চলতি বছরের ১ জুলাই থেকেই এই হার কার্যকর হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমনন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। 

অর্থমন্ত্রী জানান, গবীর বিনিয়োগকারীদের সুবিধার কথা বিবেচনা করে উৎসে কর কমিয়ে আনা হয়েছে। তিনি বলেন, পারিবারিক, পেনশনারসহ সব ধরণের বিনিয়োগে সঞ্চয়পত্রের ট্যাক্স হবে ৫ শতাংশ। অর্থাৎ যারা ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত সঞ্চয় রাখবেন তাদের ৫ শতাংশ করে ট্যাক্স দিতে হবে। তবে ৫ লাখের বেশি যাদের সঞ্চয়পত্র থাকবে তারা ১০ শতাংশ হারে কর দেবেন।

প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্সে ২ শতাংশ প্রণোদনা দেয়া হবে জানিয়ে মুস্তফা কামাল বলেন, প্রবাসীদের পাঠানো অর্থের ওপর ২ শতাংশ প্রণোদনা দেয়ার সিস্টেট ডেপেলপের ক্ষেত্রে সরকার এখনও প্রস্তুতি শেষ করতে পারেনি। তবে ১ জুলাই থেকে প্রবাসীরা যারা টাকা পাঠাচ্ছেন তাদের ২ শতাংশ হারে অর্থ সহায়তা দিয়ে দেয়া হবে।

টিআর/