ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৯ অক্টোবর ২০২১, || কার্তিক ৩ ১৪২৮

পাবনায় পৃথক ঘটনায় হতাহত ৬

পাবনা প্রতিনিধি

প্রকাশিত : ১৭:০৩, ১৬ জানুয়ারি ২০২১

পাবনার সাঁথিয়া ও ফরিদপুরে পৃথক ঘটনায় তিনজন নিহত হয়েছেন। সাঁথিয়া উপজেলায় জমি নিয়ে বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় দুইজন এবং ফরিদপুরে এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন ৩ জন।

আজ শনিবার দুপুরে সাঁথিয়া উপজেলার ধোপাদহ ইউনিয়নের নাড়িয়াগদাই গ্রামে ও ফরিদপুরের হাদল ইউনিয়নের মঙ্গলগ্রামে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- সাঁথিয়া উপজেলার নাড়িয়াগদাই গ্রামের সাখাওয়াত হোসেনের ছেলে মুন্নাফ হোসেন (৪০) ও বড়পাইকসা গ্রামের শামসুল ইসলামের ছেলে নাসির হোসেন (৩৫)। তারা সম্পর্কে মামাতো-ফুফাতো ভাই। এবং ফরিদপুরে নিহত ব্যক্তির নাম আসলাম হোসেন (৪৫)। 

এছাড়া আহত ৩ জনের মধ্যে রওশন আলী ও হারুন হোসেন নামের দুইজনকে গুরুতর অবস্থায় পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, কিছুদিন আগে মুন্নাফ নাড়িয়াগদাই বাজারে সাচ্চু প্রামাণিকের কাছ থেকে জমি কেনেন। সেখানে বাড়ির কাজ শুরু করলে জমির সীমানা নিয়ে সাচ্চু প্রামাণিকের ভাই বাচ্চু প্রামাণিকের সঙ্গে বিরোধ দেখা দেয়। স্থানীয় সালিশে বিষয়টি নিষ্পত্তি করে ফের বাড়ির কাজ শুরু করেন মুন্নাফ। 

শনিবার সকালে শ্রমিকদের নিয়ে বাড়ির কাজ করছিলেন তিনি। তবে বেলা ১১টার দিকে বাচ্চুর নেতৃত্বে একদল যুবক মুন্নাফসহ কাজ করতে আসা শ্রমিকদের ধারালো অস্ত্র ও মাটি কাটার কোদাল দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে চলে যায়। এ সময় মুন্নাফের ভাই নাসির ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান। আর গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান মুন্নাফ। জখম হওয়া নির্মাণ শ্রমিক রওশন, হারুনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় পাবনা জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে সাঁথিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসাদুজ্জামান জানান, ‘ঘটনার পর এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্তদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মরদেহ উদ্ধার করেছে, আহতদের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

তিনি আরও জানান, ‘ঘটনাস্থল থেকে হত্যার কাজে ব্যবহৃত মাটিকাটা কোদাল ও একটি মোটরসাইকেল জব্দ করেছে পুলিশ। 

অপরদিকে পাবনার ফরিদপুরে শনিবার দুপুরে হাদল ইউনিয়নের মঙ্গলগ্রামের বিল থেকে আসলাম হোসেনের ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তিনি সাঁথিয়া উপজেলার তেরোখাদা গ্রামের টুন্ডু মিয়ার ছেলে।’

চাটমোহর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার সজীব শাহিন এ তথ্য নিশ্চিত করে  জানান, ‘কে বা কারা তাকে হত্যা করেছে এই মুহূর্তে বিস্তারিত কিছু বলা সম্ভব হচ্ছে না। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিহতের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতের শরীরে অসংখ্য ধারালো অস্ত্রাঘাতের চিহ্ন রয়েছে।’

শুক্রবার রাতের কোনও এক সময় তাকে হত্যা করা হয়েছে। নিহত আলমাস নিষিদ্ধঘোষিত সর্বহারা বাহিনীর সদস্য বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা তাকে হত্যা করে থাকতে পারে বলে ধারণা পুলিশ ও স্থানীয়দের। 

এআই/এনএস/


Ekushey Television Ltd.

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি