ঢাকা, সোমবার   ১০ মে ২০২১, || বৈশাখ ২৬ ১৪২৮

সারাদেশে করোনার টিকাদান চলছে জেএমআইয়ের সিরিঞ্জে

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৮:৩৪, ১ মার্চ ২০২১ | আপডেট: ২১:২৮, ৩ মার্চ ২০২১

সারাদেশে চলমান কোভিড-১৯ প্রতিরোধক টিকাদান কর্মসূচিতে ব্যবহার হচ্ছে দেশিয় প্রতিষ্ঠান জেএমআই সিরিঞ্জেস অ্যান্ড মেডিক্যাল ডিভাইসেস লিমিটেডের সিরিঞ্জ। ভ্যাকসিন প্রয়োগের জন্য প্রতিষ্ঠানটি থেকে তিন কোটি ৩০ লাখ পিস অটো ডিজেবল (এডি) সিরিঞ্জ কিনেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। সিরিঞ্জ সরবরাহের পাশাপাশি ‘ব্যবহার পরবর্তী ব্যবস্থাপনা’ও নিশ্চিত করেছে জেএমআই। ফলে, টিকাদানের সময় কোনো ধরণের রোগ জীবাণু পরিবেশে ছড়িয়ে পড়ার সুযোগ নেই।

বুধবার, রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে সস্ত্রীক করোনা ভাইরাস প্রতিরোধী টিকা গ্রহণ করেন জেএমআই গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুর রাজ্জাক। এসময় তিনি কথা বলেন গণমাধ্যমকর্মীদের সাথে। তিনি বলেন, “বিগত বছরগুলোতে নানা প্রতিকূলতার মধ্যেও আমাদের কোম্পানির উত্পাদিত পণ্যের মান আন্তর্জাতিক পর্যায়ে প্রশংসিত হয়েছে। করোনার এই দুঃসময়ে একদিনের জন্যও আমরা কারখানা বন্ধ করিনি। আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য সংস্থার নিয়ম মেনে শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করে উত্পাদন অব্যাহত রাখা হয়েছে। গুণগতমানের পণ্য উত্পাদনের স্বীকৃতি আমরা এরইমধ্যে পাচ্ছি”।
 
তিনি আরও বলেন, “পোলিওমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার পেছনে জেএমআই এর অবদান রয়েছে। ২০০৭ সাল থেকে সরকারের টিকাদান কর্মসূচিতে আমরা সিরিঞ্জ সরবরাহ করে আসছি। যার ধারাবাহিকতায় সরকার করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকাদান কর্মসূচিতে আমাদের ওপর আস্থা রেখেছে। এরইমধ্যে সরকার আমাদেরকে ৩ কোটি ৩০ লাখ সিরিঞ্জ সরবরাহের আদেশ দিয়েছে। এজন্য আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। সামনের দিনেও সরকারের যেকোন প্রয়োজনে জেএমআই গ্রুপ পাশে থাকবে”।

উল্লেখ্য, ২০১২ সাল থেকে জেএমআই সিরিঞ্জেস অ্যান্ড মেডিক্যাল ডিভাইসেসের রয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সনদ। যার মাধ্যমে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পণ্য রপ্তানি করতে পারে প্রতিষ্ঠানটি। আর এ বছরই করোনার টিকা কার্যক্রমে ব্যবহৃত এডি সিরিঞ্জ, ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বাজারজাতের অনুমতির পূর্বশর্ত (সিই০০৬৮ সনদ) নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটি দিনে ১২ লাখ সিরিঞ্জ বানাতে পারে। সে হিসাবে মাসে তিন কোটি ৬০ লাখ পিস।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশ করোনার টিকা কার্যক্রম হাতে নেয়ায়, জেএমআই নানা দেশ থেকে সিরিঞ্জ কেনার আগ্রহপত্র পাচ্ছে। এরইমধ্যে ইন্দোনেশিয়াতে দেড় কোটি সিরিঞ্জ রপ্তানি করেছে প্রতিষ্ঠানটি। করোনার টিকা দেয়ার জন্য ব্যবহৃত অটো ডিজেবল সিরিঞ্জ এক ধরনের বিশেষায়িত পণ্য, যা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পিকিউএস সনদ নিয়ে বিশ্বের অল্প সংখ্যক কোম্পানি উত্পাদন করে থাকে। করোনা মহামারীর কারণে বিশ্বব্যাপী এ পণ্যটির সরবরাহ সংকট চলছে। দেশের একমাত্র এডি সিরিঞ্জ তৈরিকারক প্রতিষ্ঠান জেএমআই সিরিঞ্জেস অ্যান্ড মেডিক্যাল ডিভাইসেস লিমিটেড।

আরকে//


Ekushey Television Ltd.

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি