ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৯ অক্টোবর ২০২১, || কার্তিক ৪ ১৪২৮

রাজাকারের সন্তানকে রেজিস্টার পদে দায়িত্ব দেওয়ায় ছাত্রলীগের নিন্দা

হাবিপ্রবি প্রতিনিধি

প্রকাশিত : ২১:২৬, ১৩ অক্টোবর ২০২০

বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রফেসর ডা. মো. ফজলুল হককে রেজিস্টার পদ থেকে সরিয়ে রাজাকারের সন্তান প্রফেসর মো. রাজিব হাসানকে দায়িত্ব প্রদান করায় হাবিপ্রবি প্রশাসনের প্রতি নিন্দা জানিয়ে মানববন্ধন করেছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা।

মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান গেটের সামনে উক্ত মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। এসময় মুক্তিযোদ্ধা প্রফেসর ডা. ফজলুল হককে রেজিস্টার পদে পুনর্বহালের দাবি জানানো হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কখনো অন্যায়ের সাথে আপোষ করেনি ভবিষ্যতে ও  করবে না । ১৯৪৮ সালের চৌঠা জানুয়ারি ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর পর  মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে যত আন্দোলন হয়েছে তার  সবগুলোতেই গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার পদ থেকে মুক্তিযোদ্ধা প্রফেসর ডা. মো. ফজলুল হককে সরিয়ে সেখানে রাজাকারের সন্তানকে বসিয়ে উপাচার্য মহোদয় যে মানসিকতার পরিচয় দিয়েছেন তার তীব্র নিন্দা ও  প্রতিবাদ জানাচ্ছি। 

বক্তারা আরও বলেন, ২০১৭ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক সুপারিশপ্রাপ্ত হয়ে উপাচার্য প্রফেসর ড. মু. আবুল কাসেম বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদানের পর থেকেই হাবিপ্রবি শাখা ছাত্রলীগ ও আওয়ামী সংগঠন গণতান্ত্রিক শিক্ষক পরিষদ তাকে সর্বাত্মকভাবে সহযোগিতা করেছে। কিন্তু উপাচার্য মহোদয় তার নৈতিক মূল্যবোধের অবক্ষয় ঘটিয়ে ১৯৭১ সালের কুখ্যাত রাজাকারের সন্তান প্রফেসর মোহামদ রাজিব হাসানকে রেজিস্টারের পদে বসিয়ে যে কাজটি করেছেন আমরা ছাত্রলীগের একজন কর্মী হিসেবে তা কখনোই মেনে নিতে পারি না। আগামী বৃহস্পতিবারের মধ্যে তিনি যদি রাজাকারের সন্তানকে রেজিস্ট্রার দায়িত্ব থেকে প্রত্যাহার না করেন তাহলে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ হাবিপ্রবি শাখা কঠোর থেকে কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবে।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন শেখ রাসেল হল শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোর্শেদুল আলম রনি, শেখ রাসেল সম্প্রসারণ হল শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ধনেশ চন্দ্র পাল, কার্যকরী সদস্য মো. রিয়াদ খান,ইলিয়াস দেওয়ান , সাজেদুর রহমান সৈকত, শফিকুল ইসলাম সজলসহ আরও অনেকে।
কেআই//


Ekushey Television Ltd.

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি