ঢাকা, বুধবার   ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, || আশ্বিন ৬ ১৪২৮

কিংবদন্তি সাংবাদিক সায়মন ড্রিংয়ের কর্মময় জীবন

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৫:০৬, ২৪ জুলাই ২০২১ | আপডেট: ১৫:৩৭, ২৪ জুলাই ২০২১

সায়মন ড্রিং। এক কথায় বলা যায় তিনি ছিলেন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন সাংবাদিক। এর বাইরে যদি এক কথায় বলা যায় তিনি ছিলেন অন্যরকম একজন ব্যতিক্রম কিংবদন্তি সাংবাদিক। তিনি ছিলেন একাধারে সংবাদদাতা, টেলিভিশন উপস্থাপক, প্রামাণ্যচিত্র নির্মাতা ও প্রযোজক। শুরু করেছিলেন পত্রিকার প্রুফ রিডিংয়ের কাজ দিয়ে। তারপর শুধুই ইতিহাস। প্রচলিত সাংবাদিকতার বাইরে তিনি চ্যালেঞ্জিং বিষয়ে কাজ করতে ভালোবাসতেন। একজন প্রতিষ্ঠিত আন্তর্জাতিক সাংবাদিক হিসেবে সায়মনের সাফল্য আর অর্জনের কথা সবাই জানে। তার অকপট প্রকাশ, যে কোনো মূল্যে সত্য ঘটনা তুলে আনতে চেষ্টা, সেজন্য যেখানে দরকার সেখানেই যাওয়া এবং শেষ পর্যন্ত লক্ষ্যে পৌঁছাতে যা কিছু দরকার, তা তিনি করতেন একনিষ্ঠভাবে।

সম্প্রতি তিনি রোমানিয়ার একটি হাসপাতালে অস্ত্রপাচারের সময় মৃত্যুবরণ করেন। প্রখ্যাত এই সাংবাদিক মৃত্যুর আগে রেখে গেছেন এক বর্ণাঢ্য জীবন। সংক্ষেপে তার একটি চিত্র তুলে ধরা হলো- 

শৈশব ও শিক্ষাজীবন
সাইমন ড্রিং ইংল্যান্ডের নরফোকের ফাকেনহাম নামক এক ছোট্ট শহরে ১৯৪৫ সালের ১১ জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। শৈশবকালে আওজ নদীতে উলঙ্গ অবস্থায় সাঁতার কাটার অভিযোগে তাকে বোর্ডিং স্কুল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছিল। এরপর তিনি কিংস্ লিন টেকনিক্যাল কলেজে অধ্যয়ন করেন। ১৬ বৎসর বয়সে তিনি গৃহত্যাগ করেন। ১৯৬২ সালে বহিঃবিশ্ব ভ্রমণের অংশ হিসেবে ভারত ভ্রমণ করেন।

ব্যক্তিগত জীবন
এক সময় সায়মন অস্ট্রেলিয়ার ব্রিসবেনে তার স্ত্রী ফাইওনা ম্যাকফেরসন সাথে বসবাস করতেন। ২০২০ সালের শুরু থেকে রোমানিয়ায় থাকতে শুরু করেন। তবে পুরোপুরি অবসর জীবন কাটাতে ফ্রান্সে চলে যাওয়ার ইচ্ছে ছিল সায়মনের। ভাবনায় ছিল জীবনের বাকি সময়টা পরিবারের জন্য দিবেন। সেই সঙ্গে লিখবেন নিজের আত্মজীবনী। একজন বিদেশি সংবাদদাতা হিসেবে বহু বছরের কাজের অভিজ্ঞতাগুলো নিয়ে ধারাবাহিকভাবে লিখতে শুরু করেছিল সায়মন, ইচ্ছে ছিল, ভবিষ্যতে কোনো এক দিন দক্ষিণ এশিয়ায় সেগুলো প্রকাশ করা হবে।

সায়মনের প্রিয় বাংলাদেশ এবার স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তির গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক উদযাপন করছে। সেজন্য এ বছরের শেষ দিকে সর্বশেষ একটি কাজে অংশ নেওয়ার পরিকল্পনা ছিল তার।

তার স্ত্রী আইনজীবী এবং রোমানিয়াভিত্তিক ব্রিটিশ চিলড্রেনস্ চ্যারিটি’র নির্বাহী পরিচালক। তাদের সংসারে ২০১০ সালের ২৩ ডিসেম্বর যমজ কন্যা-আভা রোজ এবং ইন্ডিয়া রোজ জন্মগ্রহণ করে। ড্রিংয়ের পূর্বেকার সংসারে তানিয়া নাম্নী নামের আরেক কন্যা রয়েছে। সে নিকোলাস এবং জেমস নামের দুটি পুত্র সন্তান নিয়ে স্পেনে বসবাস করছে।

সাংবাদিকতা
সাংবাদিকতার শুরুর দিকে ১৯৬৩ সালে থাইল্যান্ডের ব্যাংকক ওয়ার্ল্ড সংবাদপত্রে ‘প্রুফ রিডার’ (সম্পাদনা সহকারী) হিসেবে কাজ শুরু করেন। তারপর ১৯৬৪ সালে নিউইয়র্ক থেকে প্রকাশিত নিউইয়র্ক টাইমসের স্ট্রিংগার হিসেবে কাজ করেন। একই বছর ভিয়েতনাম ভ্রমণ করেন। সেখানে তিনি বার্তা সংস্থা রয়টার্সের যুদ্ধবিষয়ক সংবাদ প্রতিনিধি হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন। এর মাধ্যমেই তিনি রয়টার্সের সর্বকনিষ্ঠ বৈদেশিক সংবাদদাতা হিসেবে নিজেকে ইতিহাসের পর্দায় ঠাঁই করে নেন।

১৯৭০ এবং ১৯৮০-এর পুরো দশক জুড়ে তিনি যুক্তরাজ্যের ডেইলী টেলিগ্রাফ সংবাদপত্র এবং বিবিসি টেলিভিশন নিউজের বৈদেশিক সংবাদদাতা হিসেবে সারা পৃথিবীতে কর্মরত ছিলেন। ঐ সময়ে তিনি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলো থেকে প্রতিবেদন পাঠাতেন। ভারত, পাকিস্তান এবং বাংলাদেশ, আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্য, ল্যাটিন আমেরিকা এবং ইউরোপের অস্থিতিশীল ঘটনাপ্রবাহ নিয়মিত তুলে ধরতেন সংবাদ মাধ্যমগুলোয়। পেশাগত জীবনে ২২টি যুদ্ধ ও অভ্যুত্থান কাভার করেছেন। বিবিসি টেলিভিশন ও রেডিও’র সংবাদ এবং সাম্প্রতিক ঘটনাবলী নিয়ে কাজ করেছেন প্রায় ২০ বছর। এছাড়া চলচ্চিত্র, আন্তর্জাতিক ঘটনা এবং সঙ্গীত বিষয়ে তার রয়েছে ব্যাপক ও বিচিত্র অভিজ্ঞতা। ইরানের শাহবিরোধী গণ-অভ্যুত্থান নিয়ে প্রতিবেদন তৈরী করে সায়মন ড্রিং নন্দিত হয়েছিলেন এবং অর্জন করেছিলেন অনেক পুরস্কার।

সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে যুদ্ধক্ষেত্রে তিনি দু’বার আহতও হয়েছিলেন। প্রথমবার ভিয়েতনামে এবং দ্বিতীয়বার সাইপ্রাসে তুর্কিদের আগ্রাসনে। বিবিসি রেডিও এবং টেলিভিশনে কাজ করার পাশাপাশি পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের সংবাদপত্র ও সাময়িকীতে লিখেছেন তিনি।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে সাইমন ড্রিং
ভিয়েতনাম যুদ্ধ এবং বাংলাদেশের গণহত্যার ওপর প্রস্তুতকৃত প্রতিবেদন তাকে বিশ্বজোড়া খ্যাতি ও সুনাম এনে দেয়। সায়মন ড্রিং বাংলাদেশের গণহত্যার প্রত্যক্ষদর্শী প্রথম বিদেশি সাংবাদিক যিনি নিজের জীবন বিপন্ন করে সরেজমিন প্রতিবেদন তৈরি করে সারা বিশ্বকে জানিয়ে দেন পাকিস্তানি বাহিনীর লোমহর্ষক নির্যাতন ও গণহত্যার কথা।

উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় ভরা ১৯৭১ সালের ২৫ শে মার্চের কালরাতে সাইমন ড্রিং তৎকালীন হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে লুকিয়ে ছিলেন। তৎকালীন পাকিস্তানে সামরিক আইনের তোয়াক্কা না করে ২৭ মার্চ তিনি মুক্তিযুদ্ধের সংবাদ সংগ্রহ করে ডেইলি টেলিগ্রাফ পত্রিকায় প্রতিবেদন আকারে প্রেরণ করেন যা ট্যাংকস ক্র্যাশ রিভোল্ট ইন পাকিস্তান শিরোনামে ৩০ মার্চ প্রকাশিত হয়। বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে জনমত সৃষ্টিতে তার এ প্রতিবেদনটি বিশ্বব্যাপী ব্যাপকভাবে সাড়া জাগিয়েছিল। 

ওই প্রতিবেদনে তিনি উল্লেখ করেছিলেন যে, ‘আল্লাহর নামে আর অখণ্ড পাকিস্তান রক্ষার অজুহাতে ঢাকা আজ ধ্বংসপ্রাপ্ত ও সন্ত্রস্ত এক নগর। পাকিস্তানি সৈন্যদের ঠান্ডা মাথায় টানা ২৪ ঘণ্টা গোলাবর্ষণের পর এ নগরের...।’

১৯৭১ সালে তৎকালীন পাকিস্তান সরকার তাকে জোরপূর্বক দেশ থেকে বের করে দেয়। ইংল্যান্ডে ফিরে গিয়ে পুনরায় নভেম্বর, ১৯৭১ সালে কলকাতায় আসেন তিনি। সেখান থেকে তিনি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের যাবতীয় খবরাখবর নিরপেক্ষভাবে টেলিগ্রাফ-এ প্রেরণ করতেন। ১৬ ডিসেম্বর তারিখে বিজয়ের দিনে যৌথবাহিনীর সাথে তিনিও ঢাকায় এসেছিলেন।

দাতব্য তহবিল সৃষ্টি
১৯৮৬ সালে লন্ডনে ফিরে তিনি আফ্রিকা মহাদেশের দুর্ভিক্ষপীড়িত অঞ্চলের জনগণকে সহায়তার জন্য স্পোর্ট এইড নামীয় দাতব্য তহবিলের ধারণা তুলে ধরেন। তহবিল সৃষ্টিতে তাকে সর্বোতভাবে সহযোগিতা করেন আইরিশ শিল্পী বব গেল্ডোফ। অর্থ তহবিল সৃষ্টির বিষয়টি ছিল ইতিহাসে সবচেয়ে বৃহৎ ঘটনা যাতে অধিক জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ ছিল। বিশ্বব্যাপী ১২০টি দেশের প্রায় ২০ মিলিয়ন মানুষ এ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে। ৩৭ মিলিয়ন ডলার এই তহবিলে জমা হয়। 

একই সালে দ্য রেস এসেইন্ট টাইম শিরোনামে অন্য আরেকটি দাতব্য তহবিল গড়েন সায়মন ড্রিং। এতে ১৬০টি দেশের প্রায় ৫৫ মিলিয়ন মানুষ অংশগ্রহণ করেছিল।

প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণ
বিবিসিতে কর্মরত অবস্থায় তিনি অনেকগুলো প্রামাণ্যচিত্র প্রযোজনা ও উপস্থাপনা করেন। আশির দশকের শুরুর দিকে তিনি বিবিসি ছেড়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসে ফিল্ম কোম্পানী খোলেন। সেখান থেকে বিবিসি ও পাবলিক ব্রডকাস্ট সার্ভিসের জন্য নির্মাণ করেন বিভিন্ন প্রামাণ্যচিত্র। তাছাড়া - সোভিয়েত ইউনিয়ন, চীন ও লাতিন আমেরিকার ওপর নির্মাণ করেন বিভিন্ন অনুষ্ঠান। এসব প্রামাণ্যচিত্র বা অনুষ্ঠানের উপস্থাপক, পরিচালক ও প্রযোজন ছিলেন তিনি নিজেই।

সাইমন ড্রিং তার ১৯৬২ সালের বৈদেশিক ভ্রমণকে কেন্দ্র করে বিবিসি রেডিও ফোরের জন্য ‘অন দ্য রোড এগেইন’ নামে একটি প্রামাণ্য চিত্র তৈরি করেন ১৯৯২ সালে। পরবর্তীকালে ১৯৯৪ সালে ঐ ভ্রমণ নিয়েই একই নামে আরেকটি আট পর্বের প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণ করেন। প্রামাণ্য চিত্রটি বিবিসি টেলিভিশন এবং ডিসকভারী চ্যানেলে প্রচার করা হয়েছিল। এছাড়াও, ১৯৯৫ সালে অন দ্য রোড এগেইন: থার্টি ইয়ার্স অন দ্য ট্র্যাভেলার্স ট্রেইল টু ইন্ডিয়া নামে একটি ভ্রমণ কাহিনীবিষয়ক বই পাঠকদেরকে উপহার দেন। বিবিসি রেডিও ফোরের জন্য নির্মাণ করেন ৪০ মিনিটের রিটার্ন দ্য রোলিং থান্ডার, যা ছিল তার ২০ বছর পর ভিয়েতনামে ফিরে যাওয়ার স্মৃতি নিয়ে অনুষ্ঠান।

হাইতিতে আমেরিকার আগ্রাসন নিয়ে ভুডু ডানিসংসহ আরও অনেক টেলিভিশন অনুষ্ঠান তৈরি করেন। তাছাড়া, সাক্ষাৎকার নিয়েছেন পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধান ও সরকারপ্রধানদের।

একুশে টেলিভিশন
সাইমন ড্রিং বাংলাদেশের প্রথম বেসরকারী পর্যায়ের টেরেস্ট্রিয়াল টেলিভিশন চ্যানেল একুশে টেলিভিশনের সাথে যুক্ত হন। ১৯৯৭ সালে বিবিসি ছেড়ে তিনি একুশে’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে গুরুদায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশের বেসরকারী টেলিভিশনের আধুনিকতার অন্যতম রূপকার। তার হাত ধরেই একদল তরুণ সাংবাদিক দল বাংলাদেশ তথা এ উপমহাদেশে টেলিভিশন সাংবাদিকতার নতুন দিগন্ত উন্মোচন করেন। ২০০২ সালে একুশে টেলিভিশন তৎকালীন সরকারের রোষানলে পড়ে সম্প্রচার কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়। অতঃপর, ২০০২ সালের অক্টোবর মাসে সরকার সায়মন ড্রিংয়ের ভিসা এবং ওয়ার্ক পারমিট বাতিল করে তাকে বাংলাদেশ ত্যাগে বাধ্য করেন। 

পুরস্কার অর্জন
১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ বাংলাদেশে পাকিস্তানি সেনাদের নির্যাতনের ওপর প্রতিবেদন তৈরী করে ২০১২ সালে অর্জন করেন ইন্টারন্যাশনাল রিপোর্টার অব দ্য ইয়ার; ইরিত্রিয়া যুদ্ধের ওপর ভ্যালিয়ান্ট ফর ট্রুথ; কুর্দিদের বিরুদ্ধে তুরস্কের যুদ্ধের প্রতিবেদনের জন্য সনি এবং হাইতিতে আমেরিকান আগ্রাসনের ওপর প্রতিবেদন তৈরী করে অর্জন করেন নিউইয়র্ক ফেস্টিভ্যাল গ্রান্ড প্রাইজ। মহান মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ বাংলাদেশ সরকার সাইমন ড্রিংকে ২০১২ সালে  ‘মুক্তিযুদ্ধ মৈত্রী সম্মাননা’ দেয়। এছাড়াও আরও অসংখ্য পুরস্কারে সম্মানিত হন তিনি।

মৃত্যু
সাইমন ড্রিংয়ের স্ত্রী ফিয়োনার কর্মস্থল রোমানিয়া। সাইমন সেখানে নিয়মিত যেতেন এবং গত ১৬ জুলাই ২০২১, শুক্রবার ৭৬ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন।
এসএ/
 


Ekushey Television Ltd.

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি