ঢাকা, বুধবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৮ ৯:৫৯:৪৫

ভুয়া সংবাদের ওয়েবসাইট চিনবেন যেভাবে

ভুয়া সংবাদের ওয়েবসাইট চিনবেন যেভাবে

নির্বাচনকে সামনে রেখে ফেক নিউজ বা ভুয়া সংবাদের নকল ওয়েবসাইট তৈরির অভিযোগ পাওয়া গেছে। খ্যাতিমান সংবাদ প্রতিষ্ঠানের আদলে এসব নকল ওয়েবসাইট তৈরি করা হচ্ছে। ওয়েবসাইটে প্রকাশিত সংবাদে নির্বাচনী ফায়েদা লুটার চেষ্টা করা হচ্ছে। ভুয়া সংবাদ প্রকাশ করে সেগুলো সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে পাঠকদের।পাঠকদের উদ্দেশ্যে সেসব নকল ওয়েবসাইট চেনার কিছু উপায় তুলে ধরা হলো- ১. বিশ্বস্ত ওয়েবসাইট মনে রাখুন: ইন্টারনেট দুনিয়ায় কখনোই একনামে দুইটি ওয়েবসাইট হতে পারে না। সুতরাং আসল ওয়েবসাইটের সঙ্গে নামের বা ইউআরএল (ইউনিফর্ম রিসোর্স লোকেটর) পার্থক্য থাকবে। যেমন বিবিসি নিউজ বাংলার ওয়েবসাইট bbcbangla.com বা https://www.bbc.com/bengali হলেও, যে ভুয়া ওয়েবসাইটটি তৈরি করা হয়েছিল তার ঠিকানায় রয়েছে bbc-bangla.com। মাঝখানে একটি হাইফেন বাড়তি যোগ করা হয়েছে। প্রথম আলোর ওয়েবসাইট prothomalo.com হলেও, ভুয়া ওয়েবসাইটের ঠিকানায় একটি অতিরিক্ত a যোগ করা হয়েছে, যেমন prothomaalo.com। সুতরাং আপনার বিশ্বস্ত সংবাদ প্রতিষ্ঠানটি ইউআরএল বা নামটি মনে রাখুন অথবা ওয়েব ব্রাউজারে বুকমার্কিং করে রাখুন। ২. ডোমেইনটির দিকে তাকান: আপনার সামাজিক মাধ্যমের ফিডে যদি পরিচিত সংবাদ মাধ্যম থেকে এমন খবর দেখতে পান, যা তাদের সাথে ঠিক খাপ খায় না, অথবা বাস্তবের সঙ্গে মিল নেই, তখনি আপনার সতর্ক হওয়ার দরকার আছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য প্রযুক্তি ইন্সটিটিউটের পরিচালক ড. কাজী মুহাইমিন-আস-সাদিক বলছেন, ``যখনই কোন সন্দেহজনক সংবাদ চোখে পড়বে, তখন উচিত ডোমেইনটির দিকে তাকানো।" বিশেষ করে সামাজিক মাধ্যমে দেখা কোন খবর শেয়ার করার আগে এর উৎস প্রতিষ্ঠানটি ভালো করে দেখে নেয়া উচিত, কারণ এভাবে শেয়ারের মাধ্যমে আপনার কাছের লোকজনকেও বিভ্রান্ত করা হবে।`` তখন ডোমেইনটি পরীক্ষা করে দেখার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। ৩. ICANN - এর সাইটে গিয়ে চেক করুন: বিশ্বের ওয়েবসাইট ঠিকানার বিষয়াদি দেখভাল করে থাকে আইক্যান (ICANN)। কোন ওয়েবসাইট নিয়ে আপনার সন্দেহ হলে, আইক্যানের ডোমেইন অনুসন্ধান পাতায় গিয়ে তাদের ওয়েবসাইট ঠিকানাটি লিখে দিন বা পেস্ট করুন।https://whois.icann.org/en এই পাতায় গিয়ে দেখতে পাবেন, ওয়েবসাইটটি কবে তৈরি হয়েছে, কে তৈরি করেছে। সাধারণত এরকম ভুয়া নির্মাতাদের পরিচয় লুকানো থাকে। কিন্তু আপনার পরিচিত সংবাদ মাধ্যমটি পুরনো হলে তাদের ওয়েবসাইটও হবে পুরনো। কিন্তু ফেক ওয়েবসাইট দেখা যাবে কিছুদিন আগে তৈরি করা হয়েছে। ভুয়া ওয়েবসাইট আপনার জন্য কতটা হুমকি?মূলত ফেসবুক, ইউটিউব, ভুয়া ওয়েবসাইট ও গণমাধ্যম ব্যবহার করে এই ভুয়া খবরগুলো ছড়িয়ে থাকে। বিশ্লেষকরা ভুয়া খবর ছড়িয়ে পড়ার পেছনে তিনটি কারণকে প্রধান মনে করেন। যথা: ১. বিরোধী রাজনৈতিক দলকে কোণঠাসা করা; ২. ধর্মীয় বিদ্বেষ ছড়িয়ে দেয়া; এবং ৩. রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিল। গণমাধ্যম বিশেষজ্ঞ শবনম আযীম বলছেন, ``এটা ভয়ংকর হুমকি। তারা যখন বিশ্বাসযোগ্য কোন প্রতিষ্ঠানের নাম ব্যবহার করে, তখন তাদের একটি মিথ্যা খবর ছড়িয়ে দেয়া অনেক সহজ হয়ে যায়। এটা সংবাদ মাধ্যম এবং পাঠক, উভয়ের জন্যই ভয়ংকর হুমকি।`` সূত্র-বিবিসি আরকে//
বেরোবিতে সাংবাদিক মারধরের ঘটনায় জবিসাসের নিন্দা

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির (বেরোবিসাস) কার্যনির্বাহী সদস্য দৈনিক যুগান্তরের বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি রাব্বি হাসান সবুজের ওপর ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের হামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি (জবিসাস)। শনিবার জবিসাসের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এক যৌথ বিবৃতিতে এই নিন্দা প্রকাশ করেন। একই সঙ্গে সাংবাদিক লাঞ্চনার ঘটনায় অভিযুক্তদের অতিদ্রুত বিচারের আওতায় আনার দাবি জানান তারা। ঘটনার তীব্র সমালোচনা করে তারা বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো পরিসরে সহপাঠিকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনা আসলেই দুঃখজনক ও নিন্দনীয়। এর সাথে জড়িতদের অতিদ্রুত দৃষ্টান্তমূল কঠোর শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। উল্লেখ্য, শুক্রবার রাত ৮টার দিকে বিজয় সড়কে ওই হামলার ঘটনা ঘটে। বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সহপাঠিকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় তার ওপর ওই হামলা চালানো হয় বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে। এসএইচ/

সেরা করদাতার সম্মাননা পেলেন মনজুরুল আহসান বুলবুলসহ ৫ সাংবাদিক

বিশেষ সম্মাননা ক্যাটাগরিতে সেরা করদাতার পুরস্কার পেলেন একুশে টেলিভিশনের সিইও ও প্রধান সম্পাদক মনজুরুল আহসান বুলবুল।  এছাড়া সেরা করদাতার সম্মাননা পেয়েছেন আরও ৫ সাংবাদিক। তারা হলেন- দৈনিক প্রথম আলোর সম্পাদক ও প্রকাশক মতিউর রহমান, ইংরেজি দৈনিক দ্য ডেইলি স্টারের সম্পাদক মাহ্ফুজ আনাম, চট্টগ্রামের দৈনিক আজাদীর সম্পাদক মোহাম্মদ আবদুল মালেক, বাংলাদেশ প্রতিদিনের সম্পাদক নঈম নিজাম ও  চ্যানেল আইয়ের পরিচালক ও বার্তা প্রধান শাইখ সিরাজ। সোমবার (১২ নভেম্বর) রাতে রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে এনবিআর আয়োজিত ‘সেরা করদাতাদের ট্যাক্স কার্ড ও সম্মাননা প্রদান’ অনুষ্ঠানে সেরা করদাতাদের হাতে সম্মাননা তুলে দেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। এছাড়াও অনুষ্ঠানে কেন্দ্রীয়ভাবে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে সেরা ১৪১ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের হাতে এ পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়। ২০১৭-১৮ করবর্ষের জন্য ৬৫৬ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে শীর্ষ করদাতা হিসাবে নির্বাচিত করে এনবিআর। গত ১ নভেম্বর এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে অর্থ মন্ত্রণালয়। কেন্দ্রীয়ভাবে ৩৬ ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পান ১৪১ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান। সম্মাননা হিসেবে পাওয়া ট্যাক্স কার্ডের মেয়াদ থাকবে এক বছর। কার্ডপ্রাপ্তরা বিভিন্ন ধরনের রাষ্ট্রীয় সুবিধা পাবেন। কার্ডধারীরা রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণসহ সড়ক, বিমান ও নদীপথে ভ্রমণে অগ্রাধিকারভিত্তিতে টিকেট পাবেন। একইসঙ্গে হোটেল-রেঁস্তোরায় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সেবা পাবেন। তারা সুযোগ পাবেন বিমানবন্দরের ভিআইপি লাউঞ্জ ব্যবহারের। ট্যাক্স কার্ডধারী ব্যক্তি ও তার পরিবার চিকিৎসায় হাসপাতালে অগ্রাধিকারভিত্তিতে শয্যা সুবিধা পাবেন। এসি   

ফার্স্ট ন্যাশনাল জার্নালিজম স্টুডেন্টস ফেস্ট অনুষ্ঠিত

‘একতাই বল যোগাযোগই সম্বল, শ্লোগান নিয়ে বাংলাদেশ জার্নালিজম স্টুডেন্টস কাউন্সিল আয়োজনে ফার্স্ট  ন্যাশনাল জার্নালিজম স্টুডেন্ট ফেস্ট ২০১৮’ অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি অডিটোরিয়ামে এই অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড.আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। প্রধান আলোচক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের চেয়ারপারসন অধ্যাপক ড.কাবরী গায়েন বলেন,বর্তমান সময়ে সাংবাদিকতার গুণগত পরিবর্তন হয়েছে। তাই সকল চ্যালেঞ্জ অতিক্রম করে সামনে এগিয়ে যেতে হবে। অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা নিয়ে সব সাংবাদিকরা উদ্বিগ্ন। এতে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। কেআই/ এসএইচ/

‘সরকার সংবাদপত্রের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলের বিষয়ে আন্তরিক’

তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেছেন, বর্তমান সরকার সাংবাদিকসহ সংবাদপত্রের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলের বিষয়ে খুবই আন্তরিক। এজন্য সরকার বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট গঠন করেছে।    তিনি বলেন, বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট আইন সংশোধনের মাধ্যমে প্রেস শ্রমিক ও সংবাদপত্র কর্মচারীদের অন্তর্ভুক্ত করা অথবা নতুন আইন করে প্রেস শ্রমিক ও সংবাদপত্র কর্মচারীদের সহায়তা ভাতা প্রদানের উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।   প্রতিমন্ত্রী আজ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বাংলাদেশ সংবাদপত্র কর্মচারী ফেডারেশন ও বাংলাদেশ ফেডারেল ইউনিয়ন অব নিউজপেপার প্রেস ওয়ার্কার্স প্রতিনিধিদের সাথে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন। তথ্যসচিব আবদুল মালেক ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এসময় উপস্থিত ছিলেন। তারানা হালিম বলেন, সম্প্রচার আইন ও গণমাধ্যম কর্মী চাকরি শর্তাবলি আইন প্রণয়নের বিষয়টি বর্তমানে প্রক্রিয়াধীন। খুব শিগগিরই এটি সংসদে উপস্থাপন করা হবে। প্রতিমন্ত্রী এসময় নেতৃবৃন্দের উপস্থাপিত দাবি আন্তরিকভাবে বিবেচনা করবেন মর্মে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। বাংলাদেশ সংবাদপত্র কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি মোঃ মতিউর রহমান তালুকদার ও বাংলাদেশ ফেডারেল ইউনিয়ন অভ্ নিউজপেপার প্রেস ওয়ার্কার্স সভাপতি মোঃ আলমগীর হোসেন খান এসময় সংগঠন দু’টির পক্ষ থেকে তথ্য প্রতিমন্ত্রীর কাছে ১০দফা সংবলিত একটি স্মারকলিপি হস্তান্তর করেন। ১০ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে ৯ম ওয়েজবোর্ডের মহার্ঘ্য ভাতা বাস্তবায়ন, কর্মচারী-প্রেস শ্রমিকদের জন্য দুস্থ কল্যাণ ট্রাস্ট গঠন, অফিস ও আবাসন ব্যবস্থা, নিউজপেপার এক্ট ১৯৭৪ পুনর্বহাল, সংবাদপত্র শিল্পের নীতিমালা প্রণয়ন ও সাংবাদিক-শ্রমিক-কর্মচারীদের সমান সুবিধা দেয়া, ছাঁটাইকৃত সাংবাদিক-শ্রমিক-কর্মচারীদের বকেয়া পাওনা পরিশোধ, ছাঁটাই বন্ধ, ট্রেড ইউনিয়ন অধিকার বাস্তবায়ন ও সকল পত্রিকায় ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়ন। এসি   

নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের নতুন সভাপতি নাসিমুন সম্পাদক ঝুমা

নাসিমুন আরা হককে সভাপতি এবং পারভীন সুলতানা ঝুমাকে সাধারণ সম্পাদক করে বাংলাদেশ নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের ৩৩ সদস্যের নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। রোববার বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউটে (পিআইবি) বাংলাদেশ নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের তৃতীয় জাতীয় সম্মেলন শেষে এ কমিটি ঘোষণা করা হয়। কমিটির সহ-সভাপতি হলেন- দিল মনোয়ারা মনু, পারভীন এফ চৌধুরী এবং আশা মেহরিন আমীন। কোষাধ্যক্ষ আখতার জাহান মালিক এবং যুগ্ম সম্পাদক অদিতি রহমান, মুনিমা সুলতানা, লতিফা আনসারি রুনা। সাংগঠনিক সম্পাদক শাহনাজ সিদ্দীকি সোমা, প্রচার সম্পাদক মুশফিকা নাজনিন, আন্তর্জাতিক সম্পাদক নাদিয়া শারমিন, প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক নাজনিন নাহার, দপ্তর সম্পাদক দিলরুবা খান, প্রকাশনা সম্পাদক শরিফা বুলবুল, প্রশিক্ষণ সম্পাদক নাসরিন শওকত, সমাজকল্যাণ সম্পাদক ঝর্ণা মনি এবং ক্রীড়া সম্পাদক সেবিকা দেবনাথ। কমিটির ১৪ সদস্য হলেন- শাহনাজ শারমিন, ফারজানা রূপা, রোজিনা ইসলাম, শাকিলা জেসমিন, সাজু রহমান, মাশরেখা জাহান, শাহনাজ পলি, জান্নাতুল ফেরদৌস পান্না, জান্নাতুল বাকেয়া কেকা, জান্নাতুল ফেরদৌস এনা, ডেইজি মওদুদ, বিলকিস আখতার সুমি, ইয়াসমিন রীমা এবং লায়লী বেগম। এসএইচ/

বিএফইউজে ডিইউজের উদ্বেগ, আজ বিক্ষোভ

মন্ত্রিসভায় সম্প্রচার আইন এবং গণমাধ্যম কর্মী আইন অনুমোদন করায় গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন-বিএফইউজে ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে) একাংশের নেতারা। আইন দুটির অনেক ধারা গণতন্ত্র, গণমাধ্যম, মৌলিক অধিকার ও সংবিধানের পরিপন্থী বলে উল্লেখ করেন সাংবাদিক নেতারা।এক যুক্ত বিবৃতিতে বিএফইউজে সভাপতি রুহুল আমিন গাজী ও মহাসচিব এম আবদুল্লাহ এবং ডিইউজে সভাপতি কাদের গনি চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মো. শহিদুল ইসলাম এ আহ্বান জানান।এদিকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, সম্প্রচার আইন ও গণমাধ্যম কর্মী আইনের কালো ধারা বাতিলের দাবিতে আজ বুধবার সকাল ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এসএ/  

চুয়েট সাংবাদিক সমিতির সভাপতি তাহমিদ, সম্পাদক রাফাত হাসান

চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)-এর সাংবাদিকদের সংগঠন চুয়েট সাংবাদিক সমিতির নতুন কমিটি ঘোষিত হয়েছে। এতে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন সৈয়দ তাহমিদ হোসেন এবং সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন রাফাত হাসান দিগন্ত।   বুধবার (১০ অক্টোবর) বিশ্ববিদ্যালয়ের পশ্চিম গ্যালারিতে অনুষ্ঠিত সাংবাদিক সমিতির বার্ষিক সাধারণ সভায় ২০১৮-১৯ সালের কার্যনির্বাহী কমিটি ঘোষণা করা হয়। সাংবাদিক সমিতির সদ্যাবিদায়ী সভাপতি ইনজামাম উল হকের সভাপতিত্বে উক্ত সাধারণ সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, চুয়েটের ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম।   এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. ফারুক-উজ-জামান চৌধুরী, যন্ত্রকৌশল বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. জামাল উদ্দীন আহম্মদ, সাবেক ছাত্রকল্যাণ উপ-পরিচালক অধ্যাপক ড. জি.এম সাদিকুল ইসলাম, শেখ রাসেল হলের প্রভোস্ট ড. মোহাম্মদ কামরুল হাছান প্রমুখ।    অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এটিএম শাহজাহান, পেট্রোলিয়াম এন্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক  হুমায়ুন কবির ও মেকাট্রনিক্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রভাষক আব্দুর রহমান। প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেন, সাংবাদিকতা একটি মহৎ পেশা। সাংবাদিকতাকে সমাজের দর্পণ ও রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ বলা হয়। চুয়েট সাংবাদিক সমিতি সুনামের সাথে তাদের সেই পেশাদারিত্বের পরিচয় দিয়ে যাচ্ছে। ভবিষ্যতেও সেই ধারা অব্যাহত থাকবে বলে আমি বিশ্বাস করি। চুয়েট ভিসি আরও বলেন, বর্তমান ডিজিটালাইজেশনের যুগে অনুমান নির্ভর সংবাদ করার সুযোগ নেই। এখন সবাই অনেক বেশি সচেতন। চাইলে লুকোচুরির সুযোগ নেই। চুয়েটের চলমান অগ্রযাত্রায় সাংবাদিক সমিতির প্রশাসনের উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে কাজ করবে বলে প্রত্যাশা করি।   নবগঠিত কমিটিতে অন্যান্যদের মধ্যে মো. আলাউদ্দিন সহ-সভাপতি,রাকিবুল ইসলাম সাংগঠনিক সম্পাদক, আতাহার মাসুম অর্থ সম্পাদক, মনির হোসেন দপ্তর সম্পাদক, সাগর হোসেন প্রচার সম্পাদক এবং মোঃ কামরুজ্জামান রাহাত কার্যনির্বাহী সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন।   কেআই/এসি   

‘আবারও মন্ত্রিসভায় উঠছে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন’

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৯টি ধারা স্বাধীন সাংবাদিকতার জন্য হুমকি বলে দাবি করেছেন সম্পাদক পরিষদ। এসব ধারার বিষয়ে আলোচনার জন্য আবারও মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে উপস্থাপন করা হবে। আজ রোববার সম্পাদক পরিষদের সঙ্গে সরকারের তিন মন্ত্রী ও এক উপদেষ্টার বৈঠক শেষে তিনি এ কথা বলেন। এ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, প্রধানমন্ত্রীর তথ্যবিষয়ক উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী ও তথ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব আবুয়াল হোসেন। সম্পাদক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ডেইলি স্টারের সম্পাদক মাহফুজ আনামের নেতৃত্বে সম্পাদকদের মধ্যে প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান, যুগান্তর-এর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক সাইফুল আলম, নিউ এজ সম্পাদক নূরুল কবির, মানবজমিন সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী, নিউজ টুডে সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ, কালের কণ্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন, ইনডিপেনডেন্ট সম্পাদক এম শামসুর রহমান, বাংলাদেশ প্রতিদিন-এর সম্পাদক নঈম নিজাম, ইনকিলাবের সম্পাদক এ এম এম বাহাউদ্দীন, বণিক বার্তার সম্পাদক দেওয়ান হানিফ মাহমুদ, ঢাকা ট্রিবিউন সম্পাদক জাফর সোবহান, সমকাল-এর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মুস্তাফিজ শফিসহ আরও অনেকেই এ সময় উপস্থিত ছিলেন। আইনমন্ত্রী আনিসুল হক আরও বলেন, আইনের ৮, ২১, ২৫, ২৮, ২৯, ৩১, ৩২, ৪৩ এবং ৫৩ এ ৯টি ধারার বিষয়ে মূলত আজকের আলোচনায় উঠে এসেছে। অন্যান্য ধারার বিষয়ে কারও বক্তব্য নেই। সে ক্ষেত্রে যেহেতু আইনটি ইতোমধ্যে জাতীয় সংসদে পাস হয়ে গেছে। তবে এখনও রাষ্ট্রপতি আইনটিতে স্বাক্ষর করেননি। এরপর খবরের কাগজে এ আইনের বিষয়ে আপত্তি তুলে ধরেছে সম্পাদক পরিষদ। আজকের বৈঠকে ২১ ধারাটা যেভাবে আছে সেভাবেই থাকবে বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে। বাকি আটটি ধারার ব্যাপারে আমিসহ তথ্যমন্ত্রী এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে উপস্থাপন করবো। এ নিয়ে নতুন করে আলোচনা হতে পারে বলে জানা গেছে। তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, বাংলাদেশ ডিজিটাল সমাজে রূপান্তরিত হচ্ছে। এ ডিজিটাল জগতে ডিজিটাল অপরাধীরা উৎপাত ও বিপদ হিসেবে দেখা দিয়েছে। এ অপরাধীদের শক্ত হতে দমন করার জন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করা হয়েছে। তবে কোনো আইন দ্বারা যদি সাংবাদিকরা ক্ষতিগ্রস্ত হয় সেটি আমাদেরও উদ্বেগ। আমি মনে করি গণমাধ্যমকর্মীদের নিরাপত্তা বিধান করা গণতান্ত্রিক কাজ। উল্লেখ্য, গত ১৯ সেপ্টেম্বর জাতীয় সংসদে বহুল আলোচিত ডিজিটাল নিরাপত্তা বিল পাস হয়। এদিকে আইন পাস হওয়ার পর সম্পাদক পরিষদসহ সাংবাদিকদের সব সংগঠন এর বিরোধিতা করে। একইসঙ্গে সম্পাদক পরিষদ আইনটি পাস হওয়ায় উদ্বেগ জানিয়ে গত ২২ সেপ্টেম্বর পরিষদের বৈঠক শেষে এক বিবৃতি দেয়। বিবৃতিতে ২৯ সেপ্টেম্বর বেলা ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি ঘোষণা করে। পরে গত ২৬ সেপ্টেম্বর তথ্যমন্ত্রী স্বাক্ষরিত একটি চিঠি সম্পাদক পরিষদের সাধারণ সম্পাদকের কাছে পাঠানো হয়। চিঠিতে মানববন্ধন কর্মসূচি স্থগিত করে ৩০ সেপ্টেম্বর দুপুর ১২টায় তথ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আইনটি নিয়ে বৈঠকে বসার আহ্বান জানানো হয়। তথ্যমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিয়ে সম্পাদক পরিষদ কর্মসূচি স্থগিত রেখে বৈঠকে অংশ নিতে রাজি হয়। এসএইচ/

আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেস ক্লাবের আয়োজনে গণমাধ্যমকর্মীদের আড্ডা

যুক্তরাষ্ট্রে আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেস ক্লাবের আয়োজনে গণমাধ্যমকর্মীদের আড্ডা অনুষ্ঠিত হয়েছে। নিউ ইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসে তিতাস পার্টি হলে এ আয়োজনে দেশ ও প্রবাসের সাংবাদিক ও গণমাধ্যমকর্মীরা অংশ নেন। যুক্তরাষ্ট্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরসঙ্গী গণমাধ্যমকর্মীদের সম্মানে এ অনুষ্ঠান করা হয়েছে বলে আয়োজকরা জানান।       আয়োজক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম ও যুগ্ম সম্পাদক রিজু মোহাম্মদের সঞ্চালনায় এতে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনটির সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা লাবলু আনসার। প্রবাসীদের বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহ বাড়াতে সুপারিশ উপস্থাপন করেন ব্রিটিশ-বাংলাদেশি সংসদ সদস্য সেলিম উদ্দিন। তিনি বলেন, “সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছি পৃথক একটি কমিশন গঠনের। যারা শুধু প্রবাসীদের সমস্যা ও বিনিয়োগ প্রকল্প নিয়ে কাজ করবে।” এ দাবি আদায়ে গণমাধ্যমকর্মীদের সহায়তা কামনা করেন জাতীয় সংসদে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য সেলিম উদ্দিন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন লেখক ও কলামিস্ট ফকির ইলিয়াস এবং পিপল এন টেকের প্রতিষ্ঠাতা ও কার্যনির্বাহী প্রকৌশলী আবু হানিপ।  প্রধান বক্তা ছিলেন বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন যুক্তরাষ্ট্র শাখার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের মিয়া। ফকির ইলিয়াস বলেন, “সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্তদের ক্রীড়নক হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন। এ ব্যাপারে গণমাধ্যমকর্মীদের সজাগ থাকতে হবে। এস কে সিনহার মদদদাতাদের মুখোশ উন্মোচন করতে হবে দেশ ও প্রবাসের গণমাধ্যমকে।”  প্রকৌশলী আবু হানিপ বলেন, “গত দেড় দশকে ৫ হাজারেরও বেশি বাংলাদেশিকে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দেওয়ার পর উচ্চ বেতনে চাকরির ব্যবস্থা করেছি। বাংলাদেশের উচ্চতর ডিগ্রি থাকলেও যারা অড জবে জীবিকার বিকল্প দেখছিলেন না, তারা এখন আমেরিকান স্বপ্নের পথে ধাবিত হচ্ছেন।” আব্দুল কাদের মিয়া বলেন, “মিডিয়া হচ্ছে সমাজের বিবেক। রাষ্ট্রের পথনির্দেশনার ক্ষেত্রে ও প্রবাসী কমিউনিটিকে এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে মিডিয়া ভূমিকা অপরিসীম। সামনের নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রার্থীদের বিজয়ের ব্যাপারে আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেস ক্লাব সোচ্চার থাকবে বলে আশা করছি।” প্রবাসী সাংবাদিকদের ভূমিকার প্রশংসা করে পরবর্তী করণীয় সম্পর্কে রূপরেখা দেন একুশে টেলিভিশনের হেড অফ ইনপুট ডক্টর অখিল পোদ্দার। তিনি বলেন, একটি চক্র বিদেশে বসে দেশের সুনাম নষ্ট করতে মারাত্মকভাবে তৎপর। ক্ষুরধার ও প্রতিবাদী লেখনীর মাধ্যমে সাংবাদিকেরা এর বিরুদ্ধে সোচ্চার ভূমিকা রাখবেন।   আড্ডায় উপস্থিত ছিলেন- এশিয়ান টিভির লাবণ্য ভূইয়া, প্রেস ক্লাবের প্রচার সম্পাদক পপি চৌধুরী, প্রেস ক্লাবের নির্বাচন কমিশনার আকবর হায়দার কিরণ ও রাশেদ আহমেদ, চ্যানেল আইয়ের বিশেষ সংবাদদাতা পান্থ রহমান, গাজী টেলিভিশনের জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক সাজু রহমান, বাংলাদেশ প্রতিদিনের রুহুল আমিন রাসেল ও কাজী শাহেদ, নিউজ টোয়েন্টিফোরের শাহ আলী জয় ও ফয়সাল মিল্লাত জামি, বাংলা ভিশনের সাঞ্জিব আহমেদ, এটিএন বাংলার নিয়াজ জামান সজীব ও আকাশ দে, দৈনিক পূর্বাঞ্চলের বিশেষ সংবাদদাতা রফিউল ইসলাম টুটুল, সুজন আহমেদ, কবি তুলি ইলিয়াস, মুক্তিযোদ্ধা আবুল বাশার চুন্নু, সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের হাজী জাফরউল্লাহ, বাংলাদেশ সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন সিদ্দিকী, যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির সভাপতি আব্দুর রহমান, জেবিবিএর নেতা ফাহাদ সোলায়মান, বিজনেস ফোরামের নেতা সেলিম উদ্দিন, যুবলীগ নেতা নিজাম উদ্দিন, প্রেস ক্লাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট মীর ই শিবলী, কোষাধ্যক্ষ আবুল কাশেম, নির্বাহী সদস্য নিহার সিদ্দিকী, আজিমউদ্দিন অভি ও কানু দত্ত, সদস্য মিজানুর রহমান, শাহাদৎ হোসেন সবুজ, আনিসুর কবীর জাসির, লিটু রহমান, তপন চৌধুরী এবং আমজাদ হোসেন।   এসি    

বাস চাপায় একাত্তর টিভির কর্মকর্তা নিহত 

রাজধানীতে ভিআইপি পরিবহন নামে একটি বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে একাত্তর টেলিভিশনের মার্কেটিং অ্যান্ড সেলস বিভাগের নির্বাহী কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন নিহত হয়েছেন। শনিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) সকালে মহাখালী এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।     কাফরুল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিকদার মোহাম্মদ শামীম গণমাধ্যমকে জানান, আজ (শনিবার) সকালে বাসটি (ঢাকা মেট্রো ব ১১-৭১৩৬) প্রথমে একটি সিএনজি চালিত অটোরিকশাকে ধাক্কা দেয়। ফলে সেটা নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মোটর সাইকেল আরোহী আনোয়ারের উপর উঠিয়ে দেয়। এতে আনোয়ারসহ সিএনজি চালিত অটোরিকশায় থাকা আরও একজন আহত হন। এরপর পথচারীরা আহত দু’জনকে উদ্ধার করে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আনোয়ারের মৃত্যু হয়। প্রাথমিকভাবে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত অপর ব্যক্তির নাম-পরিচয় জানা যায়নি। এ ঘটনায় ঘাতক বাস ও বাসের চালক সুজনকে আটক করা হয়েছে বলেও জানান ওসি ।  কেআই/এসি    

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি