ঢাকা, শনিবার   ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ৩০ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

গবিতে র‍্যাগিংয়ের শাস্তি ৫০ হাজার টাকা নির্ধারণ

গবি সংবাদদাতা 

প্রকাশিত : ২২:১২ ১১ নভেম্বর ২০১৯ | আপডেট: ২২:২৪ ১১ নভেম্বর ২০১৯

বিশ্ববিদ্যালয়ে নবাগত শিক্ষার্থীদের সাথে পুরোনো শিক্ষার্থীদের পরিচয়পর্ব ও সখ্যতা গড়ে তোলার (র‍্যাগিং) নামে ভয়ভীতি প্রদর্শণ বা হয়রানি করা হলে অভিযুক্ত শিক্ষার্থীকে ২৫ থেকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হবে বলে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে গণ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

রোববার (১১ নভেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মো. দেলোয়ার হোসেন সাক্ষরিত নোটিশে আরো  জানানো হয় 'র‍্যাগিং এর নামে জুনিয়রদের হয়রানি বা ভীতি প্রদর্শন করা যাবে না। এধরনের অভিযোগ পাওয়া গেলে ২৫ হাজার টাকা থেকে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা করা হবে। এ ধরনের কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকতে সকল শিক্ষার্থীকে কঠোরভাবে সাবধান করা হলো। সেই সঙ্গে সম্মিলিত বিভাগীয় প্রধানগণকে এ ব্যাপারে স্ব স্ব শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়ার জন্য কতৃপক্ষের নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।'

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে এমন বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হলে কম্পিউটার সায়েন্স ও ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ১ম বর্ষ ২য় সেমিষ্টারের শিক্ষার্থী আশরাফুল ইসলাম লিংকন বলেন, “ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নতুন শিক্ষার্থীদের সঙ্গে পুরনো শিক্ষার্থীদের সখ্য গড়ে তোলার জন্য যে পরিচিতি প্রথা এদেশে সেটাকে র‍্যাগিং বলে অভিহিত করা হয়। কিন্তু বাস্তবে আদব-কায়দা, নিয়ম-কানুন শেখানোর নামে তাদের ওপর চালানো হয় শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন। তাই বিশ্ববিদ্যালয়ের এমন সিদ্ধান্তকে স্বাগতম জানাই।”

বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসী বিভাগের ৩য় বর্ষ ৬ষ্ঠ সেমিষ্ঠারের শিক্ষার্থী পবিত্র কুমারশীল বলেন, 'র‍্যাগিং আসলে যেভাবে হওয়ার কথা ছিল সেভাবে হয় না। বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে প্রথমেই একজন শিক্ষার্থী র‍্যাগিংয়ের নামে যে নির্যাতনের শিকার হয় তাতে তার বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার ইচ্ছাটাই মরে যায়। তাই আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন র‍্যাগিং প্রতিরোধে যে উদ্দ্যোগ নিয়েছে তাকে আমরা সাধুবাদ জানাই।”

র‍্যাগিং প্রতিরোধে বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থদন্ডের আইন প্রণয়ন প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিক্যাল ফিজিক্স ও বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২য় বর্ষ ৩য় সেমিষ্টারের শিক্ষার্থী তৌসিক হাসান অর্পনের আম্মা কামরুন-নাহার একুশে টিভিকে বলেন, “ র‍্যাগিং করবে আর বিচার হবে না? তা হয় না। র‍্যাগিং করলে বিচার হতেই হবে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন র‍্যাগিংয়ের বিরুদ্ধে যে আইন প্রণয়ন করেছে তাকে আমি সমর্থন করি।”

বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান ও সমাজকর্ম বিভাগের শিক্ষক শহীদ মল্লিক বলেন, “র‍্যাগিং কখনোই কাম্য নয়, কারণ র‍্যাগিংযের ফলে একজন শিক্ষার্থীর দীর্ঘমেয়াদী ক্ষতি হতে পারে। তাই বিশ্ববিদ্যালয়ে র‍্যাগিংযের প্রতইরোধে যে অর্থাদন্ডের আইন প্রণয়ন করেছে তা শুধু শিক্ষার্থীকে শাস্তি দেওয়ার জন্য নয়,বরং ক্যাম্পাসে  শান্তি বজায় রাখার জন্য। তবে  শিক্ষার্থীদের সচেতন করতে ছাত্র সংসদ বড় ভূমিকা পালন করতে পারে। তবে আপনারা খেয়াল করলে দেখতে পারবেন, সড়ক দুর্ঘটনা এড়াতে সরকার কিছুদিন আগে যে কঠোর অর্থাদন্ডের আইন করেছে তার ভাল ফল কিন্তু আমরা পেতে শুরু করেছি।”

র‍্যাগিংযের নামে শিক্ষার্থী নির্যাতনের ঘটনায় যখন শঙ্কিত শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা তখন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের  সিদ্ধান্তকে যুগোপযোগী বলেই দেখছেন সবাই।

কেআই/আরকে

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি