ঢাকা, শনিবার   ২৩ নভেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ৯ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

প্রভোস্ট অপসারণের দাবিতে ইবিতে ছাত্রীদের বিক্ষোভ

ইবি প্রতিনিধি

প্রকাশিত : ১৩:০০ ১৫ অক্টোবর ২০১৯

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) শেখ হাসিনা হল প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. সেলিনা নাসরিনকে অপসারণের দাবিতে মধ্যরাতে বিক্ষোভ করেছে হলের আবাসিক শিক্ষার্থীরা। 

সোমবার (১৪ অক্টোবর) রাত ১০টা থেকে হলের প্রধান ফটকে এ বিক্ষোভ করেন তারা। 

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে খারাপ আচরণ, বিভিন্ন সময়ে হুমকি, শিক্ষার্থীদের বাবা-মা তুলে কথা বলেন প্রভোস্ট নাসরিন। এছাড়াও শিক্ষার্থীরা অসুস্থ হলে কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ না করা, হলে শিক্ষার্থীদের কোনো মতামতের তোয়াক্কা না করা, শিক্ষার্থীরা দেখা করতে গেলে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করানোসহ শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনের কথা জানালে তিনি কর্নপাত করেন না বলেও অভিযোগ করেন বিক্ষোভকারীরা।  

গত ১ অক্টোবর এসব অভিযোগে প্রভোস্টকে অপসারণের দাবিতে উপাচার্য বরাবর লিখিত আবেদন করেন শিক্ষার্থীরা। এতে উপাচার্যের কাছ থেকে কার্যকরী কোনো পদক্ষেপ না পাওয়ায় সোমবার রাত ১০টার দিকে হলের প্রধান ফটক খুলে প্রভোস্টকে অপসারণের দাবিতে বিক্ষোভ করেন তারা। 

এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র উপদেষ্টা এবং প্রক্টরের অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা অধ্যাপক ড. পরেশ চন্দ্র বর্মণ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেন। তবে শিক্ষার্থীরা উপাচার্যের সঙ্গে কথা বলতে চান। 

পরে রাত সাড়ে ১১টার দিকে উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-উর-রশিদ আসকারী হলে আসেন। তবে হল প্রভোস্ট বা হলের কোনো সহকারী প্রভোস্ট ঘটনাস্থলে আসেননি বলে জানা যায়।

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে রাত সাড়ে ১২টা পর্যন্ত হলের প্রভোস্ট কক্ষে উপাচার্য ড. হারুন-উর-রশিদ আসকারী, কোষাধ্যক্ষ ড. সেলিম তোহা, ছাত্র উপদেষ্টা ড. পরেশ চন্দ্র বর্মণ, সহকারী প্রভোস্ট শাহাবুল আলম আলোচনা করেন। 

এ সময় উপাচার্য শিক্ষার্থীদের সকল অভিযোগ শুনে সকাল পর্যন্ত সময় নিয়েছেন বলে শিক্ষার্থীরা জানিয়েছে। উপাচার্যের আশ্বাসে আন্দোলন স্থগিত করে শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-উর-রশিদ আসকারী বলেন, আমি নিজেই শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেছি। তাদের অভিযোগগুলো গুরুত্ব সহকারে নিয়েছি। প্রশাসনের বাকি কর্তা ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে শিগগিরই ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

আই/

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি