ঢাকা, সোমবার   ২০ জানুয়ারি ২০২০, || মাঘ ৭ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

বিয়ের প্রলোভনে বিউটিশিয়ানকে ধর্ষণের অভিযোগে ব্যবসায়ী আটক

সাভার প্রতিনিধি

প্রকাশিত : ১৭:০৯ ১০ ডিসেম্বর ২০১৯

আশুলিয়ায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বিউটিশিয়ান এক নারীকে (৩২) প্রায় একযুগ ধরে ধর্ষণের অভিযোগে হাজী মানিক মিয়া নামের এক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী ওই নারী থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। 

মঙ্গলবার সকালে আশুলিয়ার বুড়িরবাজার এলাকা থেকে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত হাজী মানিক মিয়া (৫৫) আশুলিয়ার বুড়িরবাজার এলাকার বাসিন্দা ও একাধিক পোশাক কারখানার ভবনের মালিক।  

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বিউটিশিয়ান ওই নারীকে প্রায় ১০-১২ বছর পূর্বে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শারিরীক সম্পর্ক গড়েন হাজী মানিক মিয়া নামের ওই ব্যবসায়ী। এরপর থেকে ওই নারীকে বিভিন্ন সময় ধর্ষণ করে আসছিল সে। এঘটনায় ভুক্তভোগী ওই নারী বিয়ের জন্য চাপ প্রয়োগ করলে সে বিভিন্ন রকম হুমকি ও ভয়-ভীতি দেখিয়ে তাকে এলাকা ছাড়া করারর চেষ্টা করেন। ভুক্তভোগী ওই নারী বাদী হয়ে থানায় ধর্ষণের অভিযোগে একটি অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ তাকে নিজ বাড়ী থেকে আটক করেন। 

ভুক্তভোগী ওই নারী জানান, বুড়িরবাজার এলাকায় তার একটি বিউটি পার্লার ছিলো। বিভিন্ন সময় রাস্তায় তার সাথে কথা বলতো। কথা বলার পরিচয় থেকেই তাদের মধ্যে সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এক পর্যায়ে তার স্বামী এসব বিষয় টের পাওয়ার পর অন্যত্র বাসা নিয়ে বসবাস করতে থাকে। কৌশলে হাজী মানিক তার স্বামীকে বিভিন্ন অশ্লীল ছবি দেখিয়ে তাদের বিরোধ সৃষ্টি করে। এরপর স্বামীর অমানসিক নির্যাতন থেকে বাঁচতে তার সহযোগিতার সুযোগে তাকে একাধিকবার ধর্ষন করে এবং এসব ভিডিও ধারণ করে রাখে। পরবর্তীতে তার কথামতো শারীরিক সম্পর্ক করতে না চাইলে ভিডিও ভাইরালের ভয় দেখিয়ে এবং বিয়ের প্রলোভনে ফেলে দীর্ঘ ১২ বছর ধরেই তাকে ধর্ষণ করেছে মানিক মিয়া।
 
জানা যায়, গোপনে ওই নারীর অশ্লীল ভিডিও ধারণের পর তা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়েই এতদিন ধরে তাকে ধর্ষণ করে আসছিল। মানিক মিয়া এর আগেও পলি নামের আরো এক নারীকে জিম্মি করে একই দায়দায় ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে। 

আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোমিনুল হক জানান, ধর্ষণের মামলায় হাজী মানিক মিয়াকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ধর্ষিতার শারীরিক পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসি সেন্টারে (ওসিসি) প্রেরণ করা হয়েছে।

কেআই/এসি

© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি