ঢাকা, শনিবার   ১৮ জানুয়ারি ২০২০, || মাঘ ৬ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

যুক্তরাষ্ট্র থেকে ২১ সৌদি সেনা সদস্যকে বহিষ্কার

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১২:৪২ ১৪ জানুয়ারি ২০২০

গত মাসে মার্কিন নৌবাহিনীর একটি বিমান ঘাঁটিতে এক সৌদির চালানো প্রাণঘাতী হামলার পর করা পর্যালোচনার প্রেক্ষিতে যুক্তরাষ্ট্র থেকে সৌদি সামরিক বাহিনীর ২১ সদস্যকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

বহিষ্কৃত এই সৌদিরা হামলাকারী সৌদি বিমান বাহিনীর ওই লেফটেন্যান্টকে সাহায্য করেছিলেন বলে কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি, তারপরও তাদের বহিষ্কার করা হয়।

এর কারণ হিসেবে বহিষ্কৃতদের কাছে জিহাদি উপাদান ও শিশুদের অশ্লীল ছবি পাওয়া যাওয়ার কথা জানিয়েছেন মার্কিন অ্যাটর্নি জেনারেল উইলিয়াম বার, খবর বিবিসির।

৬ ডিসেম্বর ফ্লোরিডার পেন্সাকোলা নৌ-বিমান ঘাঁটিতে সৌদি বিমান বাহিনীর সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট মোহাম্মেদ সায়ীদ আলশামরানি (২১) গুলি করে তিন মার্কিন নাবিককে হত্যা ও আরও আট জনকে আহত করেন। হামলার এক পর্যায়ে একজন মার্কিন ডেপুটি শেরিফের পাল্টা গুলিতে আলশামরানি নিহত হন। 

এফবিআই জানিয়েছে, ঘটনাটি আলশামরানি একাই ঘটিয়েছেন বলে বিশ্বাস মার্কিন তদন্তকারীদের।

এ ঘটনার পর যুক্তরাষ্ট্রে সৌদি সামরিক সদস্যদের প্রশিক্ষণ স্থগিত রাখা হয়।

সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে অ্যাটর্নি জেনারেল বার নৌ-বিমান ঘাঁটির ওই হামলার ঘটনাকে ‘সন্ত্রাসবাদী কাজ’ বলে মন্তব্য করেছেন।

তিনি জানান, বহিষ্কৃত সামরিক প্রশিক্ষণার্থীদের মধ্যে ১৭ জনের কাছে অনলাইন থেকে সংগ্রহ করা সন্ত্রাসবাদী উপদান পাওয়া গেছে আর ওই ১৭ জনের মধ্যে কয়েকজনসহ ১৫ জনের কাছে শিশুদের অশ্লীল ছবি পাওয়া গেছে।

এই ২১ সৌদি সামরিক প্রশিক্ষণার্থীকে বহিষ্কার করে সোমবার দেশে পাঠানো হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন। বহিষ্কৃতরা এফবিআইয়ের তদন্তে পূর্ণভাবে সহযোগিতা করেছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

তদন্তে সৌদি আরব ‘পূর্ণ’ সমর্থন দিয়ে সহযোগিতা করেছে বলেও বার জানিয়েছেন।

তিনি আরও জানান, যুক্তরাষ্ট্রে বহিষ্কৃতদের বিরুদ্ধে অপরাধ সংঘটনের কোনো অভিযোগ আনা হয়নি, কিন্তু দেশে ফিরলে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হতে পারে।

বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে ৮৫০ জনেরও বেশি সৌদি সামরিক প্রশিক্ষণার্থী প্রশিক্ষণ গ্রহণ করছেন।

© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি