ঢাকা, মঙ্গলবার   ২৩ এপ্রিল ২০২৪

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে এনএফই ক্যারিয়ার ডে 

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ২১:১৯, ২৭ জুলাই ২০১৯

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে নিউট্রিশন অ্যান্ড ফুড ইঞ্জিনিয়ারিং (এনএফই) বিভাগের আয়োজনে শনিবার (২৭ জুলাই) দিনব্যাপী ‘এনএফই ক্যারিয়ার ডে-২০১৯’উদযাপিত হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭১ মিলনায়তনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ক্যারিয়ার ডে'র উদ্বোধন করেন অর্থমন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব মনোয়ার আহমেদ।

এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,নেসলে বাংলাদেশের রেগুলেটরি অ্যান্ড সায়েন্টিফিক অ্যাফেয়ার্স ম্যানেজার রেবেকা শারমিন, ইউনিসেফের পুষ্টি বিশেষজ্ঞ অ্যাগনেস চার্লস কিহামিয়া এবং ইউনিসেফের নিউট্রিশন অফিসার আবু বকর সিদ্দিক। ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এসএম মাহবুব উল হক মজুমদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ড. প্রকৌশলী এ কে এম ফজলুল হক, অ্যালাইড হেলথ সায়েন্সেস অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. আহমেদ ইসমাইল মোস্তফা, এনএফই বিভাগের সহযোগী প্রধান ড. আমির আহমেদ প্রমুখ। অনুষ্ঠানে ‘ফুড সেফটি প্রিভেনটিভ কনট্রোলস অ্যালায়েন্স’শীর্ষক একটি প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন এনএফই বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. মো. বেলাল হোসেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মনোয়ার আহমেদ বলেন, বাংলাদেশের অর্ধেক জনগোষ্ঠী নারী এবং এদের বেশির ভাগই অপুষ্টিতে ভোগেন। বিশেষ করে গ্রামে বসবাসকারী নারীরা সবচেয়ে বেশি অপুষ্টির শিকার। এই অপুষ্ট নারীরা জন্ম দিচ্ছেন অপুষ্ট সন্তান। ফলে আমরা একটি স্বাস্থ্যসম্মত জাতি তৈরি করতে পারছি না। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য খাদ্য ও পুষ্টি বিভাগের মানুষদেরকে সচেতন ভূমিকা পালন করতে হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব মনোয়ার আহমেদ  আরও বলেন, সরকার খাদ্য নিরাপত্তা আইন-২০১৩ প্রণয়ন করেছে। এছাড়া প্রতিটি সরকারি হাসপাতালে নিউট্রিশন অফিসার নিয়োগের ঘোষণা দিয়েছে। একটি স্বাস্থ্যসম্মত জাতি তৈরি করতে সরকার আন্তুরিক। সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকেও এ ব্যাপারে আন্তরিক হতে হবে বলে মন্তব্য করেন মনোয়ার আহমেদ। 

এ সময় তিনি ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির এনএফই বিভাগকে ধন্যবাদ জানান এরকম একটি অনুষ্ঠান আয়োজন করার জন্য।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে রেবেকা শারমিন বলেন, নিরাপদ খাদ্য প্রতিটি নাগরিকের অধিকার। কিন্তু আমাদের দেশের রেস্টুরেন্ট ও পথে-ঘাটে যেসব খাবার পাওয়া যায় তার বেশিরভাগই অস্বাস্থ্যকর বলে অভিযোগ রয়েছে। এ ব্যাপারে সরকার ও সাধারণ মানুষকে সচেতন ভূমিকা পালন করার আহবান জানান তিনি।

অপর বিশেষ অতিথি অ্যাগনেস চার্লস কিহামিয়া বলেন, অপুষ্টিজনিত স্বাস্থ্য সমস্যা মোকাবেলা করা একটি বড় চ্যালেঞ্জ। এখনো এ দেশে বহু নারী গর্ভাবস্থায় অপুষ্টিতে ভোগেন। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় খাদ্য ও পুষ্টি বিভাগের শিক্ষার্থীরা কার্যকর ভূমিকা রাখবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।
কেআই/


Ekushey Television Ltd.


Nagad Limted


© ২০২৪ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি