ঢাকা, শনিবার   ১৩ জুলাই ২০২৪

মানবাধিকার পরিষদ থেকে বাদ রাশিয়া, ভোট দেয়নি বাংলাদেশ

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৮:২২, ৮ এপ্রিল ২০২২

ইউক্রেনে যুদ্ধের সময় রাশিয়ান সৈন্যদের দ্বারা সংঘটিত নৃশংসতার উচ্চমাত্রার অভিযোগের পরে জাতিসঙ্ঘের সাধারণ পরিষদ তাদের মানবাধিকার কাউন্সিল থেকে রাশিয়াকে স্থগিত করার জন্য ভোট দিয়েছে।

জাতিসঙ্ঘের সাধারণ পরিষদে বুধবার অনুষ্ঠিত ওই প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দিয়েছে ৯৩ সদস্য রাষ্ট্র, বিপক্ষে ২৪ এবং ৫৮টি সদস্য রাষ্ট্র অনুপস্থিত ছিল।

ভোটদানে বিরত ছিল বাংলাদেশ, ভারত, মিশর, দক্ষিণ কোরিয়ার মতো দেশগুলো। আর পক্ষে ভোট দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, ইইউভুক্ত দেশগুলো, যুক্তরাজ্য এবং ইউক্রেন নিজে। আর বিপক্ষে ভোট দেয় চীন, সিরিয়া এবং বেলারুশসহ অন্যরা।

জাতিসঙ্ঘ সাধারণ পরিষদের খসড়া প্রস্তাব অনুসারে, কোনো সদস্য রাষ্ট্র মানবাধিকারের স্থূল এবং নিয়মতান্ত্রিক লঙ্ঘন করে এমন কাউন্সিলের সদস্যের মানবাধিকার কাউন্সিলের সদস্যতার অধিকার স্থগিত করতে পারে।

খসড়া রেজুলিউশন আরো উল্লেখ করা হয়, ইউক্রেন আক্রমণের সময় রাশিয়ান ফেডারেশন কর্তৃক সংঘটিত ‘মহা ও পদ্ধতিগত লঙ্ঘন এবং মানবাধিকার লঙ্ঘন’ এবং ‘আন্তর্জাতিক মানবিক আইন লঙ্ঘনে’র প্রতিবেদনের বিষয়ে মানবাধিকার কাউন্সিলের ‘গুরুতর উদ্বেগ’ রয়েছে।

জাতিসঙ্ঘে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত মঙ্গলবার জাতিসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের সামনে মানবাধিকার কাউন্সিল থেকে রাশিয়াকে স্থগিত করার জন্য একটি মামলা করেছেন, যা তিনি এবং জাতিসঙ্ঘের অন্যান্য সদস্য রাষ্ট্রগুলো চাপ দিচ্ছে।

রাষ্ট্রদূত লিন্ডা থমাস-গ্রিনফিল্ড বলেছেন, “রাশিয়ার এমন একটি সংস্থায় কর্তৃত্বের অবস্থান থাকা উচিত নয় যার উদ্দেশ্য-যার উদ্দেশ্য-মানবাধিকারের প্রতি সম্মান বৃদ্ধি করা। এটি কেবল ভন্ডামির উচ্চতাই নয়- এটি বিপজ্জনক।”

রাষ্ট্রদূত লিন্ডা থমাস-গ্রিনফিল্ড আরো বলেন, “প্রতিদিন, আমরা আরো বেশি করে দেখি যে রাশিয়া কত কম মানবাধিকারকে সম্মান করে।”

বৃহস্পতিবার ভোটের আগে জাতিসঙ্ঘে ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত সার্জি কিসলিয়্যাস কাউন্সিল থেকে রাশিয়াকে স্থগিত করার প্রস্তাব সমর্থন করার জন্য জাতিসঙ্ঘের সমস্ত সদস্য রাষ্ট্রকে আহ্বান জানিয়েছেন। এ সময় তিনি বলেন, “এখন বিশ্ব একটি গুরুত্বপূর্ণ সন্ধিক্ষণে এসেছে। আমরা সাক্ষ্য দিচ্ছি যে আমাদের সীমানাটি বিশ্বাসঘাতক কুয়াশার মধ্য দিয়ে মারাত্মক আইসবার্গের দিকে যাচ্ছে। মনে হতে পারে আমাদের মানবাধিকার কাউন্সিলের পরিবর্তে এটির নাম টাইটানিক রাখা উচিত ছিল। আর এজন্য আমাদের এখনই পদক্ষেপ নিতে হবে। মানবাধিকার কাউন্সিলকে ডুবে যাওয়ার হাত থেকে বাঁচানোর জন্য আজই একটি পদক্ষেপ নিতে হবে।”

ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত আরো বলেন, “ইউক্রেনে রাশিয়ার পদক্ষেপ ‘যুদ্ধাপরাধ এবং মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের সমতুল্য হবে।”

এক তাতক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায়, জাতিসঙ্ঘে উপ-রুশ রাষ্ট্রদূত, গেনাডি কুজমিন সদস্য দেশগুলিকে এই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, “এটি একটি বিপজ্জনক নজির স্থাপন করবে।”

রাশিয়ার উপরাষ্ট্রদূত আরো বলেন, “মানবাধিকার কাউন্সিল থেকে রাশিয়াকে স্থগিত করার বিষয়ে ভোট হচ্ছে ‘আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে মানবাধিকার ঔপনিবেশিকতার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাওয়ার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার প্রভাবশালী অবস্থান এবং সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখার একটি প্রচেষ্টা।”

হিউম্যান রাইটস ওয়াচের জাতিসঙ্ঘের পরিচালক লুই চারবোনিউ একটি বিবৃতিতে বলেন, “মানবাধিকার কাউন্সিলে রাশিয়ার স্থগিতাদেশ ‘একটি স্পষ্ট বার্তা’ দিচ্ছে যে মানবাধিকার কাউন্সিলে তাদের আর কোন কাজ নেই।”
এসএ/
 


Ekushey Television Ltd.


Nagad Limted







© ২০২৪ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি