ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ২৮ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই সেমিতে বাংলাদেশ

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৬:৪০ ১৮ নভেম্বর ২০১৯

নাজমুল হোসেন শান্ত

নাজমুল হোসেন শান্ত

গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমিফাইনালে যাওয়ার হাতছানি ছিল বাংলাদেশ ইমার্জিং দলের সামনে। নাঈম-শান্তর ব্যাটে শেষ পর্যন্ত সেটাই হলো। সোমবার (১৮ অক্টোবর) ইমার্জিং এশিয়ান কাপে নেপালকে ৮ উইকেটে উড়িয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ। দাপুটে এ জয়ে গ্রুপ ‘বি’ থেকে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে সেমিফাইনালে নাম লিখিয়েছে স্বাগতিকরা।

এদিন বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নামে নেপাল। সুমন খান ও মিনহাজুল আবেদিন আফ্রিদির বোলিং তোপে ৪৫তম ওভারেই গুটিয়ে যায় দলটি। তার আগে বোর্ডে ১৩৮ রান তুলতে সক্ষম হয় নেপাল। জবাবে অপেক্ষাকৃত সহজ এ লক্ষ্যমাত্রা ১৫৬ বল ও ৮ উইকেট হাতে রেখেই টপকে যায় বাংলাদেশ। দলের এ জয়ে ব্যাট হাতে এদিন দ্যুতি ছড়ান দলনেতা নাজমুল হোসেন শান্ত ও ওপেনার নাঈম শেখ।
 
যদিও অল্প রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা প্রত্যাশা মতো হয়নি স্বাগতিকদের। আগের দুই ম্যাচে দলের জয়ে ব্যাট হাতে বড় ভূমিকা রাখা সৌম্য সরকার আজ ফেরেন শুরুতেই। ১৭ বলে ১১ রান করে এদিন সাজঘরে ফেরেন সৌম্য। তার বিদায়ে দলীয় ৩৪ রানে প্রথম উইকেট হারায় স্বাগতিকরা।

সৌম্যের বিদায়ে ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে ক্রিজে আসেন অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত। যোগ দেন নাঈমের সঙ্গে। দু’জনে মিলে গড়েন ৭৯ রানের জুটি। এসময় নাঈম ব্যক্তিগত ৪৫ রানে আউট হলেও বাকিটা কাজটা সম্পন্ন করেন শান্ত ও ইয়াসির আলি রাব্বি। দ্রুতগতিতে রান তোলা শান্ত ৫৬ বলে ছয়টি চার ও দুই ছক্কায় ৫৯ আর দুই চার আর এক ছক্কায় ইয়াসির ১৮ রানে অপরাজিত থেকে মাঠ ছাড়েন।
 
এর আগে টস জিতে প্রথমে নেপালকে ব্যাটিংয়ে পাঠান নাজমুল হোসেন শান্ত। ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই স্বাগতিক বোলারদের বোলিং তোপে পড়ে নেপাল। সুমন খান ও তানভীর ইসলামের অগ্নিঝরা বোলিংয়ে শুরুতেই ব্যাটিং বিপর্যয়ের সম্মুখীন হয় দলটি।

এক পর্যায়ে ৬৮ রান তুলতেই ৭ উইকেট হারিয়ে বসে নেপাল। এমন পরিস্থিতিতে শঙ্কা জাগে ১০০ রানের আগেই গুটিয়ে যাওয়ার। তবে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকা নেপালের ত্রাণকর্তা হিসেবে আবির্ভূত হন নয় ও দশ নম্বরে ব্যাট করতে নামা সম্পাল কামি কারান কেসি। 

নবম উইকেটে দু’জনে মিলে গড়েন ৫০ রানের জুটি। যা নেপালকে দলীয় শতরানের দেখা পেতে সাহায্য করে। দলীয় ১৩৫ রানে কারানকে আউট করে এ জুটি ভাঙ্গেন মেহেদী হাসান। ৪৭ বল মোকাবেলায় ১ চার ও ১ ছক্কায় ১৮ রান করেন কারান। 

সতীর্থকে হারানোর কিছুক্ষণ পর সুমন খানের তৃতীয় শিকারে পরিণত হন সম্পাল। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩৮ রান করা সম্পালের বিদায়ের মধ্য দিয়ে দলীয় ১৩৮ রানে শেষ হয় নেপালের ইনিংস। ৬৩ বল খেলে ৪ চারে এ রান করেন সম্পাল।

স্বাগতিক বোলারদের মধ্যে ৩টি করে উইকেট নেন সুমন ও মিনহাজুল আবেদীন আফ্রিদি। এছাড়া দুটি করে উইকেট লাভ করেন তানভীর ও মেহেদী।

এনএস/

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি