ঢাকা, সোমবার   ২১ অক্টোবর ২০১৯, || কার্তিক ৭ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

চার ম্যাচ জিতলেই বিশ্বকাপ বাংলাদেশের!

প্রকাশিত : ১০:২৬ ২৬ জুন ২০১৯ | আপডেট: ১০:২৭ ২৬ জুন ২০১৯

সেমিতে খেলার মিশন নিয়েই এবারের বিশ্বকাপ মিশন শুরু করেছিল বাংলাদেশ। নিজেদের উদ্বোধনী ম্যাচে শক্তিশালী দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে বড় জয় দিয়ে সেই ইঙ্গিতই দেয় মাশরাফিরা।

তবে শুধু সেমিফাইনাল নয়, আর মাত্র ৪টি ম্যাচ জিততে পারলে প্রথমবারের মতো বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হবে বাংলাদেশ। পূর্ণ হবে বাঙালি জাতির লালিত স্বপ্ন।

তবে সে জন্য পাড়ি দিতে হবে কঠিন পথ। কাঠ-খড় পোড়াতে হবে নিজেদের।

শীর্ষ চারে ওঠার লড়াইয়ের অংশ হিসেবে অজিদের বিপক্ষে ইংল্যান্ডের পরাজয়ের যে প্রার্থনা করেছিল টাইগাররা, তাই হয়েছে। অজিদের নিকট হারায় সেমিতে ওঠার পথটা একটু সহজ হয়েছে বাংলাদেশের।

এই মূহুর্তে পয়েন্ট তালিকায় ইংল্যান্ড ও বাংলাদেশ সমানসংখ্যক ম্যাচ খেলে যথাক্রমে ৮ ও ৭ পয়েন্ট নিয়ে যথাক্রমে চার ও পাঁচ নম্বরে।

মরগানদের সেমিফাইনালে উঠতে হলে বাকি দুই ম্যাচেই জয় পেতে হবে। একটি ম্যাচে জয় পেলেও তারা সেমিফাইনালে যেতে পারে  যদি বাংলাদেশ একটি ম্যাচে হেরে যায়।

কিন্তু ইংলিশদের সামনের প্রতিপক্ষ আসরের অন্য দুই হট ফেভারিট ভারত ও নিউজিল্যান্ড। যাদের বিপক্ষে বিশ্বকাপের মঞ্চে পূর্ব ইতিহাস তেমন একটা সুখকর নয় ইংলিশদের। ফলে ওই দুই ম্যাচে হারের সম্ভাবনাই বেশি দেখছেন ক্রিকেট বিশ্লেষকরা।

বাংলাদেশের সামনে রয়েছে ক্রিকেট ও রাজনীতির দুই পরাশক্তি হিন্দুস্তান ও পাকিস্তান। উভয়ের বিপক্ষে জেতার কোনো বিকল্প নেই।

যদি একটিতে জয় পায়, তারপরও ৯ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষ চারে যেতে পারবে যদি কেবল ইংল্যান্ড সব ম্যাচে হারে এবং পাকিস্তান ও শ্রীলংকা বাকি তিন ম্যাচের একটিতে জয় পায়। অর্থাৎ, মাশরাফিরা দুটি জিতলে প্রতিপক্ষ শুধু মরগানরা। আর একটিতে জিতলে প্রতিপক্ষ সরফরাজ ও মালিঙ্গারাও।

পাকিস্তানের সামনে তিনটি ম্যাচ। আজ তারা নিউজিল্যান্ডের কাছে হেরে গেলে বাংলাদেশের সম্ভাবনা কয়েকগুণে বেড়ে যাবে। তাদের অন্য দুই প্রতিপক্ষ আসরে কোনো জয় না পাওয়া আফগানিস্তান এবং ৭ ম্যাচে তিন জয়-পরাজয় ও পরিত্যক্তের ১ পয়েন্ট নিয়ে ৫ নস্বরে থাকা টাইগাররা।

পাকিস্তান আফগানদের বিপক্ষে জয় পেলেও, কিউই ও টাইগারদের বিপক্ষে হারের মধ্যদিয়ে আসর থেকে বিদায় হবে তাদের এটাই প্রত্যাশা টাইগার ক্রিকেটপ্রেমিদের।

আর শ্রীলঙ্কার সামনে রয়েছে আসর থেকে ছিটকে পড়া দক্ষিণ আফ্রিকা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ এবং শিরোপার অন্যতম দাবিদার হার না মানা কোহলির ভারত।

আসরে লঙ্কানদের পারফর্মেন্স বলে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে জয় পাওয়া সম্ভব হলেও ক্যারিবিয়ান ও ভারতের বিপক্ষে হারার সম্ভাবনাই বেশি।

এমনকি শ্রীলংকা যদি বিদায় নেয়া দুই দলের বিপক্ষে জয় পায়, তারপরও বাংলাদেশ বাকি দুই ম্যাচে জিততে পারলে শ্রীলংকাকে টপকে শীর্ষ চার নিশ্চিত হবে।

সেমিফাইনালে উঠলে মাশরাফিদের মোকাবেলা করতে হবে গ্রুপ পর্বে ভাল খেলেও অল্পের জন্য হেরে যাওয়া অজিদের সঙ্গে কিংবা শিরোপার অন্যতম দাবিদার যাদের বিপক্ষে সাম্প্রতিক সময়ে সোনালী স্মৃতি বাংলাদেশের সেই কোহলিদের বিপক্ষে।

বিশ্বকাপের এ আসরে বাংলাদেশের পারফর্মেন্স বলে ভারত-অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জয় পাওয়ার সামর্থ্য শতভাগ আছে সাকিব-মুশফিকদের।

বাকি রইলো ফাইনাল। যেখানে যাদের বিপক্ষে দাপুটে জয় নিয়ে সেমিতে উঠবে, তাদের যে কাউকেই হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হতে পারে বাংলাদেশ।

এটা শুধু আমার নয়, প্রতিটি বাঙালির চাওয়া, কোটি কোটি ক্রিকেট প্রেমিদের এটাই প্রত্যাশা।

এখন সামনে একটিই টার্গেট আগামী ২ ও ৫ জুলাই। যথাক্রমে ভারত ও পাকিস্তান বধ। তাহলেই হয়ত সেই বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের স্বপ্ন পূরণ হতে পারে টাইগারদের। পূরণ হবে কোটি কোটি বাঙালির স্বপ্ন। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে সকল বাঙালির আশীর্বাদ নিয়ে ভারত ও পাকিস্তানের বিপক্ষে জয়ের লক্ষ্যে মাঠ নামবে বাংলাদেশ।

আই/  

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি