ঢাকা, রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৪:৪৫:৪৮

Ekushey Television Ltd.

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে পুরস্কার পেলেন তিন সাংবাদিক

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৮:৫৫ পিএম, ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮ বৃহস্পতিবার

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে অবদান রাখায় পুরস্কার পেয়েছেন তিনজন সাংবাদিক। আজ বৃহস্পতিবার বসুন্ধরার ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটিতে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সপ্তাহের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তাদের এ পুরস্কার দেওয়া হয়। পুরস্কার পান এটিএন নিউজের প্রধান নির্বাহী সম্পাদক মুন্নী সাহা, দৈনিক আমাদের সময়ের সিনিয়র রিপোর্টার লুৎফর রহমান কাকন ও ডেইলি সানের বিশেষ প্রতিনিধি শামীম জাহাঙ্গীর। পুরস্কার তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বর্তমানে প্রতি কিলোওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে আমাদের খরচ হচ্ছে ৬ টাকা ২৫ পয়সা। কিন্তু আমরা বিক্রি করছি ৪ টাকা ৮২ পয়সায়। অর্থাৎ, আমরা এখানে ভর্তুকি দিচ্ছি। বিদ্যুৎ উৎপাদনের যে খরচ সেটা কিন্তু আমরা গ্রাহকের কাছ থেকে নিচ্ছি না।

কিন্তু এক সময় এ সুযোগ আর থাকবে না জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমার মনে হয় আর্থ-সামাজিক উন্নতি যখন হবে, তখন যতটা খরচ ততটাই দিতে হবে। আমার একটা অনুরোধ থাকবে, বিদ্যুৎ ব্যবহারে সবাইকে সাশ্রয়ী হতে হবে। বিদ্যুতের অপচয় বন্ধ করার জন্য আমি অনুরোধ জানাই।

তিনি বলেন, ২০০৯ সালে বাংলাদেশের বিদ্যুৎ ব্যবস্থা ছিল ‘অত্যন্ত শোচনীয়’। তখন বিদ্যুৎ উৎপাদন ছিল তিন হাজার মেগাওয়াট। বর্তমানে বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা দাঁড়িয়েছে ২০ হাজার মেগাওয়াটে।

গত সাড়ে নয় বছরে মোট ২৪ হাজার ৩৫১ মেগাওয়াট ক্ষমতার ১৩৫টি বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের জন্য চুক্তি করা হয়েছে। এর মধ্যে ১০১টি বিদ্যুৎকেন্দ্র চালু হয়েছে এবং প্রায় ১২ হাজার ২৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হয়েছে।

বর্তমান সরকারের দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনার আওতায় ২০২১ সালের মধ্যে ২৪ হাজার মেগাওয়াট, ২০৩০ সালের মধ্যে ৪০ হাজার মেগাওয়াট এবং ২০৪১ সালের মধ্যে ৬০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের মহাপরিকল্পনার কথাও তুলে ধরেন শেখ হাসিনা। বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে অবদানের জন্য এ অনুষ্ঠানে ১২ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে সন্মাননা দেন প্রধানমন্ত্রী।

এসএইচ/



© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি