ঢাকা, রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৪:৪৯:৩৪

Ekushey Television Ltd.

‘মামুনের জনপ্রিয়তার প্রমাণ পেয়েছি তার এলাকায় গিয়ে’

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ০৮:৪১ পিএম, ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ শনিবার | আপডেট: ০৫:৫২ পিএম, ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ রবিবার

সদ্য প্রয়াত একুশে টেলিভিশনের সিনিয়র রিপোর্টার মামুনুর রশীদ সম্পর্কে বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীর ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি আশরাফুল আলম খোকন বলেছেন, মামুনুর রশীদ কতোটুকু জনপ্রিয় ছিল তার প্রমাণ পেয়েছি তার লাশ নিয়ে যখন নড়াইল গেলাম তখন। এলাকার সর্বস্তরের লোক মামুনের জন্য হু হু করে কেঁদেছে।

আজ শনিবার টিএসসি ছাত্রশিক্ষক মিলনায়তনে এক শোকসভায় তিনি এসব কথা বলেন। একুশে টেলিভিশনের সিনিয়র রিপোর্টার মামুনুর রশীদের মৃত্যু উপলক্ষে তার বিশ্ববিদ্যালয়ের বন্ধুদের পক্ষ থেকে এ শোক সভার আয়োজন করা হয়।

প্রধানমন্ত্রীর ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি তার বক্তৃতায় বলেন, আমি সাংবাদিকদের নিয়ে কাজ করি। অনেক সাংবাদিকের সঙ্গে আমার ঘনিষ্টতা। বিশেষ করে যারা প্রধানমন্ত্রীর বিট করেন তাদের সঙ্গে। এদের মধ্যে মামুন ছিল বিশেষ। মামুনের একটা অভ্যাস ছিল। যখনই মামুনকে ফোনে জিজ্ঞেশ করতাম, মামুন কোথায় আছ? মামুন উত্তরে বলত, পথে আছি।

প্রয়াত সাংবাদিক মামুনুর রশীদের আন্তরিকতার উদাহরণ দিতে গিয়ে তিনি আরও বলেন, আমি গ্রামের বাড়ি গেলে মামুন একদিন পরে গিয়ে হাজির হতো। যদি বলতাম, মামুন তোমাকে তো আসতে বলি নাই। কেন এসেছ? মামুন হেসে হেসে উত্তর দিত, আপনার বাড়ি আসতে হলে কী দাওয়াত লাগবে নাকি।

আশরাফুল আলম খোকন আরও বলেন, মামুনকে বলতাম, মামুন বয়স ৩০ পার হয়েছে। এখন একটু ব্যায়াম কর, জগিং কর। মামুন উত্তরে বলত, খোকন ভাই আপনি বুড়া মানুষ। এগুলো আপনার করা দরকার।

প্রয়াত মামুনুর রশীদ ভালো সাংবাদিকের বাইরে একজন ভালো মানুষ ছিলেন। তার সততা ছিল মারাত্মক। এমন প্রসঙ্গে আশরাফুল আলম খোকন বক্তব্যে বলেন, মামুন যেহেতু প্রধানমন্ত্রীর বিট করতো তার সঙ্গে অনেক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের যোগাযোগ হয়েছিল। তাই অনেকে তার কাছে বিভিন্ন সাহায্য চাইতে আসত। এমন অনেক কাজ আমিও করে দিয়েছি। আমি কাজ করার আগে বা পরে খবর নিতাম। কারণ কোন বদনামী যাতে না হয় সেটা খেয়াল রাখা আমার নৈতিক দায়িত্ব। মামুন কখনো কারো কাছে এক টাকা বেনিফিট নেয়নি। অসংখ্য মানুষের উপকার সে করেছে। আমাদের দিয়ে করিয়েছে মানবতার জায়গা থেকে।

তিনি আরও বলেন, মামুন খুব বেশী আয়ু পায়নি। ৩৩ বছর খুব বেশী আয়ু নয়। কিন্তু আদর্শিক জায়গা থেকে মামুনের জীবন ও কর্ম আমাদের অনেক কিছু শিখিয়ে দিয়ে যায়।

শোকসভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- সংসদ সদস্য অনুপম শাহজাহান জয়, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সদস্য এসএম কামাল হোসেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এসএস জাকির হোসেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতি রেজানুল জক চৌধুরী শোভন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শারমিন সুলতানা লিলি, সাবেক দফতর সম্পাদক নাসিম আল মোমিন, সাবেক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি আবিদ আল হাসান, সাবেক ছাত্রনেতা শাহাদাত হোসেন সুজন, দৈনিক প্রথম আলোর সিনিয়র রিপোর্টার রাজীব আহমেদ, রিপোর্টার রিয়াদুল করিম, সহপাঠী রুহিনা তাসকিন প্রমুখ।

আআ//এসএইচ/



© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি