ঢাকা, রবিবার   ২৫ আগস্ট ২০১৯, || ভাদ্র ১১ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

রুদ্ধশ্বাস মুহূর্তে মুশফিককেই মনে পড়েছিলো স্টোকসের!

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৮:২৪ ১৬ জুলাই ২০১৯ | আপডেট: ১৯:০২ ১৬ জুলাই ২০১৯

সদ্য সমাপ্ত বিশ্বকাপের শ্বাসরুদ্ধকর ফাইনালে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথমবারের মতো শিরোপা ঘরে তুললো ইংল্যান্ড। যেটা অর্জন করতে ক্রিকেটের জনক দেশটির সময় লেগেছে ৪৪ বছর! আর ক্রিকেট বিশ্ব নতুন কোন চ্যাম্পিয়ন পেলো ২৩ বছর পর।

ম্যাচটিতে কিউইদের দেওয়া ২৪২ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করে শেষ ওভারের থ্রিলারে টাই করেন ইংলিশ অলরাউন্ডার বেন স্টোকস। যেখানে শেষ দুই বলে জয়ের জন্য ইংলিশদের প্রয়োজন ছিল মাত্র তিন রান। সেই মুহূর্তে মাঠে দাঁড়িয়ে টাইগার ডিপেন্ডেবল ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিমের কথা মনে পড়েছিল বেন স্টোকসের! 

রুদ্ধশ্বাস সে ম্যাচ শেষে স্টোকস বলেন,‘শেষ বলের আগে আমার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশ-ভারতের ম্যাচের কথা মনে পড়ছিলো।’কিন্তু কেন মনে পড়েছিলো তাঁর? 

হ্যাঁ, তখন স্টোকসের ওই ম্যাচের কথা মনে পড়েছিলো এই কারণে যে, ২০১৬ সালের সেই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচটিও এমন রোমাঞ্চ ছড়িয়েছিল। ম্যাচের শেষ তিন বলে বাংলাদেশ দলের প্রয়োজন ছিলো মাত্র দুই রানের। কিন্তু হার্দিক পান্ডিয়ার ওভারের চতুর্থ বলে ছক্কা হাঁকিয়ে ম্যাচ শেষ করতে গিয়ে শিখর ধাওয়ানের হাতে ক্যাচ তুলে দেন মুশফিকুর রহিম। পরের বলে মাহমুদুল্লাহও একই কাজ করেন। ক্রিজে এসেই ক্যাচ তুলে দেন রবীন্দ্র জাদেজার হাতে।

আর শেষ বলে মোস্তাফিজুর রহমান রান আউট হলে নিশ্চিত জেতা ম্যাচটাই যে হেরে বসে বাংলাদেশ। রোববার নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও শেষ দুই বলে ইংল্যান্ডের জয়ের জন্য ৩ রানই দরকার ছিলো ইংলিশদের। সে পরিস্থিতি নিয়ে স্টোকস বলেন,‘তখন আমি ছক্কা হাঁকিয়ে হিরো হওয়ার চেষ্টা করিনি। চাইছিলাম এক রান নিয়ে ম্যাচকে সুপার ওভার পর্যন্ত নিতে। তখন আবেগ অনেক বেশি কাজ করছিলো।’
উত্তেজনাকর সে ফাইনালে ব্যাট হাতে ৯৮ বলে ৮৪ রানের ইনিংস খেলেন বেন স্টোকস। সুপার ওভারেও তিন বলে ৮ রান করেন তিনি। দুর্দান্ত ব্যাটিং নৈপূর্ণে ম্যাচ সেরাও হয়েছেন কিউই বংশোদ্ভূত এই ইংলিশ অলরাউন্ডার। 

পরিশেষে বিশ্বকাপ জয় নিয়ে স্টোকস বলেন,'সত্যি এটা অবিশ্বাস্য একটা অনুভূতি। সেটা এখনও আছে। আজ (সোমবার) এবং গতকালের (রোববার) যে অনুভুতি, সেটা আমরা সারাজীবন ধরে রাখবো। আমরা যা জিততে চেয়েছি তা পেরেছি। আমরা গত চার বছরে যে পরিশ্রম করেছি তার জন্য ফাইনাল খেলাটা আমাদের প্রাপ্য ছিলো। আমরা যদি কাপটা না জিততাম তাহলে অবশ্যই হাতাশ হতাম।’ 

এনএস/কেআই

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি