ঢাকা, শনিবার   ২৬ নভেম্বর ২০২২

পরিসংখ্যানে এগিয়ে শ্রীলঙ্কা, পারফরমেন্সে টাইগাররা

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১১:৪০, ১৯ জানুয়ারি ২০১৮ | আপডেট: ১১:৪১, ১৯ জানুয়ারি ২০১৮

ত্রিদেশীয় সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে আজ দুপুরে মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কা। এ ম্যাচের উত্তাপ ছড়াচ্ছে যথেষ্ট। এর কারণ পারফরম্যান্সে টাইগার বাহিনী এগিয়ে থাকলেও পরিসংখ্যান বলছে ভিন্ন কথা। দুই দলের মুখোমুখি লড়াইয়ে শ্রীলঙ্কার পাল্লা যথেষ্ঠ ভারী।

পরিসংখ্যান বলছে, দুই দলের মুখোমুখি লড়াইয়ে বাংলাদেশ ৪১ ম্যাচের মাত্র ৫টিতে জয়লাভ করেছে। অন্যদিকে ৩৪ ম্যাচ জিতে লঙ্কানদের আত্নবিশ্বাসও তুঙ্গে। তবে লঙ্কানদের সেই সোনালী দিন আর নেই। গেল বছরটা ছিল লঙ্কানদের জন্য এক বিভীষিকাময় বছর। কয়েকদিন আগে ভারত সফরে ধবল ধোলাইয়ের শিকার হয়েছে দলটি। এর আগে পাকিস্তান, নিউজিল্যান্ডসহ বেশ কয়েকটি বড় দলের সঙ্গে বড় ব্যবধানে হেরেছে দলটি। গত বছর একটি সিরিজও জিততে পারেনি তারা।

এদিকে গেল বছরটা বাংলাদেশের জন্য ছিল সুখকর এক বছর। শুধু নিউজিল্যান্ড সফর বাদ দিলে বাংলাদেশের সাফল্যের পাল্লা ছিল ভারী। এদিকে বর্তমান পারফরমেন্সে টাইগার বাহিনী এগিয়ে থাকলেও অতীত রেকর্ডে লঙ্কানরা অনেক দূর এগিয়ে। শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশ ১৯৮৬ সালে প্রথম মুখোমুখি হয় । ওই ম্যাচে টাইগারদের সাত উইকেটে পরাজিত করে লঙ্কানরা। এরপর টানা ১৫ ম্যাচ হারে টাইগার বাহিনী।

শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে বাংলাদেশ প্রথম জয় পায় দেশের মাটিতে। ২০০৬ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি বগুরা স্টেডিয়ামে শ্রীলঙ্কাকে ৪ উইকেটে হারিয়ে প্রথম জয় পায় বাংলাদেশ। এরপরের ৮ ম্যাচে টাইগাররা লঙ্কানদের বিরুদ্ধে কোন জয় পায়নি। এরপর ২০০৯ সালের ১৪ জানুয়ারি ঢাকা মিরপুর স্টেডিয়ামে লঙ্কানদের ৫ উইকেটে হারিয়ে দ্বিতীয় জয় ছিনিয়ে আনে টাইগার বাহিনী। এরপর টাইগাররা তৃতীয় জয়টি দেশের মাটিতে আনলেও চতুর্থ ও পঞ্চম জয়টি পায় শ্রীলঙ্কার মাটিতে। সর্বশেষ ২০১৭ সালের ২৫ মার্চ টাইগাররা লঙ্কানদের বিরুদ্ধে জয় পায়।

এদিকে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের বর্তমান পারফরমেন্স ভাল হলেও দুই দলের সর্বশেষ মোকাবেলায় টাইগারদের ৭০ রানে পরাজিত করে লঙ্কানরা। ২০১৭ সালের ১ এপ্রিল কলম্বোতে টাইগারদের ৭০ রানে পরাজিত করেছে। বাংলাদেশের ব্যাটিং বিপর্যয়ের কারণেই ওই ম্যাচে লঙ্কানরা জয় লাভ করেছিল।


সুত্র: ক্রিকইনফো
এমজে/


Ekushey Television Ltd.

© ২০২২ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি