ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৯ নভেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ৬ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

শেষটা ভালো হলো না টাইগারদের

নাজমুশ শাহাদাৎ

প্রকাশিত : ২১:২১ ৭ নভেম্বর ২০১৯

লিটন ও নাঈম

লিটন ও নাঈম

ইতিহাস গড়ার স্বপ্ন নিয়েই ভারতের মুখোমুখি বাংলাদেশ। ভারতের মাটিতে তাদেরকেই হারিয়ে টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতে ফিরতে চায় টাইগাররা! সেই লক্ষ্যে বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) রাজকোটে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো করলেও শেষ ভালো না হওয়ায় স্বাগতিকদেরকে ১৫৪ রানের লক্ষ্য দিয়েছে মাহমুদউল্লাহর দল। 

এদিন সৌরাষ্ট্র ক্রিকেট অ্যাসেসিয়েশনের মাঠে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুভ সূচনাই করেন দুই ওপেনার নাঈম শেখ ও লিটন দাস। তবে ট্রাজিকভাবে দুইবার জীবন পেয়েও তা কাজে লাগাতে পারেননি লিটন দাস। আর নাঈমের পরই ব্যর্থ মনোরথে ফেরেন মুশফিক। তবে অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহর নির্ভরযোগ্য ব্যাটে চড়ে নির্ধারিত ওভারে ছয় উইকেট হারিয়ে শেষ পর্যন্ত বোর্ডে ১৫৩ রান জমা করতে সক্ষম হয় বাংলাদেশ দল।  

শুরুতে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ওভারে ছয় রান পেলেও দ্বিতীয় ওভারের প্রথম তিন বলে তিন বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ১৪ রান তুলে নেন নাঈম শেখ ও লিটন দাস। ওপেনিং জুটিতে সাত ওভার দুই বলে তোলেন ৬০ রান। 

এরপরই লিটন ট্রাজেডি দেখা যায় বাংলাদেশ ইনিংসের তখন ষষ্ঠ ওভার। প্রথম বল থেকে দুটি রান নিয়ে এক বল পর তৃতীয় বলে যুজবেন্দ্র চাহালকে স্টেপ আউট করে হাঁকাতে যান লিটন। কিন্তু ব্যাটে না হওয়ায় সহজ স্ট্যাম্পিংয়ের শিকার হয়ে মাঠ ছাড়তে উদ্যত হন টাইগার এই ওপেনার। তবে কিছুটা ডাউট থাকায় ফিল্ড আম্পায়ার জানতে চান থার্ড আম্পায়ারের কাছে।
 
টিভি আম্পায়ারের চেকে বলটি ‘নো বল’ হয়ে যায়। ভারতীয় উইকেট কীপারের ভুলে এ যাত্রায় বেঁচে যান লিটন। ঋষভ পান্ট ওই বলটি উইকেটের সামনে থেকে গ্লাভসবন্দী করেন। বার বার রিপ্লে দেখেই নো-বলের সিদ্ধান্ত দেন টিভি আম্পায়ার সুনীল চৌধুরী। যাতে আউট হয়েও নট আউট থেকে যান লিটন। 

এর পরের ওভারেই নিজের মাথার উপরেই ক্যাচ তুলে বেঁচে যাওয়া লিটন লম্বা করতে পারেননি নিজের ইনিংসকে। শেষ পর্যন্ত রিস্কি রান নিতে গিয়ে আউট হয়ে ফেরেন অষ্টম ওভারে। আউট হওয়ার আগে করেন ২১ বলে চারটি চারে ২৯ রান। 

লিটন আউট হওয়ার পর দলের স্কোরে ২৩ রান যোগ করে ফেরেন আরেক ওপেনার নাঈম। অভিষেক ম্যাচে ২৬ রান করা ওপেনার মোহাম্মদ নাঈম এদিনও ভালো খেলতে থাকেন। তবে একদশতম ওভারে ওয়াশিংটন সুন্দরকে হাঁকাতে গিয়ে আগের দিনের মতই আউট হন এই বাঁহাতি। তার আগে ৩১ বলে পাঁচটি চারে ৩৬ রান করেন তিনি। 

এরপরই ঘটে বিপর্যয়। আগের ম্যাচের নায়ক মুশফিক আজ ফিরেছেন মাত্র ৪ রান করে। ফলে ৯৭ রানেই তৃতীয় উইকেট হারায় টাইগাররা। এরপরই অনেকটা লিটনের মতই স্ট্যাম্পিংয়ের শিকার হন ইনফর্ম সৌম্য সরকার। টিভি আম্পায়ারও দেখে প্রথমে নট আউট দিলেও দ্রুতই তা চেঞ্জ করে আউট ডিক্লেয়ার করেন। ফলে আর মাঠে ফেরা হয়নি সাজঘরের পথে থাকা সৌম্যের। তার আগে ২০ বলে দুই চার ও এক ছক্কায় খেলেন ৩০ রানের ইনিংস। ফলে ১০৩ রানেই সফরকারীদের পতন ঘটে চতুর্থ উইকেটের। 

পরে মাহমুদুল্লাহর ২১ বলে চার বাউন্ডারিতে করা ৩০ রানের সুবাদে দেড়শ পেরোই বাংলাদেশ। ভারতীয় বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের সামনে আর কেউই দাঁড়াতে না পারলে ব্যাটিং পারাডাইসে শেষটা ভাল না হওয়ায় ৬ উইকেট হারিয়ে ১৫৫ রান তুলতে পারে বাংলাদেশ।

এর আগে সন্ধ্যা ৭টায় শুরু হওয়া ভারত-বাংলাদেশ সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচে টস জিতে বাংলাদেশকে আগে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানিয়েছে ভারত।
 
এদিকে ভারতের কাছে আজ যে মরণ-বাঁচন ম্যাচ তা আর নতুন করে বলে দিতে হয় না। জেতার জন্য মরিয়া হয়ে রয়েছে রোহিত শর্মার ভারতীয় দল। অন্যদিকে, ভাঙাচোরা দল নিয়ে এসেও প্রথম ম্যাচে জয় পেয়ে আত্মবিশ্বাসে ভরপুর বাংলাদেশ দল। 

বাংলাদেশের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ বলেছেন, ভারতীয় দল জেতার জন্য মরিয়া হয়ে রয়েছে জানি। তবে আমরাও জিততে কোনও চেষ্টা বাদ রাখব না। রাজকোটের সৌরাষ্ট্র ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন স্টেডিয়ামে আজকের ম্যাচ ঘিরে উত্তেজনায় ফুটছেন ক্রিকেটপ্রেমীরা।

প্রথম ম্যাচে দিল্লির অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামে বাংলাদেশকে জয়ের রাস্তা দেখিয়েছিলেন মুশফিকুর রহিম। বাংলাদেশের অধিনায়ক ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছেন দ্বিতীয় ম্যাচে দলে পরিবর্তনের সম্ভাবনা কম। অর্থাৎ, উইনিং কম্বিনেশন ভাঙতে চায় না তারা।
 
অন্যদিকে, ভারতীয় দলে পরিবর্তনের ইঙ্গিত পাওয়া গেলেও শেষ পর্যন্ত অপরিবর্তনিয় দল নিয়েই মাঠে নামছেন ভারতীয় অধিনায়ক রোহিত শর্মা। এ ম্যাচে তিনি যে জয়ের জন্য সর্বশক্তি দিয়ে ঝাঁপাবেন তা বলাবাহুল্য। 

এনএস/

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি