ঢাকা, শুক্রবার   ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ২৯ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

জোড়া ধাক্কা সামলে বড় লক্ষ্যে এগোচ্ছে ভারত

একুশে টেলিভিশন

প্রকাশিত : ১৩:০৪ ১৫ নভেম্বর ২০১৯ | আপডেট: ১৫:০৮ ১৫ নভেম্বর ২০১৯

মায়াঙ্ক আগারওয়াল ইন অ্যাকশন

মায়াঙ্ক আগারওয়াল ইন অ্যাকশন

সকালের ধাক্কা সামলে বড় ইনিংসের পথে ভারত। ইন্দোরে অনুষ্ঠিত প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় দিনের তৃতীয় সেশনে (চা বিরতির পর) মায়াঙ্ক আগারওয়াল ও আজিঙ্কা রাহানের জুটিতে তিন উইকেটে ৩০৩ রান তুলেছে টিম ইন্ডিয়া। অবিচ্ছিন্ন চতুর্থ উইকেটে ১৮৪ রান যোগ করেছেন দু’জনে। যাতে ইতিমধ্যে ১৫৩ রানের লিড নিয়েছে স্বাগতিকরা। 

স্বাগতিকদের এ লিড নেয়ার সঙ্গে সঙ্গে নিজের অষ্টম টেস্টেই আরেকটি (তৃতীয়) সেঞ্চুরি পূরণ করেছেন মায়াঙ্ক আগরওয়াল, খেলছেন ১৫৬ রান নিয়ে। তার ইনিংসে রয়েছে ২১টি চার ও ৩টি ছয়ের মার। আর তার সঙ্গী আজিঙ্কা রাহানে খেলছেন ৮২ রানে। এখন পর্যন্ত ৮টি বাউন্ডারি মেরেছেন তিনি। 

এর আগে শুক্রবার সকালে ইন্দোর টেস্টে বাংলাদেশকে ম্যাচে ফিরিয়েছিলেন আবু জায়েদ। শুক্রবার সকালে তিনি দ্রুত আউট করেছিলেন চেতেশ্বর পূজারা ও বিরাট কোহলিকে। ভারতের ইনিংসের প্রথম তিন উইকেটই ২৬ বছর বয়সি ডান-হাতি পেসারের শিকার। তার বলে ক্যাচ পড়লেও মনোবল হারাননি জায়েদ। বরং তার লড়াকু বোলিংই উত্তেজনা আমদানি করেছিল ম্যাচে। 

শুক্রবার সকালে এক উইকেটে ৮৬ নিয়ে শুরু করেছিল ভারত। বাংলাদেশের থেকে ৬৪ রান পিছনে ছিল তারা। চেতেশ্বর পূজারা ব্যাট করছিলেন ৪৩ রানে। মায়াঙ্ক আগরওয়াল অপরাজিত ছিলেন ৩৭ রানে। খেলা শুরুর পর এ টেস্টে প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে হাফ সেঞ্চুরি করেও দ্রুত ফিরলেন চেতেশ্বর পূজারা। 
বাংলাদেশের বিরুদ্ধে প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় দিন সকালে আক্রমণাত্মক মেজাজে শুরু করেছিলেন তিনি। আবু জায়েদের ওভারে দুটো বাউন্ডারিসহ ১০ রান নেয়ার মধ্যেই পরিষ্কার ছিল, আগ্রাসী মেজাজেই থাকতে চাইছেন তিনি। ৬৮ বলে নয়টি চারের সাহায্যে অর্ধশতরান পূর্ণ করার পরই ফিরতে হল তাকে। 

আবু জায়েদের বলেই গালিতে ক্যাচ দিলেন পূজারা (৫৪)। তার পরই ফিরলেন বিরাট কোহলি। কোনও রান না করেই এলবিডব্লিউ হলেন ভারত অধিনায়ক। ফিল্ড আম্পায়ার আউট না দিলে রিভিউ নিয়েছিল বাংলাদেশ। তাতে দেখা যায়, বল লেগস্টাম্পে লাগছে। ফলে শূন্য হাতেই ফিরতে হয় বিরাটকে। 

এর আগে বৃহস্পতিবার টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ১৫০ রানে গুটিয়ে গিয়েছিল বাংলাদেশ। শুরু থেকেই ভারতীয় পেসাররা দুর্দান্ত সুইংয়ের নিদর্শন রেখেছিলেন। মোহাম্মদ শামি, উমেশ যাদব ও ইশান্ত শর্মার সামনে দিশেহারা দেখাচ্ছিল টাইগার ব্যাটসম্যানদের। সর্বোচ্চ ৪৩ রান আসে মুশফিকের ব্যাট থেকে। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৭ রান করেন ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মুমিনুল হক। 

এর মধ্যে তিন উইকেট নিয়ে সফলতম বোলার হলেন শামি। উমেশ ও ইশান্ত নেন দু’টি করে উইকেট। অফস্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিনও নেন গুরুত্বপূর্ণ দুই উইকেট।

এনএস/

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি