ঢাকা, শনিবার   ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯, || অগ্রাহায়ণ ২৩ ১৪২৬

Ekushey Television Ltd.

যৌন হয়রানি বন্ধসহ ৮ দাবিতে 

বাগেরহাটে ম্যাটস শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ-ভাঙচুর

বাগেরহাট প্রতিনিধি

প্রকাশিত : ২২:৩৩ ১৮ নভেম্বর ২০১৯

বাগেরহাটে ম্যাটস শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

বাগেরহাটে ম্যাটস শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

যৌন হয়রানি বন্ধসহ ৮ দফা দাবিতে বিক্ষোভ করার সময় প্রশাসনিক ভবনের বিভিন্ন আসবাবপত্র ভাঙচুর করেছে বাগেরহাট মেডিকেল এ্যাসিস্ট্যান্ট স্কুলের (ম্যাটস) ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। সোমবার (১৮ নভেম্বর) বিকেল থেকে শহরের মুনিগঞ্জস্থ ম্যাটস ক্যাম্পাসে একাডেমিক ও প্রশাসনিক ভবনের সামনে জড় হয়ে আন্দোলন শুরু করে শিক্ষার্থীরা। যা রাত সাড়ে ৯টা পর্যন্ত চলে। 

শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো হচ্ছে- প্রতিষ্ঠানের স্টাফ কর্তৃক যৌন হয়রানি বন্ধ করাসহ এর বিচার করা, স্টাফদের দিয়ে পরীক্ষার হলে গার্ড দেয়া বন্ধ করা, অধ্যক্ষের অনুমতি ছাড়া পুরুষ স্টাফরা ছাত্রীদের হোস্টেলে প্রবেশ করতে পারবে না, ক্যাম্পাসের ভিতরে চাঁদাবাজী ও বহিরাগত লোক প্রবেশ করতে পারবে না, প্রতিষ্ঠানের উচ্চমান সহকারী শেখ মহিউদ্দিন, ভান্ডার রক্ষক খান ফয়সাল রাতুল, অফিস সহায়ক মোঃ বাবুল হোসেন, বাবুর্চী আবু হানিফ ও নৈশ প্রহরী আব্দুল হামিদকে বহিস্কারসহ শিক্ষার্থীদের ন্যায্য অধিকার বাস্তবায়ন। 

শিক্ষার্থীদের এসব দাবি মানা না হলে অধ্যক্ষের পদত্যাগের জন্যও আন্দোলনের ঘোষণা দেয় শিক্ষার্থীরা।

এদিকে শিক্ষার্থীদের দাবির সঙ্গে সম্মতি জ্ঞাপন করে অভিযোগের তদন্ত করতে ৪ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন কলেজের অধ্যক্ষ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক ডা. মোঃ আব্দুর রকিব। এই কমিটিকে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে অভিযোগের বিষয়ে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

শিক্ষার্থী ইমামুল ফরাজী হৃদয়, জহিরুল তালুকদার, ফাহাদ ইবনে ফারুক, ইতু, অনু, ঐশি জানায়, দীর্ঘদিন ধরে কলেজের স্টাফরা তাদেরকে নানাভাবে অত্যাচার করে আসছে। এমনকি ছাত্রীদের যৌন হয়রানি করছে। অকথ্য ভাষায় গালিগালাজও করেন বিভিন্ন স্টাফরা।

সাবিনা ইয়াসমিন, মেরিনা আক্তার, জ্যোতি দে ও বর্নালী মন্ডল বলেন, যখন তখন পুরুষ স্টাফরা মেয়েদের হোস্টেলে ঢুকে যায়। পরীক্ষার সময় স্টাফরা গার্ড দেয়। মেয়েদেরকে যৌন হয়রানি ও গালিগালাজ করে। শিক্ষার্থীদের সামনে সিগারেট খাওয়াসহ নানা অনিয়ম ও অন্যায় করে আসছে। এসব বিষয় অধ্যক্ষকে জানাতে গেলে তার কক্ষে ঢুকতে দেয়না দায়িত্বরত স্টাফরা। 

এছাড়া ভাইভা পরীক্ষায় ফেল করানোরও ভয় দেখায় স্টাফরা। আমরা উচ্চমান সহকারী শেখ মহিউদ্দিন, ভান্ডার রক্ষক খান ফয়সাল রাতুল, অফিস সহায়ক মোঃ বাবুল হোসেন, বাবুর্চী আবু হানিফ ও নৈশ প্রহরী আব্দুল হামিদের বহিস্কারসহ সকল অন্যায়ের বিচার চাই। দাবি মানা না হলে অধ্যক্ষের পদত্যাগের জন্য আন্দোলনের ঘোষণা দেন শিক্ষার্থীরা। 

বাগেরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহতাব উদ্দিন বলেন, ম্যাটস-এ খুব হইচই হচ্ছে। খবর পেয়ে গেটের সামনে আসি। রাতে অধ্যক্ষের ফোন পেয়ে পুলিশ ফোর্স নিয়ে ভিতরে প্রবেশ করি। শিক্ষার্থীদের বোঝাবার চেষ্টা করি। আমরা চেষ্টা করছি অধ্যক্ষ ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার।

অধ্যক্ষ ডা. মোঃ আব্দুর রকিব বলেন, শিক্ষার্থীরা এসব অভিযোগের বিষয়ে আগে কখনও বলেনি। আজ তারা লিখিতভাবে অভিযোগ দিয়েছে। শিক্ষার্থীদের দাবি ও অভিযোগের প্রেক্ষিতে আমরা ৪ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। শিক্ষার্থীদের সকল ন্যায্য দাবি মেনে নেয়া হবে।

এনএস/

© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি