ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ৭:২৩:৪৯

মৃত্যু থেকে রক্ষা পেল ১৫ কেজি ওজনের অজগর

মৃত্যু থেকে রক্ষা পেল ১৫ কেজি ওজনের অজগর

নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা পেলো ১৫ কেজি ওজনের একটি অজগর। এলাকাবাসী জড়ো হয়ে সাপটিকে মারতে উদ্ধত হয়েছিল। কিন্তু সাপটিকে আঘাত করার আগমুহুর্তে ঘটনাটি জানতে পারে বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশন। ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় শেষ পর্যন্ত সাপটিকে উদ্ধার করা হয়। জানা গেছে, শনিবার (২০ অক্টোবর) দুপুরে অজগর সাপটিকে উদ্ধার করে শ্রীমঙ্গলের বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনে নিয়ে আসা হয়। এখন সাপটি স্বাভাবিক অবস্থায় আছে। বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনের পরিচালক সজল দেব বলেন, ইছবপুর এলাকায় হঠাৎ একটি অজগর সাপ দেখতে পেয়ে লোকজন জড়ো হয় সাপটিকে মারার জন্য। পরে ঘটনাস্থল থেকে পশ্চিম ভাড়াউড়ার জনৈক হান্নান নামে একজন আমাকে খবর দিলে আমি গিয়ে প্রাপ্তবয়স্ক এ অজগর সাপটিকে উদ্ধার করে নিয়ে আসি। প্রশান্ত দেবের বাড়িতে পাওয়া সাপটি ১২ ফুট লম্বা ও ১৫ কেজি ওজনের বলেও জানান তিনি। প্রয়োজনীয় খাবার দিয়ে কিছুদিন পর্যবেক্ষণে রেখে তারপর সাপটিকে পুনরায় বনে ফিরিয়ে দেওয়া হবে বলে জানান সজল দেব। আরকে//
মৃত সাপ নড়ে উঠল হাসপাতালে এসে  

মৃত সাপ নড়ে উঠল হাসপাতালে এসে। কি অবাক হচ্ছেন? ঘটনা কিন্তু নির্ভেজাল, সত্যি।  আজ শনিবার এ ঘটনা ঘটেছে  কিশোরগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতালে। হাসপাতাল সুত্রে জানা গেছে, আজ শনিবার বেলা ১১টায় হাসপাতালের মেডিসিন ওয়ার্ডে সাপের কামড়ে আহত এক রোগীকে ভর্তি করা হয়। ওই রোগীর নাম জামান মিয়া। তার বাড়ি জেলার নীলগঞ্জ এলাকায়।  কিছুক্ষণ পর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎস এগিয়ে এসে বিস্তারিত জানতে চাইলেন জামান ও তার স্বজনদের কাছে।  রোগী ও তাঁর স্বজনরা জানান, ঘরঘিন্নী সাপটি তাদের কামড়েছে। কামড় দেওয়ার পর সাপটিকে মেরে ফেলা হয়। সেই সাপটিকে তারা একটি ব্যাগে ভরে সঙ্গে করে নিয়ে আসেন হাসপাতালে। ডাক্তার সাপটি কোন প্রজাতির দেখতে চাইলে রোগীর স্বজনরা পলিথিন থেকে এটিকে হাসপাতালের ফ্লোরে রাখেন। মৃত ভাবা সাপটাকে ফ্লোরে রাখতেই  এটি চতুর্দিতে ছোটাছুটি শুরু করে দেয়। যার ফলে ওয়ার্ডে থাকা অসুস্থ রোগীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক। সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালের লোকজন মিলে সাপটিকে মেরে ফেলে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে কিশোরগঞ্জ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক ডা. নাজমুল হুদা জানান, রোগীর স্বজনরা যখন বললেন যে, সাপটিকে তারা মেরে সঙ্গে করে নিয়ে এসেছেন। আমি সাপটির প্রজাতি জানতে চাই। তাঁরা সাপটিকে পলিথিন থেকে বের করে। তারপর যে অবস্থা তৈরী হয়, এতে রোগীদের পাশাপাশি আমিও আতঙ্কগ্রস্থ হয়ে পড়ি। রোগীর অবস্থার কী জানতে চাইলে ডাক্তার জানান, রোগী সুস্থ আছেন। শঙ্কা কেটে গেছে। / এআর / 

এলএনজিতে চট্টগ্রামে বেড়েছে শিল্প উৎপাদন

এলএনজি সরবরাহের কারণে প্রাণ ফিরে পেতে শুরু করেছে চট্টগ্রামের শিল্প-কলকারখান। বেড়েছে বিদ্যুৎ উৎপাদন। ব্যবসায়ীরা বলছেন, তরল এই প্রকৃতিক গ্যাস সরবরাহ বেড়ে যাওয়ায় চট্টগ্রামে শিল্প বিনিয়োগ আরো বাড়বে, কমবে ভোগান্তি। বন্দর নগরী চট্টগ্রামে গ্যাসের চাহিদা প্রতিদিন প্রায় ৪৭০ মিলিয়ন ঘনফুট। বিপুল পরিমাণ এই চাহিদার বিপরীতে কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেড-কেজিডিসিএল সরবরাহ করতো গড়ে দৈনিক ২৭০ থেকে ৩০০মিলিয়ন ঘন ফুট। পর্যাপ্ত গ্যাসের সরবরাহ না থাকায় বন্ধ হয়ে যায় গ্যাস নির্ভর বিভিন্ন শিল্প কলকারখানাসহ বিভিন্ন বিদ্যুত কেন্দ্র। আগ্রহ হারিয়ে ফেলে দেশী বিদেশী বিনিয়োগকারীরা। সংকট মোকাবেলায় শুরু হয় এলএনজি আমদানী। গত ১৮ই আগস্ট থেকে শুরু হয়েছে  পাইপলাইনে গ্যাস সরবরাহ। গড়ে প্রতিদিন সরবাহ করা হচ্ছে প্রায় তিনশ’ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস। এলএনজি আমদানীর ফলে গ্রাহকদের চাহিদা অনুযায়ী গ্যাস সরবাহ করা যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন কেজিডিসিএল কর্মকর্তারা। বাড়তি গ্যাস জাতীয় গ্রীডে সরবরাহ করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

আশ্রয়ণ প্রকল্পে ঘর প্রতি চাঁদা আদায়ের অভিযোগ(ভিডিও)

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে আশ্রয়ণ প্রকল্পে ঘর প্রতি ১০ হাজার করে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। গৃহহীনদের এসব ঘর বিনামূল্যে বরাদ্দ দেয়ার কথা। ভুক্তভোগিরা বলছে, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্য টাকা নিয়েছেন। কিন্তু এক বছরেও ঘর পায়নি অনেকে। ‘জমি আছে ঘর নাই’ এমন পরিবারগুলোর আবাসন নিশ্চিত করতে ভৈরবের শিমুলকান্দি ইউনিয়নে হচ্ছে প্রকল্প। এর অধীনে ৩৪৮টি পরিবারের ঘর নির্মাণের জন্য বরাদ্দ দেয়া হয় ৩ কোটি ৫৬ লাখ টাকা। বিনামূল্যে এসব ঘর নির্মাণের কথা থাকলেও প্রত্যেক পরিবারের কাছ থেকে নেয়া হয় টাকা। ভুক্তভোগিদের অভিযোগ শিমুলকান্দির ইউপি চেয়ারম্যান জুবায়ের এবং সদস্য আসিরকে টাকা দিয়েছেন তারা। ভুক্তভোগিদের অনেকে বলছেন, শুরুর দিকে তালিকা দেয়া হলেও  এখনো ঘর পায়নি। টাকা নেয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন স্থানীয় চেয়ারম্যান ও সদস্য। অভিযোগ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়েছে প্রশাসন। এ বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া দাবি ভুক্তভোগিদের।  

মহেশখালী-কুতুবদিয়াকে দ্রুত দস্যুমুক্ত করা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, দ্রুত সময়ে মহেশখালী-কুতুবদিয়াকে দস্যুমুক্ত করা হবে। তাই যারা এখনও দস্যুতা ছেড়ে ফিরে আসেননি, তাদের দ্রুত ফিরে আসার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। শনিবার বেলা ১১ টায় কক্সবাজারের মহেশখালীতে আত্মসমর্পণ করেছেন ৫টি জলদস্যু ও সন্ত্রাসী বাহিনীর সদস্যরা। এ উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সেখানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসলে দস্যুদের সহযোগিতা করা হবে। একই অনুষ্ঠানে র‍্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) বেনজীর আহমেদ হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, দস্যুদের কোনও ছাড় দেওয়া হবে না। প্রসঙ্গত, আজ শনিবার মহেশখালী দ্বীপের তালিকাভুক্ত অর্ধশত জলদস্যু আত্মসমর্পণ করছে। তাদের মধ্যে অস্ত্র তৈরিতে দক্ষ কয়েকজন কারিগরও রয়েছে। দ্বিতীয় ধাপে আরও অনেক জলদস্যু আত্মসমর্পণ করতে এগিয়ে আসবে বলে জানিয়েছে সূত্র। সূত্র জানিয়েছে, কক্সবাজারের উপকূলীয় এলাকাজুড়ে রয়েছে একাধিক সন্ত্রাসী বাহিনীর শত শত সশস্ত্র সদস্য। গত দুই বছরে মহেশখালীর পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে অন্তত ১৫টি অস্ত্রের কারখানা গুঁড়িয়ে দিয়েছে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা। উদ্ধার করেছে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও অস্ত্র তৈরির সরঞ্জাম। তবুও থেমে নেই অস্ত্র তৈরি। একদিকে গুঁড়িয়ে দিলে অন্যদিকে পাহাড়ের নির্জন গুহায় ফের গড়ে তোলা হয় নতুন কারাখানা। হাত বাড়ালেই এখানে পাওয়া যায় দেশে তৈরি বন্দুক, শটগান কার্তুজ ইত্যাদি আগ্নেয়াস্ত্র। এখানে একটি শটগানের দাম মাত্র ৫০০ থেকে ১০০০ টাকা। লম্বা বন্দুক পাওয়া যায় ১৩০০ থেকে ২০০০ টাকায়। এই অবস্থায় নতুন কৌশল গ্রহণ করে র‌্যাব। বুঝিয়ে-শুনিয়ে দ্বীপের দস্যু বাহিনীকে আত্মসমর্পণ করানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়। ফলে সম্প্রতি সুন্দরবনের পর এখানে বিপুল অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে একাধিক সন্ত্রাসী বাহিনীর অন্তত অর্ধশতাধিক সদস্য র‌্যাবের হাতে আত্মসমর্পণ করে স্বভাবিক জীবনে ফিরতে যাচ্ছেন। জানা গেছে, সম্প্রতি যমুনা টেলিভিশনের বিশেষ প্রতিনিধি মহসিন-উল হাকিম ও চ্যানেল ২৪-এর স্টাফ রিপোর্টার আকরাম হোসেনের মধ্যস্থতায় প্রথম দফায় এসব সন্ত্রাসী র‌্যাবের কাছে আত্মসমর্পণে সম্মত হয়েছেন। একে//

কক্সবাজারে ৫টি জলদস্যু ও সন্ত্রাসী বাহিনীর আত্মসমর্পণ

কক্সবাজারের মহেশখালীতে ৫টি জলদস্যু ও সন্ত্রাসী বাহিনী আত্মসমর্পণ করেছে। শনিবার বেলা ১১ টায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের কাছে অস্ত্র জমা দিয়েছেন তারা। র‌্যাব-৭ কক্সবাজার ক্যাম্পের কোম্পানি অধিনায়ক মেজর মেহেদী হাসান জানান, প্রথম ধাপে আজ মহেশখালী দ্বীপের তালিকাভুক্ত অর্ধশত জলদস্যু আত্মসমর্পণ করছে। তাদের মধ্যে অস্ত্র তৈরিতে দক্ষ কয়েকজন কারিগরও রয়েছে। আশা করছি, দ্বিতীয় ধাপে আরও অনেক জলদস্যু আত্মসমর্পণ করতে এগিয়ে আসবে। সূত্র জানিয়েছে, কক্সবাজারের উপকূলীয় এলাকাজুড়ে রয়েছে একাধিক সন্ত্রাসী বাহিনীর শত শত সশস্ত্র সদস্য। গত দুই বছরে মহেশখালীর পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে অন্তত ১৫টি অস্ত্রের কারখানা গুঁড়িয়ে দিয়েছে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা। উদ্ধার করেছে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও অস্ত্র তৈরির সরঞ্জাম। তবুও থেমে নেই অস্ত্র তৈরি। একদিকে গুঁড়িয়ে দিলে অন্যদিকে পাহাড়ের নির্জন গুহায় ফের গড়ে তোলা হয় নতুন কারাখানা। হাত বাড়ালেই এখানে পাওয়া যায় দেশে তৈরি বন্দুক, শটগান কার্তুজ ইত্যাদি আগ্নেয়াস্ত্র। এখানে একটি শটগানের দাম মাত্র ৫০০ থেকে ১০০০ টাকা। লম্বা বন্দুক পাওয়া যায় ১৩০০ থেকে ২০০০ টাকায়। এই অবস্থায় নতুন কৌশল গ্রহণ করে র‌্যাব। বুঝিয়ে-শুনিয়ে দ্বীপের দস্যু বাহিনীকে আত্মসমর্পণ করানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়। ফলে সম্প্রতি সুন্দরবনের পর এখানে বিপুল অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে একাধিক সন্ত্রাসী বাহিনীর অন্তত অর্ধশতাধিক সদস্য র‌্যাবের হাতে আত্মসমর্পণ করে স্বভাবিক জীবনে ফিরতে যাচ্ছেন। জানা গেছে, সম্প্রতি যমুনা টেলিভিশনের বিশেষ প্রতিনিধি মহসিন-উল হাকিম ও চ্যানেল ২৪-এর স্টাফ রিপোর্টার আকরাম হোসেনের মধ্যস্থতায় প্রথম দফায় এসব সন্ত্রাসী র‌্যাবের কাছে আত্মসমর্পণে সম্মত হয়েছেন। স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে যাওয়া এসব পরিবারের সদস্যের সমাজের মূলধারায় ফিরে আসার সহায়ক হিসেবে রাষ্ট্রের তরফ থেকে বড় উদ্যোগে আর্থিক সহায়তা দেওয়া হবে বলেও সূত্র জানিয়েছে। একে//

যে শিশুর ছবি কাঁদাচ্ছে সবাইকে

সন্তানের জন্য পৃথিবীর সবচেয়ে নিরাপদ আশ্রয়স্থল হলো মায়ের কোল। কিন্তু সেই মা-ই যখন সন্তানের মৃত্যুর কারণ হয় তখন? গতকাল শুক্রবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এমনই এক হৃদয়বিদারক ঘটনা ঘটেছে। মাত্র চারদিন বয়সী নিজের সন্তানকে পাঁচতলা বিশিষ্ট একটি ভবনের ছাদ থেকে ছুঁড়ে ফেলে হত্যা করেছে শিশুটির মা সীমা আক্তার। সেইসঙ্গে তিনি নিজেও ওই ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যা করেছেন। ধারণা করা হচ্ছে, স্বামীর ওপর অভিমান এ ঘটনা ঘটিয়েছেন সীমা। জানা যায, সীমা ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার বাসুদেব ইউনিয়নের ফুলচং গ্রামের মনির মিয়ার স্ত্রী। লেবানন প্রবাসী মনিরের সঙ্গে পারিবারিকভাবে গত এক বছর আগে তার বিয়ে হয়। এদিকে, এ ঘটনার পর ফেসবুকে সীমার শিশু সন্তানের একটি ছবি ভাইরাল হয়ে পড়েছে। ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে- হাসপাতালের সামনের সড়কে পড়ে আছে শিশুটির নিথর দেহ। প্রাণহীন ওই শিশুর দেহ ঘিরে উৎসুক জনতা। হৃদয় বিদারক ওই ছবি দাগ কেটেছে সবার মনে। ছবিটি যেন কাঁদাচ্ছে গোটা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার মানুষকে। অনেকেই শিশুটির ছবি ফেসবুকে পোস্ট করে আবেগাপ্লুত হচ্ছেন। এক সংবাদকর্মী শিশুটির ছবি দিয়ে লিখেছেন, আজ যে শিশুর থাকার কথা ছিল পরম আদরে, বাবা-মায়ের মান-অভিমান তাকে নিয়ে গেল লাশকাটা ঘরে। মা-সন্তানের মৃত্যুর ঘটনায় সদর মডেল থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে। তবে এখনও এ ঘটনার রহস্য উদঘাটন হয়নি। এর আগে শুক্রবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে পৌরশহরের পুরাতন জেল রোডস্থ দি ল্যাব এইড ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও স্পেশালাইজড হাসপাতালের ছাদ থেকে নিজের শিশু সন্তানকে ছুঁড়ে ফেলে দিয়ে হত্যা করেন সীমা। পরে তিনি নিজেও লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যা করেন। প্রসঙ্গত, গত মঙ্গলবার প্রসব বেদনা নিয়ে ল্যাব এইড হাসপাতালের পার্শ্ববর্তী লাইফ কেয়ার শিশু ও জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হন সীমা আক্তার। এদিন রাতেই সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে ছেলে সন্তান প্রসব করেন তিনি। গতকাল শুক্রবার সকালে সীমা ও তার সন্তানের হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু এদিন সাকাল সাড়ে ৮টায় এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন তিনি। একে//

বেনাপোলে মাদক ব্যবসায়ীর গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার

যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানার ছোট আঁচড়া বটতলা নামক স্থান থেকে আবু বাক্কার (৪০) নামে এক মাদক ব্যবসায়ীর গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার সকালে লাশটি উদ্ধার করা হয়। বেনাপোল পোর্ট থানার ওসি শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। নিহত আবু বাক্কার বেনাপোলের দিঘিরপাড় গ্রামের নুর ইসলামের ছেলে। সে একজন মাদক ব্যবসায়ী বলে দাবি পুলিশের। তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। ওসি শেখ আবু সালেহ মাসুদ করিম জানান, শনিবার ভোরের দিকে স্থানীয় কৃষকরা মাঠে কাজ করতে যাওয়ার সময় গুলিবিদ্ধ লাশ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। সেখানে লাশ দেখতে এসে একজন লাশটি সনাক্ত করে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এ ঘটনায় বেনাপোল পোর্ট থানায় একটি মামলা হয়েছে। একে//

জমি দখলের অভিযোগ: আরেক মামলায় ডা. জাফরউল্লাহ

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের চেয়ারম্যান ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বিরুদ্ধে জমি দখল ও চাঁদাবাজির অভিযোগে আবারও আশুলিয়া থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। এদিকে একই অভিযোগে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বিরুদ্ধে আরও একাধিক মামলা দায়ের করার জন্য আশুলিয়া থানায় প্রস্তুতি নিতে দেখা যাচ্ছে ভুক্তভোগীদের।  শুক্রবার সন্ধ্যায় স্থানীয় হাসান ইমাম নামে এক ব্যক্তি একটি মামলা দায়ের করেন। এটি নিয়ে জাফরুল্লাহ চৌধুরী বিরুদ্ধে জমি দখল ও চাঁদাবাজির অভিযোগে দুইটি মামলা দায়ের হলো। এই মামলাগুলোতে অন্যান্য আসামীরা হলেন-গণবিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার দেলোয়ার হোসেন, গণস্বাস্থ কেন্দ্রের পরিচালক সাইফুল ইসলাম শিশির ও আওলাদ হোসেন।  অন্যান্যদের দেখে নিজেও বিচারের আশায় ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে এসেছেন বলে জানান এই ভুক্তভোগী। ভুক্তভোগী ও স্থানীয় বাসিন্দা মো. নাছির উদ্দিন বলেন, আমার পূর্বে আরেকজন একই ধরনের সমস্যা নিয়ে ডা. জাফরউল্লাহ চৌধুরীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন। আমিও ন্যায় বিচারের আশায় আজ থানায় এসে অভিযোগ দায়ের করেছি। আশা করি আমি প্রশাসনের নিকট থেকে ন্যায় বিচার পাবো।  গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। তবে এখানে সরকার বা অন্য কোনও চাপে নয়, স্বাভাবিকভাবে অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত সাপেক্ষই মামলা হচ্ছে বলে দাবি করেন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা।  আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ রিজাউল হক দিপু বলেন, ভুক্তভোগী জমির মালিক নাসির উদ্দির বাদী হয়ে গনস্বাস্থ্য কেন্দ্রের চেয়ারম্যানসহ চারজনের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। একই বিষয়ে ওই ভুক্তভোগী থানায় পূর্বেও সাধারণ ডায়রি করেছিলেন।  উল্লেখ্য, গত সোমবার একই অভিযোগ ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন মোহাম্মদ আলী নামে এক ব্যক্তি। অন্যদিকে, গত বুধবার ভুল চিকিৎসার অভিযোগে গণস্বাস্থ হাসপাতালে ইন্টার্নশিপ চিকিৎসকসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে আশুলিয়া থানায় মামলা হয়। এই মামলাটিসহ তিনটি মামলা দায়ের করা হয়েছে গনস্বাস্থ্যের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে।  একে//

পাবনায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১

পাবনা সদর উপজেলার রাজাপুরে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ টিপু শেখ (৪৫) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। নিহত টিপু শেখ সদর উপজেলার কবিরপুর গ্রামের মৃত আছর উদ্দিনের ছেলে। শনিবার ভোররাতে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।র‌্যাব বলছে- নিহত টিপু শেখ কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে মাদকসহ আটটি মামলা রয়েছে। বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় র‌্যাবের দুই সদস্য আহত হয়েছেন।র‌্যাব-১২ এর পাবনা ক্যাম্পের অধিনায়ক লেফটেনেন্ট কমান্ডার রুহুল আমিন (এক্স বিএন) জানান, পাবনা সদর উপজেলার রাজাপুরে ক্যালিকো কটন মিলের পরিত্যক্ত ভবনে মাদক কারবারিরা অবস্থান করছে- এমন সংবাদের ভিত্তিতে সেখানে অভিযানে যায় র‌্যাবের একটি দল। র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ শুরু করে মাদক কারবারিরা। আত্মরক্ষার্থে র‌্যাবও পাল্টা গুলি ছোড়ে। বেশকিছু সময় গুলিবিনিময় চলার পর একপর্যায়ে পালিয়ে যায় মাদক কারবারিরা। এরপর সেখানে টিপু শেখ নামে একজনকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে পাবনা সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। পরে পরিবারের লোকজন হাসপাতালে গিয়ে টিপু শেখকে শনাক্ত করে।তিনি বলেন, এ ঘটনায় র‌্যাবের দুই সদস্য আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি রিভলবার, ৫ রাউন্ড গুলি ও ৭৭০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়েছে। নিহত টিপু শেখ কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী। তার বিরুদ্ধে মাদকসহ আটটি মামলা রয়েছে।এসএ/    

শীতের সবজির সরবরাহ বাড়লেও দাম কমেনি(ভিডিও)

নিত্য পণ্যের বাজারে শীতের সবজির সরবরাহ বেড়েছে। তবে এখনো কমেনি দামের উত্তাপ। রসুনে দরও বাড়তি। কমেছে পেঁয়াজ এবং আদার ঝাঁজ। চালের দাম কমেছে কেজিতে ২ টাকা । রাজধানীর কারওয়ান বাজার। ছুটির দিনে ক্রেতার ভিড় একটু বেশি। বাজারে শীতের সবজির কমতি নেই। তবে দাম চড়া। প্রতি পিস ফুলকপি ৬০ টাকা, বাঁধাকপি ৪০ আর সিমের কেজি ১শ’২০ টাকা। তবে কমেছে শসার দাম। আর টমেটো ত্রিশ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ১শ’ টাকা কেজি দরে। দেশী ও ভারতীয় পেঁয়াজের দাম কেজিতে কমেছে ৫ টাকা। কেজিতে দশ টাকা বেরে রসুন ৮০এবং আদা ১শ’৪০ টাকা হয়েছে। ভাল মানের মিনিকেটের দাম কেজিতে ২টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে ৫২ থেকে ৫৩ টাকায়। গরুর মাংস ৪৮০, খাসির মাংস সাড়ে ৭শ’৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। ব্রয়লার মুরগি ১২০ টাকা এবং দেশি মুরগি সাড়ে তিনশ’ থেকে চারশ’ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

পটুয়াখালীতে জেলেদের প্রেণোদনা নিয়ে অভিযোগ(ভিডিও)

প্রজনন মৌসুমে ইলিশ ধরা নিষিদ্ধের সময়ে পটুয়াখালীতে সরকারের বিশেষ প্রণোদনা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন প্রকৃত জেলেরা। অভিযোগ, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সহায়তায় মৎস্য বিভাগের তালিকায় অনিয়ম, দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতি করা হয়েছে। ফলে নিষেধাজ্ঞা মেনে জাল গুটিয়ে চরম অভাব-অনটনে অনেক জেলে পরিবার। প্রজনন মৌসুমে ৭ থেকে ২৮ অক্টোবর টানা ২২ দিন ইলিশ ধরা, বাজারজাত ও বিক্রি নিষিদ্ধ করেছে সরকার। নিষেধাজ্ঞা মেনে পটুয়াখালীর জেলেরা গুটিয়ে নিয়েছেন জাল; নোঙর করে রেখেছেন মাছধরা নৌকা ও ট্রলার। জেলার ৮ উপজেলার তেঁতুলিয়া, পায়রা, রামনাবাদ, আগুনমুখা ও সাগরসহ প্রায় ৩০টি নদ-নদীর পাড়ে বসবাসকারী জেলেদের অভিযোগ, নিষিদ্ধের সময়ে ২০ কেজি করে চাল দেয়ার কথা থাকলেও, তারা তা পাচ্ছেন না। কখনো নদীতে জাল ফেলেনি এমনসব মানুষ জনপ্রতিনিধিদের সহায়তায় জেলে তালিকার অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন। তবে স্থানীয় চেয়ারম্যান দায় চাপালেন মৎস্য বিভাগের উপর। জেলে তালিকার গড়মিলের কথা স্বীকার করলেন উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তাও। আর অনিয়ম হলে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস জেলা মৎস্য কর্মকর্তার। মৎস্য বিভাগের হিসেব মতে, জেলায় জেলের সংখ্যা ৬৯ হাজারের মত। তবে চলতি প্রজনন মৌসুমে বিশেষ ভিজিএফ’র আওতায় এসেছেন ৪৫ হাজারের বেশি জেলে।  

দাগনভূঞায় শরীফ ফাউন্ডেশনের বৃত্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত 

টিচার্স ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন ফেনীর উদ্যোগে ও শরীফ ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনায় আয়োজিত বৃত্তি পরীক্ষা শুক্রবার দাগনভূঞার সিন্দুরপুর ইউনিয়নের ফেনী দারুস সুন্নাহ্ মহিলা দাখিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হয়েছে।    ফেনী দারুস সুন্নাহ মহিলা দাখিল মাদ্রাসা সিন্দুরপুর কেন্দ্রটি পরিদর্শন করেন সিন্দুরপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. নুর নবী, দৈনিক আমাদের অর্থনীতি’র ফেনী প্রতিনিধি শাহজালাল ভূঞা, সিন্দুরপুর ইউপি মেম্বার ফোরকান উদ্দিন, এলাহীগঞ্জ মমতাজ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক নুরুল হুদা সুমন, ফেনী দারুস সুন্নাহ মহিলা দাখিল মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত সুপার রহিমা বেগম প্রমুখ। উল্লেখ্য, টিচার্স ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের বৃত্তি পরীক্ষায় ১১টি কেন্দ্রে ১ম শ্রেণি থেকে ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত প্রায় ৫ হাজার ছাত্রছাত্রী অংশ নেয়। এসি   

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি