ঢাকা, শনিবার, ২৬ মে, ২০১৮ ৬:০২:২৪

ভোট দিলেন খালেক-মঞ্জু

খুলনা সিটি করপোরেশন (কেসিসি) নির্বাচনে ভোট দিয়েছেন আওয়ামী লীগের মেয়র পদপ্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক এবং বিএনপি প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু। মঙ্গলবার সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরুর পরপরই তারা নিজ নিজ কেন্দ্রে ভোট দেন। এদিকে, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত মেয়র পদপ্রার্থী মাওলানা মুজ্জাম্মিল হক নগরীর রেভা. পলস্ হাইস্কুল কেন্দ্রে ভোট দেবেন। জাতীয় পার্টির মেয়র পদপ্রার্থী শফিকুর রহমান মুশফিক ভোট দেবেন খুলনা আলিয়া মাদ্রাসা কেন্দ্রে। আর সিপিবির মেয়র পদপ্রার্থী মো. মিজানুর রহমান বাবু ভোট দেবেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ কেন্দ্রে। আমাদের প্রতিনিধি জানিয়েছে, তালুকদার খালেক সোয়া ৮টার দিকে নগরীর পাইওনিয়ার বালিকা বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দেন। অন্যদিকে সকাল ৯টায় রহিমা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দেন বিএনপি প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু। এদিকে ভোটদানশেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে দুই নেতা দুই ধরণের বক্তব্য দিয়েছেন। খালেক জনান, শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট গ্রহণ চলছে। এখন পর্যন্ত কোনও অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যাননি। অন্যদিকে মঞ্জু সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমার এজেন্টদের বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়ার খবর পেয়েছি। এছাড়া বিভিন্ন জায়গায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা হচ্ছে। খবর পেয়েছি ২২, ২৫, ২৯, ৩০ ও ৩১ নম্বর ওয়ার্ডের কোনও কেন্দ্রেই বিএনপি’র এজেন্ট নেই। তাদের বের করে দেওয়া হয়েছে। ৩০টি সেন্টারের খবর পেয়েছি যেখান থেকে আমার পোলিং এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয়েছে। এসব কেন্দ্রে আমার এজেন্টেদের প্রবেশের ব্যবস্থা করতে নির্বাচন কমিশনের কাছে অনুরোধ জানাই।’ তবে তিনি নির্বাচনের শেষ সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করবেন বলে জানিয়েছেন। সিটি কর্পোরেশন সূত্রে জানা গেছে, এবার মোট ভোটার চার লাখ ৯৩ হাজার ৯২ জন। ভোটকেন্দ্র রয়েছে ২৮৯টি। এর মধ্যে দুটি ভোটকেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করা হচ্ছে। এমজে/

খুলনা সিটি নির্বাচন আগামীকাল (ভিডিও)

আগামীকাল খুলনা সিটি নির্বাচন। ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে প্রচার প্রচারণা। সকাল থেকে শুরু হয়েছে নির্বাচনী সামগ্রি বিতরন। নির্বাচন নির্বিগ্নে শেষ করতে আইন- শৃঙ্খলা বাহিনীকে তিনস্তরে সাজানো হয়েছে।  সকাল ১০টায় শুরু হয়েছে প্রিজাইডিং কর্মকর্তার কাছে ব্যালট বাক্স, ব্যালট পেপার সহ নির্বাচনী সামগ্রী বিতরন । পঞ্চমবারের মত অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে খুলনা সিটি  নির্বাচন। এবার ভোটার হয়েছেন চার লাখ ৯৩ হাজার ৯৩ জন, এর মধ্যে পুরষ দুই লাখ ৪৮ হাজার ৯৮৬ আর নারী ভোটার দুই লাখ ৪৪ হাজার ১০৭ জন। নতুন ভোটার প্রায় ৫২ হাজার। ২৮৯টি কেন্দ্রের ১হাজার ৫শত ৬১টি বুথে ভোট গ্রহণ করা হবে। নির্বাচন নির্বিগ্নে সম্পাদন করতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী সহ নির্বাচন কমিশন প্রস্তত। নির্বাচনের দিন ১০ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট সহ থাকছে ৩১জন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট এর নেতৃত্বে স্ট্রাইক ফোর্স, বিজিবিএর সাথে থাকবে ১৬ জন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট। প্রিজাইডিং কর্মকর্তা রয়েছে ২৮৯ জন, সহকারি প্রিজাইডিং কর্মকর্তা ১হাজার ৫শত ৬১ জন । আর থাকছে ৩হাজার ২শত পোলিং অফিসার। ২০১৩ সালে নির্বাচনে ভোটার ছিল চার লাখ ৪০ হাজার ৫৬৬ জন। ভোট দেয় তিন লাখ দুই হাজার ৫১৯ জন। সে নির্বাচনে মনিরুজ্জামান মনি ভোট পান এক লাখ ৮০ হাজার ৯৩ ভোট। তালুকদার আবদুল খালেক পান এক লাখ ১৯ হাজার ৪২২ ভোট। এবারের সিটি নির্বাচনে ভোটারা ১ জন নগর পিতা ও  ৩১ জন সাধারন কাউন্সিলরের পাশাপাশি সংরক্ষিত আসনে ১০ নারী কাউন্সিলর বেছে নেবেন।  

যশোরের পারিবারিক ও বাণিজ্যিক ভাবে টার্কি পালন (ভিডিও)

যশোরের শার্শায় পারিবারিক ও বাণিজ্যিক ভাবে টার্কি পালন শুরু হয়েছে।  অল্প বিনিয়োগ করে বছরের মধ্যেই দ্বিগুণ মুনাফা পাচ্ছেন খামারীরা। বেকারত্ব নিরসনে টার্কি পালন সহায়ক ভুমিকা পালন করছে বলেও মনে করেন স্থানীয়রা। শার্শার দুই যুবক পড়ালেখা শেষ করে টার্কি পালন করে হয়েছেন স্বাবলম্বী। আর তাদের দেখে আরো অনেকেই আগ্রহী হচ্ছেন এখন। টার্কির মাংস চর্বিহীন হওয়ায় পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে জনপ্রিয়। দ্রুত বর্ধনশীল একটি টার্কি বছরে ১২ থেকে ১৫ কেজি ওজন হওয়ায় লাভজনকও। নতুন জন্ম নেয়া বাচ্চা পালন করে মাত্র তিন মাসের মাথায় দ্বিগুণের চেয়েও বেশি দামে বিক্রি করে ভালো মুনাফা পাচ্ছেন খামারীরা। টার্কিদের কলমি, হেলেঞ্চা, সরিষা, পালংসহ বিভিন্ন ধরণের শাক সবজি খাওয়ানো হয়। রোগ বালাই থেকে রক্ষা করতে আড়াই মাস বয়সী টার্কিকে চারটি ভ্যাকসিন দেয়া হয়। টার্কি জ্বর-ঠান্ডা ছাড়া আর কোনো রোগে আক্রান্তও হয় না। তিন বছর আগে লেখাপড়া শেষ করে শার্শার সম্বন্ধকাঠি গ্রামের রাজু হোসেন ও খলিসাখালী গ্রামের সজিব টার্কি পালন শুরু করেন। বর্তমানে অনেকেই আগ্রহী হয়ে উঠেছেন টার্কি পালনে।  লাভজনক হওয়ায় শার্শায় দিন দিন টার্কি পালন প্রসারিত হচ্ছে বলে জানান প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা। বেনাপোল ও শার্শার মানুষ পারিবারিক ও বাণিজ্যিকভাবে টার্কি পালন করে মাংসের চাহিদা পুরণের পাশাপাশি স্বাবলম্বী হচ্ছেন।  

যশোরে তরুণ লীগের নেতাকে বোমা মেরে হত্যা

যশোরে সরকার সমর্থক সংগঠন তরুণ লীগের এক স্থানীয় নেতাকে বোমা মেরে হত্যা করা হয়েছে। কোতোয়ালি থানার ওসি আজমল হুদা জানান, রোববার রাত ১২টার পর শহরের পালবাড়ি ভাস্কর্যের মোড়ে এ হামলার ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও একজন। নিহত মনিরুল ইসলাম (৩৮) পুলিশ লাইন টালিখোলা এলাকার ফজলুর রহমানের ছেলে। আর আহত সন্তোষ ঘোষ (৩৬) পুরাতন কসবা ঘোষপাড়া এলাকার নারায়ণ ঘোষের ছেলে। জেলা যুবলীগের প্রচার সম্পাদক জাহিদ হোসেন মিলন জানান, নিহত মনিরুল জেলা তরুণ লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। আর আহত সন্তোষ যুবলীগ কর্মী। কোতোয়ালির ওসি আজমল হুদা জানান, রাত ১২টার দিকে মনিরুল ও সন্তোষ পালবাড়ি মোড়ে দাঁড়িয়ে কথা বলার সময় সাত থেকে আটজনের একটি দল তাদের দিকে পর পর ছয়টি ককটেল নিক্ষেপ করে। বোমার বিস্ফোরণে মনিরুলের মাথাসহ শরীর ক্ষতবিক্ষত হয়ে যায়। এরপরও সন্ত্রাসীরা তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপায়। সন্তোষ গুরুতর আহত হন বিস্ফোরণে। হামলাকারীরা চলে গেলে স্থানীয়রা দুইজনকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। হাসপাতালের জরুরি বিভাগের দায়িত্বরত চিকিৎসক কল্লোল কুমার সাহা জানান, হাসপাতালে আনার আগেই মনিরুলের মৃত্যু হয়েছে। কল্লোল বলেন, মনিরুলের শরীরে বোমার স্প্লিন্টার এবং ধারালো অস্ত্রের আঘাত ছিল। সন্তোষের অবস্থাও আশঙ্কাজনক। যুবলীগ নেতা জাহিদ হোসেন মিলন বলেন, হতাহত দুজনই জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদারের অনুসারী। এসএইচ/

প্রচারণা শেষ; ভোট গ্রহণ কাল

খুলনা সিটি কর্পোরেশন (কেসিসি) নির্বাচন সফলভাবে সম্পন্ন করতে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। আগামী ১৫ মে মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে চলবে কেসিসি নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। রোববার দিবাগত রাত ১২টায় নির্বাচনে প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা শেষ হয়। এদিকে নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে প্রস্তুত নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এ লক্ষ্যে রোববার থেকে মাঠে বিজিবি নামানো হয়েছে। নির্বাচনে সাড়ে ৯ হাজার পুলিশ, বিজিবি, এপি ব্যাটেলিয়ান, আনসার-ভিডিপি সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। পাশাপাশি থাকবে র্যা বের ৩২টি টহল টিম এবং ৪টি স্টাইকিং ফোর্স। নির্বাচনের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা ও সিটি নির্বাচনের আচরণ বিধিমালা প্রতিপালনের লক্ষ্যে ৩১ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে মাঠে নামানো হয়েছে। তারা কেন্দ্র ভিত্তিক নিজ নিজ অধীক্ষেত্রে দায়িত্বে থাকবেন। রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, খুলনা সিটি কর্পোরেশনে প্রথমবারের মতো মেয়র পদে দলীয় প্রতীকে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এবার মেয়র পদে ৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। তারা হলেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক (নৌকা), বিএনপি মনোনীত প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু (ধানের শীষ), জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী শফিকুর রহমান মুশফিক (লাঙল), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনোনীত প্রার্থী মাওলানা মুজ্জাম্মিল হক (হাত পাখা) ও সিপিবি মনোনীত প্রার্থী মো. মিজানুর রহমান বাবু (কাস্তে)। এছাড়া নগরীর ৩১টি সাধারণ ওয়ার্ডে ১৪৮ জন এবং ১০টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ৩৯ জন কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। খুলনা সিটিতে মোট ভোটার ৪ লাখ ৯৩ হাজার ৯৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ২ লাখ ৪৮ হাজার ৯৮৬ ও নারী ২ লাখ ৪৪ হাজার ১০৭ জন। ভোটকেন্দ্র ১ হাজার ১৭৮টি। প্রিজাইডিং অফিসার, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার ও পোলিং অফিসার রয়েছে ৪ হাজার ৯৭২ জন। কেসিসি নির্বাচনের রিটার্র্নিং কর্মকর্তা মো. ইউনুচ আলী গণমাধ্যমকে জানান, সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন কমিশনের সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। ইতোমধ্যে নির্বাচনের ভোটগ্রহণের জন্য ব্যালট পেপার, সিল, কালিসহ নির্বাচনী মালামাল খুলনায় এসেছে। খুলনা জেলা প্রশাসক মো. আমিন উল আহসান বলেন, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ রয়েছে। রোববার বিকেল থেকে ১৬ প্লাটুন বিজিবি মাঠে নামানো হয়েছে। নির্বাচনে ভোট কেন্দ্র ও নির্বাচনী এলাকায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা এবং নির্বাচনী আচরণ বিধিমালা প্রতিপালন নিশ্চিতকরণে ৩১জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। র্যা ব-৬ এর অধিনায়ক খোন্দকার রফিকুল ইসলাম জানান, নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা মোতাবেক নির্বাচনে র্যা বের ৩২টি টিম দায়িত্ব পালন করবে। যার প্রতিটি টিমে ৮জন সদস্য থাকবে। এছাড়া ৪টি স্টাইকিং ফোর্স থাকবে। এ টিমে ১০ জন করে থাকবে। খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের মুখপাত্র ও অতিরিক্ত উপ-কমিশনার সোনালী সেন বলেন, এ নির্বাচনে সাড়ে ৯ হাজার পুলিশ, বিজিবি, এপি ব্যাটেলিয়ান ও আনসার সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন। এর মধ্যে পুলিশের পাশাপাশি ১৬ প্লাটুন বিজিবি, সাড়ে ৪ হাজার আনসার-ভিডিপি সদস্য থাকবে। ৯শ’ অঙ্গীভূত আনসার-ভিডিপি সদস্য থাকবে। তিনি বলেন, প্রত্যেক ম্যাজিস্ট্রেটের টিমের সঙ্গে একটি করে পুলিশের টিম থাকবে। ৮টি মোটর সাইকেল টিম এবং ১১টি পিকেট টিম দায়িত্ব পালন করবেন। বাসস এমএইচ/টিকে

খুলনা সিটিতে বাড়ছে রাজনৈতিক উত্তাপ [ভিডিও]

খুলনা সিটিতে ভোট এগিয়ে আসার সাথে সাথে বাড়ছে রাজনৈতিক উত্তাপ। শেষ সময়ে জনসংযোগে ব্যস্ত প্রার্থীরা। এরমধ্যেই চলছে প্রধান দুই মেয়র প্রার্থীর পাল্টাপাল্টি অভিযোগ। নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের অভিযোগ করেছেন বিএনপির নজরুল ইসলাম মঞ্জু। প্রতিক্রিয়ায় আওয়ামী লীগের তালুকদার আব্দুল খালেক বলেছেন, নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতেই বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন মঞ্জু। খুলনা প্রতিনিধি মহেন্দ্র নাথ সেনের সহায়তায় আরো জানাচ্ছেন মিজানুর রহমান।   দুয়ারে কড়া নাড়ছে নির্বাচন। যত বেশি সম্ভব ভোটারের কাছে যেতেই ব্যস্ত প্রার্থীরা। প্রচারে বাড়তি মাত্রা যোগ করেছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মেয়র প্রার্থীদের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ। ছুটির দিনের সকালে নগরীর নিউ মার্কেট এলাকায় প্রচার চালিয়েছেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু। ভোটারদের কাছে ভোট চাওয়ার পাশাপাশি প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ প্রার্থীর বিরুদ্ধে তিনি এনেছেন বিস্তর অভিযোগ। তিনি বলেন, এই নির্বাচনের মাধ্যমেই সরকার ও নির্বাচন কমিশনের নিরপেক্ষতা প্রমাণ হবে। এদিকে সকালে নগরীর ১৯ নং ওয়ার্ড এলাকায় জনসংযোগ করেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী তালুকদার আবদুল খালেক। উন্নয়নের পক্ষে ভোট দিতে খুলনাবাসির কাছে আহ্বান জানান তিনি।  এসময় তিনি বিএনপি প্রার্থীর বিরুদ্ধে চরমপন্থীদের লালন করার পাল্টা অভিযোগ তোলেন। অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগ থাকলেও খুলনায় বিরাজ করছে নির্বাচনী উৎসবের আমেজ। ভিডিও:   

রিটার্নিং কর্মকর্তাকে পাশ কাটানোয় বিএনপি প্রার্থীর ক্ষোভ (ভিডিও)

খুলনায় রিটার্নিং অফিসারকে পাশ কাটিয়ে একজন যুগ্মসচিবকে নির্বাচনের সমন্বয়কের দায়িত্ব দেয়ায় ক্ষোভ জানিয়েছেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু। তবে ভোটকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে বিএনপি বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক। সিটি নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকতা ইউনুস আলীকে রেখে একজন যুগ্মসচিবকে নির্বাচনের সার্বিক দায়িত্ব দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ক্ষোভ জানিয়ে বিএনপির মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, আওয়ামী লীগের পরাামর্শে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। বিএনপির এই প্রার্থী দাবি করেন, তার দলের নিরপরাধ নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার অব্যাহত আছে। তবে পুলিশ কমশিনার জানান, মামলার আসামি ছাড়া কাউকে গ্রেফতার করা হচ্ছে না। আওয়ামী লীগ মেয়র প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক বলেন, জাতীয় নির্বাচনে ইস্যু তৈরি করতে বিএনপি বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। ৩ দিন পর শেষ হচ্ছে খুলনা সিটির প্রচার-প্রচারণা। ১৫ মে ভোট অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

ঢাকা-চুয়াডাঙায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

রাজধানীর বাড্ডার আফতাবনগর ও চুয়াডাঙার দামুড়হুদা উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে পৃথক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ২ জন নিহত হয়েছেন। বাড্ডায় ডিবি পুলিশের অভিযানে শাফায়াত (৩০) নামের একজন গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। এদিকে চুয়াডাঙায় নিহত ব্যক্তি ডাকাত ছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। আজ বৃহস্পতিবার ভোর ৫টায় এবং গতকাল বুধবার রাতে ‘বন্দুকযুদ্ধের’ এসব ঘটনা ঘটে। বাড্ডা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. শহিদুল আলম জানান, বৃহস্পতিবার ভোররাতে আফতাবনগরে পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) সদস্যদের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে সাফায়েত তামরিন নামের এক যুবক গুলিবিদ্ধ হন। গুরুতর আহত অবস্থায় সাফায়েতকে উদ্ধার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এদিকে চুয়াডাঙার সহকারী পুলিশ সুপার (সদর দপ্তর) আহসান হাবীবের ভাষ্য, অস্ত্র ও ডাকাতিসহ নয়টি মামলার আসামি ও এলাকার চিহ্নিত জামু-কামরুল বাহিনীর সক্রিয় সদস্য মিরাজুল ইসলামকে গতকাল বুধবার বিকেলে দামুড়হুদা মডেল থানার পুলিশ গ্রেফতার করে। গ্রেপ্তারের সময় তার দেহ তল্লাশি করে রাইফেলের দুটি কার্তুজ পাওয়া যায়। তাকে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে অস্ত্রের কথা স্বীকার করেন। পরে এসআই আব্বাস উদ্দিন ও কয়েকজন পুলিশ মিরাজুলকে নিয়ে অস্ত্র উদ্ধার অভিযানে বের হন। মিরাজুলের গ্রাম হাতিভাঙ্গায় যাওয়ার সময় গোবিন্দহুদা ঈদগাহ মাঠের কাছে পৌঁছালে আগে থেকে ওত পেতে থাকা অস্ত্রধারী দুর্বৃত্তরা পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে ককটেল ছোড়লে পুলিশ আত্মরক্ষার্থে গুলি ছোড়ে। এ সময় দুর্বৃত্তরা পাল্টা গুলি ছোড়ে। এতে পুলিশের সঙ্গে থাকা মিরাজুল দুর্বৃত্তের গুলিতে গুরুতর আহত হন। মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আউলিয়ার রহমান তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শুটারগান, রাইফেলের দুটি কার্তুজ, দুটি হাতবোমা ও একটি রামদা উদ্ধার করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। একে// এআর

হিজড়াদের উন্নয়নে মেয়র প্রার্থীদের প্রতিশ্রুতি (ভিডিও)

তৃতীয় লিঙ্গের হিজড়াদের উন্নয়নে কাজ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন খুলনার দুই মেয়র প্রার্থী। তৃতীয় লিঙ্গ হিসেবে স্বীকৃতি পেলেও বৈষম্য ঘোচেনি বলে মনে করেন হিজড়ারা। শিক্ষা, চিকিৎসা ও আবাসনসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে এখনও তারা বৈষম্যর শিকার। খুলনা সিটি নির্বাচন সামনে রেখে তাই হিসাব- মিলাতে চাইছেন তারা। নাগরিক অধিকার থেকে বছরের পর বছর বঞ্চিত হিজড়া জনগোষ্ঠি। নির্বাচনের আগে তাদের উন্নয়নে নানা প্রতিশ্র“তি মেলে। কিন্তু তার বাস্তবায়ন হয় খুবই কম। প্রযুক্তির সুবাদে  তারা আজ অনেক সচেতন। তাই শুধুমাত্র প্রতিশ্র“তি নয়, যোগ্য প্রার্থীকেই নির্বাচিত করতে চায় সুবিধা বঞ্চিত মানুষেরা। বাসস্থানসহ নানা সংকটের কথা জানালেন বিভাগীয় গুরু মা। আওয়ামীলীগ প্রার্থী হিজড়াদের উন্নয়নে দিয়েছেন নানা প্রতিশ্র“তি। মেয়র হলে হিজড়াদের উন্নয়নে কাজ করার কথা জানালেন বিএনপি প্রার্থীও।   এবারের নির্বাচনে হিজড়াদের ভোট টানার চেষ্টা করছেন দুই প্রার্থীই।

ফল বিক্রেতা থেকে সবজি-মাছ চাষ করে কোটিপতি (ভিডিও)

লঞ্চের কলা বিক্রেতা থেকে কোটি টাকার সবজি ও মৎস্যচাষী নড়াইলের কালিয়া উপজেলার শিবুপদ রায়। ২৬৭ একর জমিতে করেছেন সমন্বিত সবজি ও মৎস্য খামার। মাছ চাষের পাশাপাশি বোরো ধানের আবাদও করছেন। তার খামার থেকে বছরে প্রায় ২ কোটি টাকার কৃষিপণ্য ও মাছ বিক্রি করা হয়। পরিশ্রম আর অধ্যাবসায় মানুষকে সফলতা এনে দেয়, নড়াইলের শিবুপদ রায় তার উৎকৃষ্ট উদাহরণ। ৭১’ এ পাকিস্তানি বাহিনী ও এদেশীয় দোসরদের হাতে শিবুপদ রায়ের বাবা যখন নিহত হন তখন তার বয়স ১১ বছর ৮ মাস। এরপর থেকেই মা ও দুই বোনকে নিয়ে শুরু জীবনযুদ্ধ। লঞ্চে করে নড়াইলের কালিয়া থেকে বড়দিয়া এবং খুলনার দৌলতপুর পর্যন্ত কলা বিক্রি করতেন শিবুপদ। ৩০০ টাকা বেতনে দোকান কর্মচারীর কাজও করেন কিছুদিন। উপার্জনের জমানো ১৬ হাজার ৬০০ টাকা পুঁজি নিয়ে ১৯৭৮ সালে কালিয়া বাজারে নিজে একটা দোকান শুরু করেন।  ১০ একর জমি লিজ নিয়ে করেন চিংড়িমাছের ঘের। আর এরপর থেকে পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি শিবুপদকে। কালিয়া পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের ভক্তডাঙ্গা বিলে গড়ে তুলেন বিশাল এই কৃষি খামার। ঘেরের পাশাপাশি করেন রাইসমিল। শিবুপদ রায়ের সমন্বিত কৃষি খামারে নিয়মিত ২২ জন এবং খন্ডকালীন হিসাবে কাজ করেন প্রায় দেড়শ’ শ্রমিক। এ ধরণের কৃষি খামার অন্যদেরও অনুপ্রেরণা যোগাচ্ছে বলে জানান এই কৃষি কর্মকর্তা। শিবুপদ রায়ের খামারে উৎপাদিত কৃষি পণ্য নড়াইল ছাড়াও যশোর, গোপালগঞ্জ, মাগুরা, ঢাকাসহ বিভিন্নস্থানে বিক্রি হচ্ছে।

প্রথমবারের মতো বেনাপোল আনা হলো ১০০ মহিষ

এই প্রথম বেনাপোল বন্দর দিয়ে আমদানি করা হলো মহিষের একটি বড় চালান। বুধবার বিকেল সাড়ে ৬টার দিকে ৬টি ট্রাকে করে ছোট বড় ১০০টি মহিষ আসে বেনাপোল বন্দরে। এই মহিষগুলো  আসে ভারতের পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে। মহিষগুলো হরিয়ানা থেকে আমদানি করা হয়েছে। কাস্টমস ও বন্দর সূত্রে জানা গেছে, সিরাজগজ্ঞের মিল্কভিটা কোম্পানী দুধ উৎপাদনের জন্য ৫০টি মহিষ ও ৫০টি মহিষের বাছুর (প্রজনন) আমদানির জন্য দরপত্র দিলে ঢাকার আমদানিকারক জেনটিক্স ইন্টারন্যাশনাল এই মহিষগুলো ভারত থেকে আমদানি করেন (যার বিসিপি নং-১০৫৭/৬)। অন্যদিকে ভারতের রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান হলো জে কে এন্টারপ্রাইজ। বেনাপোলের হটলাইন কার্গো ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি সিএন্ডএফ এজেন্ট আমদানিকৃত মহিষগুলো বেনাপোল কাস্টমস হাউজ থেকে ছাড় নেওয়ার জন্য বিল অব এন্ট্রি দাখিল করে।  (বিল অব এন্ট্রি নং-৩১৯১৮)। মহিষের আমদানি মূল্য ঘোষনা দেওয়া হয়েছে ৮২ হাজার ২শ‘ ২৫ মার্কিন ডলার। যার বাংলাদেশী টাকায় মূল্য হলো ৬৮ লাখ ৬৫ হাজার ৭শ ৮৭ টাকা। এই মহিষের কোনো আমদানি শুল্ক নেই। তবে প্রাণী সম্পদ বিভাগের ছাড়পত্র নিতে হয়। শার্শা উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা জয়দেব কুমার সিংহ জানান, মহিষগুলো সিরাজগঞ্জের মিল্ক ভিটায় নিয়ে যাওয়া হবে। প্রাথমিকভাবে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে মহিষগুলো ভাল পাওয়া গেছে। প্রাণী সম্পদ বিভাগের সরকারি শুল্ক আদায় করে যথাযথ ভাবে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টমস কার্গো শাখার রাজস্ব কর্মকর্তা হারুন আর রশিদ ১০০ মহিষ আমদানির সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মহিষগুলো বেনাপোল কাস্টমস হাউজ থেকে খালাস নিতে হটলাইন কার্গো ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি সিএন্ডএফ এজেন্ট প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দাখিল করেছেন। তা পরীক্ষা নিরীক্ষা করে শুল্কায়ন করার পর খালাস দেওয়া হবে।  এমএইচ/টিকে

খুলনা সিটির নির্বাচন নিয়ে বিএনপির শঙ্কা

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ‘নির্বাচনে জিতবে না জেনেই সরকার নির্বাচন কমিশনের মাধ্যমে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের নির্বাচন আটকে দিয়েছে।’ বুধবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে রুহুল কবির রিজভী এ কথা বলেন।   তিনি বলেন, ‘আসন্ন  খুলনার  সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে বিএনপি শঙ্কায় রয়েছে। সরকার জানে,  জনগণ তাদের সঙ্গে নেই। তাই সুষ্ঠু ভোট হলে আওয়ামী লীগ পরাজিত হবে তাই গাজীপুর সিটির নির্বাচন নিয়ে সরকার তালবাহানা করছে। পরাজয়ের ভয়ে শেষ মুহূর্তে এই সিটির নির্বাচনও স্থগিত করতে পারে।’ বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খুলনায় বিএনপি নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে গ্রেপ্তার ও আটকের তীব্র নিন্দা জানান। একই সঙ্গে তিনি অবিলম্বে এই গ্রেপ্তার অভিযান বন্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতিও আহ্বান জানান। রিজভী বলেন,‘বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের  হয়রানি করবেন না। তাদের সুষ্ঠুভাবে নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে দিন।’ কেআই/টিকে

বেনাপোলে ১২ স্বর্ণের বার উদ্ধার

যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানার খলশি বাজার এলাকা থেকে ১২টি স্বর্ণের বার পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যরা। তবে পাচারকারী চক্রের কোনো সদস্যকে আটক করতে পারেনি বিজিবি। আজ বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে খলশি বাজারের ইটভাটা নামক স্থান থেকে স্বর্ণের বারগুলো উদ্ধার করা হয়। ২১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল তারিকুল হাকিমি জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিজিপি জানতে পারে স্বর্ণ পাচারকারীরা বিপুল পরিমাণ স্বর্ণের একটি চালান নিয়ে ভারতে যাবে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে পুটখালী ক্যাম্পের সুবেদার আওলাদ হোসেন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে খলশি ইটভাটা নামক স্থানে অভিযান চালায়। এ সময় একজন লোক একটি পোটলা ফেলে পালিয়ে যায়। পরে সেটি ক্যাম্পে নিয়ে দেখা যায় ওই পোটলার মধ্য থেকে ১২টি স্বর্ণের বার রয়েছে। একে// এআর

নির্বাচনে ভোট দিবে আটকে পরা পাকিস্তানি ভোটাররা (ভিডিও)

দ্বিতীয় বারের মত খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ভোট দিবে আটকে পরা পাকিস্তানি ভোটাররা। ক্যাম্পের পরিবেশসহ নাগরিক সেবার মান উন্নয়ন করবেন এমন একজন জনপ্রতিনিধি চান তারা। আর সমর্থন আদায়ে নানা প্রতিশ্র“তি প্রতিদ্বন্দী দুই মেয়র প্রার্থীর। নেই পর্যাপ্ত ড্রেনেজ ব্যবস্থা। নিয়মিত ময়লা আবর্জনা পরিষ্কার না করায় পুরো ক্যাম্পই যেন ময়লার স্তুপ। বছরের পর বছর ধরে নষ্ট টিউবওয়েল মেরামত না হওয়ায় রয়েছে সুপেয় পানির সংকট। এভাবেই চলছে বাংলাদেশে আটকে পড়া পাকিস্তানী এসব নাগরিকের জীবন। এবারের নির্বাচনে তাই নিজেদের ভাগ্যোন্নয়নে কাজে আসবে এমন প্রার্থী চান তারা।  ক্যাম্পের উন্নয়নে গত বছরও নানা আশ্বাস পেয়েছিলেন, কিন্তু পরে আর তা বাস্তবায়ন হয়নি। ফলে ভোগান্তির শেষ নেই এখানকার বাসিন্দাদের। সমর্থন আদায়ে নানা আশ্বাস দিচ্ছেন প্রার্থীরা। তুলে ধরছেন নানা পরিকল্পনা। নগরীতে আটকে পরা পাকিস্তানি ভোটার রয়েছে ১০ হাজারেরও বেশি। তাই সমর্থন আদায়ে প্রতিশ্রুতির ফুল ঝুড়ী নিয়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন প্রার্থীরা। আর প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন চান এখানকার বাসিন্দারা। 

ব্যস্ততা বাড়ছে খুলনা সিটির নারী প্রার্থীদের [ভিডিও]

নির্বাচন যতই দিন ঘনিয়ে আসছে ব্যস্ততা বাড়ছে খুলনার সংরক্ষিত নারী কাউন্সিল প্রার্থীদের। গভীর রাত পর্যন্ত ঘুরছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। তবে, নির্বাচনী এলাকা বড় হওয়ায় সব ভোটারদের কাছে পৌছাতে পারছেন না তারা। খুলনা প্রতিনিধি মহেন্দ্র নাথ সেনের প্রতিবেদন। নির্বাচনের বাকি আর মাত্র আট দিন। তাই চায়ের দোকান থেকে বৈঠকখানা, সরগরম নির্বাচনী প্রচারে। তবে মাইকে সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থীদের নাম শুনলেও এখনও দেখা মেলেনি বলে জানালেন ভোটাররা। এদিকে, তিন থেকে চারটি সাধারণ ওয়ার্ড মিলে একটি সংরক্ষিত ওয়ার্ড হওয়ায় সব ভোটারদের কাছে পৌছাতে পারছেন না মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থীরা। স্বল্প সময়ে সব ভোটারদের কাছে যেতে না পারায় আক্ষেপও আছে। নারী নেত্রীরা মনে করেন, সংরক্ষিত আসনের বর্তমান বিন্যাস নারীর ক্ষমতায়নে প্রতিবন্ধকতা। সাধারণ কাউন্সিলদের চেয়ে ক্ষমতা কম থাকার কারণে প্রতিশ্রুতি দেয়ার ক্ষেত্রে এই প্রার্থীদের সীমাবদ্ধতা আছে বলে মনে করেন নারী নেত্রী সুতপা বেদজ্ঞ। তবে সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলদের যথাযথো ক্ষমতা দিলে জনপ্রতিনিধিত্ব ব্যবস্থা আরও শক্তিশালী হবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।  ভিডিও:   

খুলনায় নির্বাচনী প্রচারে পেশাজীবীরা (ভিডিও)

খুলনা সিটি নির্বাচনের দিন যত ঘনিয়ে আসছে, ততই বাড়ছে নির্বাচনী উত্তাপ। প্রার্থীদের পাশাপাশি নগরীতে প্রচার-প্রচারণায় নেমেছেন পেশাজীবীরও।  একই সঙ্গে বড় দুই দলের মধ্যে চলছে অভিযোগ আর পাল্টা অভিযোগ। সকাল থেকে প্রচারে নেমেছেন খুলনায় বড় দুই দলের প্রার্থী। বিএনপির মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম মঞ্জু নগরীর ৪ ও  ৬ নম্বর ওয়ার্ডের নতুন রাস্তাসহ বিভিন্ন এলাকায় প্রচারণা চালান। এ সময় তিনি প্রশাসনের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন।  অন্যদিকে আওয়ামী লীগ প্রার্থী তালুকদার আব্দুল খালেক ২৩ ও ২৪ এর ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় প্রচার চালান। নির্বাচনের পরিবেশ বিনষ্ট কারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া উচিত বলে মন্তব্য করেন তালুকদার আব্দুল খালেক। এদিকে সকালে খুলনা সচেতন সাংবাদিক সমাজের ব্যানারে নির্বাচনের প্রচারনায় অংশ নেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুলসহ সাংবাদিকরা। এসময় উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির হাতে দায়িত্ব তুলে দেওয়ার আহ্বান জানান তারা। এদিকে নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে প্রশাসন কাজ করে যাচ্ছে বলে জানান পুলিশ কমিশনার। খুলনা সিটির ১৫মের এই নির্বাচনেকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করছেন ভোটাররা।  

ভোটাদের দ্বারে দ্বারে গভীর রাতেও ঘুরছে প্রার্থীরা (ভিডিও)

ভোটের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে। ততই বাড়ছে খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের প্রার্থীদের ব্যস্থতা। গভীর রাতেও ভোটাদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছে প্রার্থীরা। জয়ের আশায় ভোট চাচ্ছেন, দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্র“তিও। ১৫ মে পঞ্চমবারের মতো অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে খুলনা সিটি কপোরেশন নির্বাচন। তাই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে প্রচারণা। চায়ের দোকান থেকে শুরু সর্বত্রই বাড়ছে প্রার্থী আর ভোটারদের আনাগোনা। এলাকার উন্নয়ন দেখিয়ে নিজের জন্য ভোট প্রার্থনা করছেন কাউন্সিলরা। নির্বাচনের পরিবেশ সুন্দর রাখতে কাজ করছে প্রশাসন। খুলনা সিটি কর্পোরেশনের এই নির্বাচনেকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করছে ভোটারা।  

প্রচারণায় জমে উঠেছে কেসিসি নির্বাচন

ভোটের দিন ঘনিয়ে আসছে। প্রার্থীদের প্রচারণায় তাই জমে উঠেছে খুলনা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। মেয়র প্রার্থীদের পাশাপাশি ভোটারদের দ্বারে দ্বারে কাউন্সিলর প্রার্থীরাও। জয়ের আশায় ভোট চাচ্ছেন, দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতিও। প্রথমবারের মত নগরীতে দলীয় প্রতীকে সিটি নির্বাচন। তাই খুলনা এখন উৎসবের নগরী। ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে প্রচারণা। প্রতীকের পক্ষে ভোট চাইছেন প্রার্থীরা। বড় দুই রাজনৈতিক দলের প্রার্থীদের মতই স্বতন্ত্র ও ছোট দলের প্রার্থীরাও জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। প্রচারণায় পিছিয়ে নেই নারী কাউন্সিলর প্রার্থীরাও। ভোটারদের মন জয় করতে সব ধরণের কৌশলই কাজে লাগাচ্ছেন তারা।  নগরীর জলাবদ্ধতা দূর করাসহ শতভাগ নাগরিক সেবা চান ভোটাররা। উল্লেখ্য, আগামী ১৫ মে ভোটাররা নির্বাচিত করবেন একজন নগর পিতা, ৩১ জন সাধারণ কাউন্সিলর ও ১০ জন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর। একে//টিকে

© ২০১৮ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি