ঢাকা, মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৭ ৩:১০:৪৬

বন্যার্তদের মাঝে আইসিএমএবি শিক্ষার্থীদের ত্রাণ বিতরণ

দেশের উত্তরাঞ্চলের বানভাসী মানুষের মাঝে খাবার, ওষুধ ও বস্ত্র বিতরণ করেছে দ্য ইনস্টিটিউট অব কস্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশের (আইসিএমএবি) শিক্ষার্থীরা। ১৮ সেপ্টেম্বর কুড়িগ্রাম জেলার, রৌমারী উপজেলার কাশিয়ারচরে প্রায় ছয় শতাধিক বন্যার্তদের মাঝে এই ত্রাণ বিতরণ করা হয়। ইনস্টিটিউটের একদল শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও সদস্যদের সহযোগিতায় ত্রাণ বিতরণ কাজে অংশ নেন আইসিএমএবি ছাত্র ইউনিয়নের আহ্বায়ক আব্দুল্লাহ আল মামুন, শিক্ষার্থী মাহেদি আলম, মারফি প্রমুখ। এ বিষয়ে আব্দুল্লাহ আল মামুন একুশে টেলিভিশন (ইটিভি) অনলাইনকে বলেন, ‘সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশ হিসেবে আইসিএমএবির শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন সমাজ সেবামূলক কাজে অংশ নিয়ে থাকেন। বিশেষ করে রক্তদান কর্মসূচী, শীত বস্ত্র বিতরণ, অসুস্থ রোগীর জন্য তহবিল সংগ্রহ, গরীব ও মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য আর্থিক সহায়তা দেওয়ার কাজটি নিয়মিত করে আসছেন। এরই ধারাবাহিকতায় এবার বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করা হয়।’ এর আগে ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা সহপাঠী, শিক্ষক ও ইনস্টিটিউটের সদস্যদের কাছ থেকে ত্রাণ সংগ্রহ করে। //এআর

সৈয়দপুরে দুই ট্রাকের সংঘর্ষে নিহত ৩

নীলফামারীর সৈয়দপুরে দুটি ট্রাকের সংঘর্ষে তিন জন নিহত হয়েছেন। সোমবার ভোর রাতে বাইপাস সড়কের ধলাগাছ মতির মোড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- ট্রাকচালক মো. দুলাল, চালকের সহকারী মো. আতিকুল। অপর জনের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি। পুলিশ জানায়, ধলাগাছ মতির মোড়ে একটি বিকল ট্রাক মেরামত করছিল চালক ও হেলপার। এ সময় ট্রাকটিকে পিছন দিক থেকে আসা অপর একটি ট্রাক ধাক্কা দেয়। এতে দুই ট্রাক রাস্তার ধারে খাদে পড়ে। দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলে তিন জন মারা যান। পরে পুলিশ ঘটনাস্থালে গিয়ে লাশগুলো উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। সৈয়দপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. জাহাঙ্গীর গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।//এআর

পঞ্চগড়ে স্কুল জাতীয়করণের দাবিতে মহাসড়ক অবরোধ

পঞ্চগড় জেলার বোদা পাইলট মডেল স্কুল এন্ড কলেজ জাতীয়করণের দাবিতে পঞ্চগড়-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত পঞ্চগড়-ঢাকা মহাসড়কের বোদা বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন মহাসড়কে এই অবরোধ কর্মসূচি পালন করে প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। এদিন অবরোধের কারণে মহাসড়কে এক ঘণ্টা সকল প্রকার যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিল। এর ফলে মহাসড়কের দুই পাশে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে। দুর্ভোগে পড়ে যাত্রীসহ পথচারীরাও। গত সোমবার থেকে টানা ৩ দিনব্যাপী মানববন্ধন বিক্ষোভ ও অবরোধ কর্মসূচি পালন করে আসছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি। আজ অবরোধের পাশাপাশি আগামী রোববার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত টানা ২ ঘণ্টা ক্লাস বর্জন ও কর্মবিরতি পালনের ঘোষণা দেন সংশ্লিষ্টরা। অবরোধে শেষে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য দেন স্কুল জাতীয়করণ সংগ্রাম কমিটির আহবায়ক ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট ওয়াহিদুজ্জামান সুজা, প্রবীণ বিএনপি নেতা ও সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আব্দুল আজিজ, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান শামসুজ্জোহা, ওয়ালিউল ইসলাম মন্টু, বোদা বাজার বণিক সমিতির সভাপতি মো. আজাহার আলী, সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসেন হাসান, আওয়ামী লীগ নেতা মকলেছার রহমান জিল্লুর, আব্দুর রউফ, শিক্ষক মোশাররফ হোসেন প্রমুখ। আর/ডব্লিউএন

চালু হয়েছে লালমনিরহাট-বুড়িমারী ট্রেন চলাচল

বন্যায় লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে ১৬ দিন বন্ধ থাকার পর বুড়িমারী-লালমনিরহাট ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে। লাইন মেরামত শেষে মঙ্গলবার থেকে আবার ট্রেন চলাচল শুরু হয়। হাতীবান্ধা রেলস্টেশনের মাস্টার নূরন্নবী জানান, বন্যায় পানির প্রবল স্রোতের কারণে গত ১২ অগাস্ট লালমনিরহাট-বুড়িমারী রেলপথের হাতীবান্ধা স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় ১০৫ ফুট রেললাইন ভেঙে যায়। পরদিন সকাল থেকে এই রেলপথে ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। তিনি জানান, গত ১৬ দিন লালমনিরহাট থেকে ভোটমারী স্টেশন পর্যন্ত ট্রেন চলাচল করলেও ভোটমারী থেকে বুড়িমারী স্থলবন্দর স্টেশন পর্যন্ত ট্রেন যেতে পারেনি। পানি কমায় ক্ষতিগ্রস্ত লাইন মেরামত শেষে মঙ্গলবার আবার ট্রেন চলাচল শুরু হল।আর/টিকে

লালমনিরহাটের রেললাইন এখন ঝুলন্ত সেতু

বন্যার পানির স্রোতে লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলায় রেললাইনের নিচে প্রায় সব মাটি সরে বিশাল গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। প্রবল বর্ষণ আর উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের কারণেই এই গর্তের সৃষ্টি হয়। এতে বর্তমানে রেললাইনটি একটি ঝুলন্ত সেতুতে পরিণত হয়েছে। জেলার রেলওয়ে সূত্রে জানা যায়, গত ১৩ আগস্ট লালমনিরহাটে ভয়াবহ বন্যায় লালমনিরহাট-বুড়িমারী রেলপথের হাতীবান্ধা মেডিকেল মোড় এলাকায় লাইনের নিচ দিয়ে প্রচণ্ড বেগে পানি প্রবাহিত হয়। এর ফলে মাটি সরে গিয়ে বিশাল গর্তের সৃষ্টি হয়। এ কারণে গত কয়েকদিন থেকে বুড়িমারী স্থলবন্দরের সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারা জানায়, রেলপথ ভেঙে যাওয়ার কারণে আমাদের দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে। বুড়িমারী-লালমনিরহাট সড়ক পথে ছোট বড় খাল তৈরি হওয়ায় কষ্টকর হচ্ছে চলাচলে। লালমনিরহাট রেলওয়ে বিভাগীয় সদর দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নাজমুল ইসলাম বলেন, পাটগ্রাম ব্র্যাক অফিস এলাকায় ধরলার পানির ধাক্কায় একটি রেলব্রিজের পাশে রেলওয়ে লাইন সড়ক ভেঙে গেছে। একই রুটের হাতীবান্ধা রেলওয়ে স্টেশন থেকে হাতীবান্ধা আলিমুদ্দিন ডিগ্রি কলেজের মাঝামাঝি স্থানে রেলওয়ে লাইন ভেঙে গেছে। সেই সঙ্গে এই রুটের পারুলিয়া-ভোটমারী রেলওয়ে লাইনের মাঝামাঝি স্থানেও তিস্তার পানির ধাক্কায় রেলওয়ে লাইন ভেঙে যায়। এই রেলওয়ে রুট সংস্কার না করা পর্যন্ত ট্রেন পরিচালনা করা সম্ভব নয় বলে জানান তিনি। আর/ডব্লিউএন

গাইবান্ধায় নতুন করে ৪১ গ্রাম প্লাবিত

গাইবান্ধার করতোয়া নদীর বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে নতুন করে আরও ৪১টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে জেলার পলাশবাড়ী ও গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার এ ৪১ গ্রাম প্লাবিত হয়। এদিন সকাল ও বিকেলে বন্যার পানিতে দুই উপজেলায় দুই শিশুর মৃত্যু হয়। তারা হলো ফুলছড়ি উপজেলার হানিফ মিয়া (৫) ও গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার রিয়া মনি (৪)। বন্যার পানিতে গোবিন্দগঞ্জ-দিনাজপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের তরফমনু ও তরফ কামাল নামক এলাকায় পানি ওঠে গেছে। এতে ঝুঁকি নিয়ে সড়কে চলছে যানবাহন। পলাশবাড়ী উপজেলার হোসেনপুর ইউনিয়নের চেরেঙ্গা বাঁধের ৩০ ফুট, কিশোরগাড়ী ইউনিয়নের টোংরারদহ এলাকায় করতোয়া নদীর বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ৬০ ফুট এবং গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার হাতিয়াদহ বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের ৪০ ফুট অংশ ভেঙে যায়। এতে পলাশবাড়ী উপজেলার ১৬টি এবং গোবিন্দগঞ্জের দরবস্ত ইউনিয়নের ২৫টি গ্রাম নতুন করে প্লাবিত হয়েছে। জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) তথ্য মতে, ব্রহ্মপুত্র নদের পানি ফুলছড়ি পয়েন্টে বিপদসীমার ১০৩, ঘাঘট নদীর পানি শহরের ব্রিজ রোড পয়েন্টে বিপদসীমার ৮৩ সেন্টিমিটার এবং করতোয়া নদীর পানি কাটাখালী পয়েন্টে বিপদসীমার ৪৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। আর/ডব্লিউএন  

শোক র‌্যালীতে ছাত্রলীগের সংঘর্ষে আহত ১১

কুড়িগ্রামের উলিপুরে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত র‌্যালীতে তুমুল সংঘর্ষে জড়িয়েছে ছাত্রলীগের দু’পক্ষ। এতে আহত হয়েছেন অন্তত ১১ জন। সংঘর্ষ থামাতে পুলিশ কাঁদানে গ্যাসের শেল নিক্ষেপ ও লাঠিপেটা করে। এ সময় পুরো এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। শোক মিছিলের একাংশ ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। আহতদের মধ্যে পাঁচজনকে উলিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। উভয় পক্ষে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। সংঘর্ষের আশঙ্কায় শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। উলিপুর উপজেলা ছাত্রলীগের একটি সূত্র জানায়, উপজেলা সম্মেলন বাতিল করে জেলা কর্তৃক পকেট কমিটি গঠন করা নিয়ে ছাত্রলীগের মধ্যে অসন্তোষ চলে আসছিল। মঙ্গলবার সকালে দলীয় কার্যালয়ে পতাকা উত্তোলন করা নিয়ে বাকবিতণ্ডার সৃষ্টি হয়। পরে উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক আয়োজিত শোক মিছিলে বর্তমান কমিটির কতিপয় সদস্য রামদা, ক্ষুর, চাপাতিসহ  তাদের ওপর অতর্কিত হামলা করে। এতে তাদের পক্ষের পাঁচজন আহত হয়। আহতদের বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে বলে তিনি জানান। উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানান, তাঁরা তাঁদের সংগঠনের শোক র্যা লী শেষে উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত শোক মিছিলে যোগ দেন। মিছিলটি উলিপুর শহরের ওকে টি স্টলের সামনের সড়কে পৌঁছালে পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা তাঁদের ওপর হামলা করেন। এতে চাপাতি ও ক্ষুরের আঘাতে তাঁদের ছয় কর্মী আহত হন। এঁরা হলেন রুবেল, জাহিদ হাসান, মনজিদুল আজম রাজা, জিহাদ হোসেন, আজিজুল ইসলাম ও আবদুর রহিম। তাঁদের উলিপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। উলিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস কে আবদুল্লাহ আল সাইদ জানান, পূর্ববিরোধের জের ধরে শোক মিছিলে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ হয়। //এআর

বিএসএফ-বিজিবির মিষ্টি বিনিময়

প্রতিবেশী দেশ ভারতের স্বাধীনতা দিবস ১৫ আগস্ট। এ উপলক্ষে দেশটির সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ মিষ্টি উপহার দিয়ে শুভেচ্ছা জানিয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-বিজিবিকে। একই সঙ্গে বিএসএফকেও স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়ে মিষ্টি উপহার দেয় বিজিবি। মঙ্গলবার হিলি সীমান্তের আন্তর্জাতিক চেকপোস্ট গেটের শূন্যরেখায় এ মিষ্টি বিনিময় করে বিজিবি ও বিএসএফ। এ সময় বিজিবি-বিএসএফের পুরুষ সদস্য ছাড়াও নারী সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। এ বিষয়ে বিজিবির হিলি চেকপোস্ট ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার মাহবুব আলম বলেন, বিজিবির পক্ষ থেকে বিএসএফের পতিরাম ১৯৯ ও ১৮৩ ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক ও হিলি ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডারের নামে ছয়টি মিষ্টির প্যাকেটসহ শুভেচ্ছাবার্তা তুলে দেওয়া হয়েছে। এ ধরনের আন্তরিকতা ও সৌহার্দ্য আমাদের দুই বাহিনীর সদস্যদের মধ্যে ভ্রাতৃত্ব তৈরি করে। ভারতের পতিরাম ১৯৯ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের সহকারী কমান্ডার সুরেশ জানান, বিএসএফের পক্ষ থেকে স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে বিজিবির দিনাজপুর সেক্টর কমান্ডার, জয়পুরহাট-৩ ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক ও হিলি চেকপোস্ট ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডারের নামে মিষ্টির পাঁচটি প্যাকেট দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া আমাদের পক্ষ থেকে স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়েছি। সীমান্তরক্ষীদের মধ্যে সৌহার্দ্যপূর্ণ ও ভ্রাতৃত্বপূর্ণ সম্পর্ক জোরদারের লক্ষ্যেই এই মিষ্টি বিনিময় করা হয়। আরকে/ডব্লিউএন

দিনাজপুরে বন্যায় আরও ৪ জনের মৃত্যু, রেল যোগাযোগ বন্ধ

দিনাজপুরে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। জেলা শহরের বেশির ভাগ এলাকাসহ রেললাইনের ওপরে পানি আসায় সারাদেশের সঙ্গে বন্ধ রয়েছে রেল যোগাযোগ। বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য প্রায় সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। জেলা প্রশাসক খায়রুল আলম গণমাধ্যমকে জানান, বন্যার কারণে পানিতে ডুবে রোববার রাত থেকে সোমবার সকাল পর্যন্ত চারজনের মৃত্যু হয়েছে। এর আগে রোববার ১৪ জনের মৃত্যু হয়। বিভিন্ন সড়কে বাস-ট্রাকসহ বড় যানগুলো চলাচল করলেও রোববার দুপুর থেকে অন্যান্য জেলার সঙ্গে দিনাজপুরের রেল যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।পার্বতীপুর-দিনাজপুর রেললাইনের বিভিন্ন জায়গা পানি ওঠায় এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী ফয়জার রহমান বলেন, সোমবার সকালে পুনর্ভবা নদীর পানি বিপৎসীমার ৮০ সেন্টিমিটার ওপরে রেকর্ড করা হয়েছে। তবে রোববার রাতে নতুন করে পানি বাড়েনি। দিনাজপুর শহরের প্রধান এলাকা বালুবাড়ি খালপাড়া, মালদহ পট্টি, চকবাজার, নিমতলা, মির্জাপুর, শেখপুরা, ঈদগাঁহ বস্তি এলাকা প্লাবিত হয়েছে। পুনর্ভবা নদীর শহর রক্ষা বাঁধ ভেঙে ও আত্রাই নদীর বাঁধভাঙা পানি ঢুকে দিনাজপুর পৌরসভার ১২টি ওয়ার্ডের প্রায় সবাই পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। জেলা প্রশাসক জানান, পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য জেলার সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।   //আর//এআর

দিনাজপুরে বন্যায় ৮ শিশুসহ ১৪ জনের মৃত্যু

ভারি বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে দেশের উত্তরাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। এ ছাড়া সুনামগঞ্জ, সিলেট, ময়মনসিংহসহ দেশের আরও কয়েটি জেলায় বন্যা দেখা দিয়েছে। দিনাজপুরে চার উপজেলায় ২৪ ঘন্টায় বন্যার পানিতে ডুবে ও সাপের কামড়ে ৮ শিশুসহ ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে; নিখোঁজ রয়েছেন ১ জন। প্রবল বর্ষণ ও ভারতের বাঁধ খুলে দেয়ায় ভেঙে গেছে দিনাজপুর শহররক্ষা বাঁধ। এতে তলিয়ে গেছে বিভিন্ন এলাকা। সেনাবাহিনীর সদস্যরা রোববার দুপুর থেকে উদ্ধার কাজ শুরু করেছে। এ পর্যন্ত ৬৬টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে ৯০ হাজার মানুষ আশ্রয় নিয়েছে। কাহারোলে বন্যার পানিতে ডুবে একই পরিবারের ৪  শিশুসহ ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। রোববার বিকাল সাড়ে ৩টায় উপজেলার ঈশ্বরগ্রাম থেকে কলার ভেলায় চড়ে ৩ সন্তান ও প্রতিবেশীর ১ সন্তানকে নিয়ে পার্শ্ববর্তী বিরল উপজেলার হাসিলা গ্রামে আসছিলেন আবদুর রহমানের স্ত্রী সোনাভান বেগম।এ সময় কলার ভেলা উল্টে একই পরিবারের ৩ শিশুসহ ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। তারা হল- বিরল উপজেলার হাসিলা গ্রামের আবদুর রহমানের মেয়ে চুমকি (১৩), শহিদ আলী (১০), সিয়াদ (৭) ও প্রতিবেশী সাঈদ হোসেনের ছেলে সিহাদ ও মালঝাড় এলাকার বাবলু রায়ের স্ত্রী দিপালী রায় (৩২)। অজ্ঞাত আরেকজন  সাপের কামড়ে মারা গেছেন।কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেদোয়ানুর রহিম গণমাধ্যমকে জানান, সদর উপজেলার বেংকালী গ্রামের মোস্তফার ছেলে রাশেদ, বালুবাড়ীর ডিপিপট্টি এলাকার মেহেদী হাসান (১৫), বালুবাড়ী ঢাকাইয়াপট্টি এলাকার শফিকুল ইসলাম (৩৮), রাজবাটী এলাকার নাঈম (১৬) বন্যার পানিতে মারা গেছে। সদরের দরবারপুর গ্রামের মেহের আলীর ছেলে চাঁন মিয়া (৫৫) পানিতে ডুবে মারা যায়। নিখোঁজ রয়েছে একজন। বীরগঞ্জ উপজেলায় ১ জন শিশু মারা গেছে বলে জানা গেছে। জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম ১৪ জন মারা যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, বন্যা পরিস্থিতি সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। ইতোমধ্যেই সেনাবাহিনী বিজিবি সদস্যরা উদ্ধার কাজ শুরু করেছে। তাৎক্ষনিকভাবে সবার নাম পরিচয় জানা সম্ভব হয়নি। //এআর

কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের ভিডিও ফেসবুকে, যুবক গ্রেফতার

বিয়ের প্রলোভনে রংপুরে এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে  ছড়িয়ে দেওয়ায় এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। বুধবার দুপুরে রংপুর পিবিআইর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শহিদুল্লাহ কাওছার জানান, মঙ্গলবার রাতে রংপুর নগরীর লালবাগ কলেজপাড়া এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার নূর মোহাম্মদ (২৩) নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার দক্ষিণ ঝুনাগাছ এলাকার শফিয়ার রহমানের ছেলে। ডিমলায় একটি বেসরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট থেকে সে সদ্য পাশ করেছে । পিবিআইর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সংবাদ সম্মেলনে জানান, একই এলাকার ওই কলেজ ছাত্রী রংপুর পুলিশ লাইন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজে একাদশ শ্রেণিতে পড়ার সময় নূর মোহাম্মদের সঙ্গে পরিচয় হয়। বিয়ের প্রলোভনে ২০১৫ সালের ১৪ এপ্রিল মেয়েটিকে রংপুর শহরের জাহাজ কোম্পানি মোড় এলাকায় একটি আবাসিক হোটেলে নিয়ে ধর্ষণ এবং তা ফোনে ভিডিও করে রাখে নূর। পরে ওই ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে ছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণ করে । সম্প্রতি মেয়েটি  বিয়ের জন্য চাপ দিলে নূর মোহাম্মদ ভিডিওটি ফেইসবুক ও হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়। বিষয়টি জানার পর ৬ অগাস্ট মেয়েটি আত্মহত্যার চেষ্টা করে। আত্মহত্যার কারণ জানতে পেরে তার সহপাঠীরা বিষয়টি পিবিআইকে জানায় বলে জানান এ পুলিশ কর্মকর্তা। এ ঘটনায় মঙ্গলবার ছাত্রী বাদী হয়ে নূর মোহাম্মদের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা করেন। কলেজছাত্রী মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মোবাইল ফোনে নূর মোহাম্মদকে ডেকে আনে। সেখানে আগে থেকেই অপেক্ষায় থাকা পিবিআইর সদস্যরা তাকে গ্রেফতার করে। পরে তার কাছ থেকে দুটি মোবাইল ফোন সেট, একটি পেনড্রাইভ, তিনটি মেমোরি কার্ড, চারটি মোবাইল সিম জব্দ করা হয়েছে। জব্দ করা পেনড্রাইভ ও মেমোরি কার্ডে ধর্ষণের ভিডিও ও স্থিরচিত্র পাওয়া গেছে বলে জানান এ পুলিশ কর্মকর্তা। কোতোয়ালি থানায় মেয়েটি মামলা করার পর পিবিআই স্বপ্রণোদিত হয়ে মামলার তদন্তভার নেয় বলে জানিয়েছেন পিবিআইর বিশেষ পুলিশ সুপার মজিদ আলী। / কে আই//এআর

ধরা পড়ল ৪৫ কেজির বাঘাইড়

মহানন্দা নদীতে ৪৫ কেজি ওজনের একটি বাঘাইড় মাছ ধরা পড়েছে। মাছটি ১২’শ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়ার কাশিমগঞ্জের তিন পাথর শ্রমিক জাল ফেলে মাছটি ধরেন। মাছটি দেখার জন্য কয়েকশ’ এলাকাবাসী ওই গ্রামে ভিড় করে। জানা গেছে, গ্রামের মো. সাবুল, খেতাব আলী ও আবদুল মতিন পেশায় পাথর শ্রমিক। নদীতে পানি বেড়ে গেলে অথবা পানি কমে গেলে তাঁরা পাথর উত্তোলন বন্ধ করে মাছ শিকার করেন। মহানন্দা নদীতে পানি কমে যাওয়ায় তাঁরা বৃহস্পতিবার সকালে নদীতে মাছ ধরতে যান। দুপুরে মহানন্দা নদীতে জাল ফেললে জালে বড় মাছ পড়েছে বুঝতে পেরে সাবুল পানির নিচে নামেন। পরে ওই দুই সহকর্মীকে নিয়ে ৪৫ কেজি ওজনের বাঘাইড় মাছটি ধরে বাসায় নিয়ে আসেন। সাবুল জানান, মাছ ধরার পর পরই গ্রামের ২০ জন ১২০০ টাকা দরে এক কেজি করে মাছ কিনে নেন। অবশিষ্ট মাছটি বিক্রি করতে তীরনইহাটে নিয়ে আসা হয়। বড় মাছ বিক্রির খবর পেয়ে তেঁতুলিয়ার বিভিন্ন এলাকার মানুষ ফোনে বুকিং দেন। বিকেলের মধ্যে মাছ বিক্রি শেষ হয়। পুরো মাছটি ৫৪ হাজার টাকায় বিক্রি হয়। মাছ বিক্রির ৫৪ হাজার টাকা তিন সহকর্মী সমান ১৮ হাজার টাকা করে ভাগ করে নেন। //এআর  

নোংরার বদলে স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট

দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা, পিরিয়ডকালীন সময়ের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা না থাকা, সাবান না থাকা কিংবা অনেক সময় পানি থাকা— এগুলো হচ্ছে দেশের বেশিরভাগ স্কুলের টয়লেটের চিত্র। তবে এর বিপরীতে ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য ‍পৃথক ব্যবস্থা, সঙ্গে মেয়েদের জন্য পিরিয়ডকালীন সুন্দর ব্যবস্থাপনা রাখা হয়েছে রংপুর বিভাগের ৬৪ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে স্থাপিত নতুন স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেটে। ‘ওয়াশ ইন স্কুল’ প্রকল্পের আওতায় রংপুর বিভাগের সব কটি উপজেলায় অন্তত একটি করে আধুনিক টয়লেট নির্মাণ করেছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক উন্নয়ন সংস্থা ওয়াটারএইড। রংপুরের তারাগঞ্জের বরাতী উচ্চ বিদ্যালয়। যেখানে দুটি পৃথক নোংরা টয়লেটের স্থানে নির্মিত হয়েছে পানি ও পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা থাকা পাকা দালান। ছাত্রীদের জন্য নির্মিত টয়লেটে পিরিয়ডকালীন ব্যবস্থাপনার সঙ্গে রাখা হয়েছে বসার ব্যবস্থাও। এমন স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট নির্মিত হওয়ায় খুশি স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীরা, যেখানে ৬২৭ শিক্ষার্থীর মধ্যে অর্ধেকের বেশিই ছাত্রী। স্কুলের সহকারী গ্রন্থাগারিক মমতা রায় বলেন, আগের নোংরা টয়লেটের স্থানে স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেটের ব্যবস্থা করা হয়েছে। বসার সুন্দর জায়গা আছে। নোংরা না করে পরিচ্ছন্নই রাখছে সবাই। আর আগে নোংরা টয়লেটের কারণে পিরিয়ডের সময় ছাত্রীরা স্কুলে আসতে চাইত না। ওয়াটারএইডের এই কাজে স্থানীয়ভাবে সহযোগিতা দিয়েছে রংপুর বিভাগেরই চারটি উন্নয়ন সংস্থা ইএসডিও, সলিডারিটি, এমজেএসকেএস ও এসকেএস। ইউএসএইএডের পরিষ্কার টয়লেট পেয়েছে রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার লক্ষ্মীপুর মাঝেরহাট বালিকা দাখিল মাদ্রাসাও। দুইটি কক্ষের নোংরা টয়লেটের জায়গায় সেখানে স্থাপন করা হয়েছে শিশু ও প্রতিবন্ধীবান্ধব এবং মাসিক ব্যবস্থাপনা সম্পন্ন পরিষ্কার টয়লেট। এর ফলে আড়াইশ’ শিক্ষক-শিক্ষার্থীর ভোগান্তির অবসান হয়েছে বলে জানান প্রতিষ্ঠানের সুপার আবু সালেহ শেখ মো. জিকরুল ইসলাম। তিনি বলেন, বলেন, “দুই চেম্বারের টয়লেট ছিল আগে আমাদের। এখন সেখানে বড় আকারের টয়লেট হয়েছে। রিফ্রেশ রুম, সবার জায়গা, বেসিন, র‌্যাক সবই আছে এর ভেতরে। আলাদা যে মাসিক ব্যবস্থাপনা ছিল, সেটা তো আগে কল্পনাও করতাম না আমরা।” মাসিক ব্যবস্থাপনার জন্য ন্যাপকিন, প্যাডসহ বিভিন্ন জিনিস থাকায় ছাত্রীরা অনেক ভোগান্তি থেকে মুক্ত হয়েছে বলে জানান মাদ্রাসার শিক্ষক রুমানা আক্তার। তিনি বলেন, আগে প্রতিদিন দুই-তিনজন করে ছাত্রীকে ক্লাস চলাবস্থায় ছুটি দিতে হতো। যারা ছুটি নিয়ে গিয়ে ৪-৫ দিন মাদ্রাসায় আসতে পারত না। এখন এমন পরিস্থিতি আর নেই।   সম্প্রতি রংপুর তারাগঞ্জের ও/এ দ্বিমুখী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে নতুন নির্মিত টয়লেট পরিদর্শন করেন  ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া। তিনি স্বাস্থ্যসম্মত এ ধরণের টয়লেট দেখে অভিভূত হন। পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আমি সত্যি অভিভূত হয়েছি। আমার এলাকাতে এই রকম স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট ও স্যানিটেশন ব্যবস্থা হয়েছে। স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেটের সঙ্গে বিশুদ্ধ খাবার পানির ব্যবস্থায় সন্তোষ জানালেও প্রতিবন্ধীদের সুবিধায় হাইকমোডের ব্যবস্থা রাখার পরামর্শ দেন ডেপুটি স্পিকার। তিনি বলেন, তারা (প্রতিবন্ধী) এখন স্কুলে একজন থাকুক, কিংবা ভবিষ্যতে আসুক, ব্যবস্থাটা করে রাখতে হবে। বাংলাদেশ ন্যাশনাল হাইজিন বেইজলাইন সার্ভে ২০১৪ অনুযায়ী, দেশের স্কুলগুলোর তিন ভাগের দুইভাগ টয়লেটের ভেতরে বা কাছাকাছি সাবান বা পানির ব্যবস্থা নেই। ১৮৭ জনের জন্য একটি মাত্র টয়লেট, যেগুলোর ৪৫শতাংশ নানা কারণে তালাবদ্ধ থাকে।  মাত্র ২২ শতাংশ স্কুলে মেয়েদের জন্য আলাদা টয়লেট আছে, যার কোনটিরই মাসিক ব্যবস্থাপনার ব্যবস্থা নেই।  মাসিক চলাকালীন ৪০ শতাংশ স্কুলছাত্রী গড়ে মাসে ৩ দিন স্কুলে অনুপস্থিত থাকে।  মাত্র ৬ শতাংশ স্কুলে মাসিক সম্পর্কে পড়ানো হয়। ৩১ শতাংশ স্কুলছাত্রী মনে করে, মাসিকের কারণে স্কুলে তাদের স্বাভাবিক লেখাপড়ার ব্যাঘাত ঘটে। ৮৬ শতাংশ স্কুলছাত্রী মাসিকের সময় পুরনো কাপড় ব্যবহার করে। মাত্র ১২ শতাংশ স্কুলছাত্রী মাসিকের সময় ব্যবহৃত কাপড় পরিষ্কার পানি ও সাবান দিয়ে ধোয় এবং শুকিয়ে নেয়। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না থাকায় ৮৬ শতাংশ স্কুলছাত্রী মাসিকের সময় স্কুলে তাদের ব্যবহৃত কাপড় বা স্যানিটারি প্যাড বদলাতে পারে না। আধুনিক টয়লেট পাওয়া ৬৪টির বাইরে বাকিদের অবস্থা খারাপ বলে জানিয়েছেন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ওয়াটারএইডের কর্মকর্তারা; সরকারি গবেষণায়ও উঠে এসেছে এমন তথ্য।  রংপুরের তারাগঞ্জের নতুন চিকলী বাজারের ফাজিলপুর দ্বি-মুখী উচ্চ বিদ্যালয়; ছাত্র ও ছাত্রীদের জন্য পৃথক টয়লেট থাকলেও সেটার অবস্থা অনেকটা নাজুক। নোংরা পরিবেশের এই টয়লেটের একটির ভেতরে আগে নলকূপ থাকলেও দীর্ঘদিন নষ্ট পড়ে আছে; দুই টয়লেটের কোনোটিতে পানির ব্যবস্থা না থাকায় বাইরের নলকূপ থেকে পানি ব্যবহার করতে হয় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের।স্কুলের প্রধান শিক্ষক আমিনুল ইসলাম বলেন, এই টয়লেট দুটির কোনোটি স্বাস্থ্যসম্মত না, পরিবর্তন দরকার। আমরা সুইপার দিয়ে পরিষ্কার করার চেষ্টা করি। কিন্তু এত অধিক সংখ্যক শিক্ষার্থীর কারণে সেটা পরিষ্কার রাখা কতটুকু সম্ভব? স্কুলের মোট ৬৬২ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ৩৬২ জন ছাত্রীকে এত অল্প জায়গার কারণে বেশি প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হতে হয় বলে জানান তিনি। স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট না থাকায় ভোগান্তির মুখে পড়ার কথা জানালেন স্কুলটির দশম শ্রেণির ছাত্রী সান্ত্বনা আক্তার; গ্রামীণ এলাকার এই স্কুলে সরকার নজর নেই বলেও ক্ষোভ ঝরে তার কণ্ঠে। তিনি বলেন, লাইন ধরে টয়লেটে যেতে হয়। ভেতরে পানি নাই। বাইরে থেকে কোনোমতে পানি নিয়ে গিয়ে ভালোমতো পরিষ্কার না করে সেই হাতে টিফিন খাই আমরা। মাসিকের সময় এই সমস্যার সম্মুখীন বেশি হতে হয় বলে জানান শিরীন আক্তার। ফেব্রুয়ারি ২০১৭ সালে ওয়াটারএইডের কর্ম এলাকায় পরিচালিত জরিপ অনুসারে- ৫১ শতাংশ স্কুলছাত্রী মাসিকের সময় স্যানিটারি প্যাড ব্যবহার করে, ৩৪ শতাংশ ছাত্রী স্কুল চলাকালীন স্কুলেই প্যাড বা কাপড় বদলায়, ৮৪ শতাংশ স্কুলছাত্রী তাদের স্কুল ল্যাট্রিনের মধ্যে প্রশস্ত জায়গা, পর্যাপ্ত আলো এবং ব্যবহৃত প্যাড বা কাপড় ফেলার মতো ব্যবস্থা আছে বলে উল্লেখ করেছে, ৭৯ শতাংশ স্কুলছাত্রী মনে করে স্কুলে মাসিক বিষয়ে আরও আলোচনা বা শিক্ষার ব্যবস্থা থাকা উচিত, ৩২ শতাংশ স্কুলছাত্রী বলেছে, স্কুলে নারী শিক্ষকেরা পাঠ্যসূচির অন্তর্ভুক্ত মাসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক অধ্যায়গুলো নিয়মিত পড়ান। নেকির হাট সৈয়দপুর দাখিল মাদ্রাসার ২৪৭ শিক্ষার্থীর জন্য আর তাদের শিক্ষকদের জন্য আছে মাত্র একটি টয়লেটের ব্যবস্থা; দুটির একটি দীর্ঘদিন ধরে নষ্ট থাকায় এখন তালাবদ্ধ। নোংরা টয়লেট ছাত্রীদের বেশি যন্ত্রণা দেয় বলে জানায় মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী রোমানা আক্তার; অনেক সময় লাইনে দাঁড়ানো অবস্থায় শিক্ষক এলে পড়তে হয় বাড়তি বিড়ম্বনায়। শিক্ষার্থীদের, বিশেষ করে ছাত্রীদের ঋতুকালীন যন্ত্রণা ও ক্লাস অনুপস্থিতি কাছ থেকে দেখেন প্রতিষ্ঠানের একমাত্র নারী শিক্ষক খালেদা বেগম। ওই সময়টাতে ছাত্রীদের ভালো ব্যবস্থাপনা দিতে না পারায় মনোকষ্টের কথা উঠে আসে তার বক্তব্যে। তিনি বলেন, মেয়েদের জন্য কোনো আলাদা ব্যবস্থা নাই। মাসিকের সময় দেখা যায়, তারা ছুটি নিয়ে চলে যাচ্ছে। এতে তাদের পড়ালেখায় বড় ধরনের ব্যাঘাত ঘটে। রংপুর বিভাগের জেলাগুলোতে নির্মিত স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট নির্মাণের খরচ ওয়াটারএইড বহন করলেও সেটার ব্যবস্থাপনার খরচ স্কুল কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে নির্বাহের কথা জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা। ওয়াটারএইড বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর খায়রুল ইসলাম বলেন, আমরা প্রথমে নির্মাণের সময় ১০ থেকে ২০ শতাংশ স্কুল ম্যানেজমেন্ট থেকে নিয়েছি। সে টাকাটা নিয়ে আমরা নির্মাণে খরচ করে ফেলিনি। ওইখানে আমরা তহবিল রেখে আসছি। যাতে ওই তহবিলটা ব্যবহার করে ক্লিনিং ও ব্যবস্থাপনার খরচ স্কুলই বহন করতে পারে। তারাগঞ্জের লক্ষ্মীপুর মাঝেরহাট বালিকা দাখিল মাদ্রাসার সুপার জিকরুল ইসলাম জানান, তার প্রতিষ্ঠানের টয়লেট নির্মাণ ব্যয় ৪ লাখ ৭৩ হাজার টাকা দিয়েছে ওয়াটারএইড। আর মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ ৯৬ হাজার টাকার রক্ষণাবেক্ষণ তহবিল গঠন করেছে। এভাবে ব্যবস্থাপনা ব্যয় স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে নেওয়া সারাদেশের জন্য মডেল হিসাবে দেখানোর চেষ্টা ওয়াটারএইডের ছিল বলে মন্তব্য করেন তিনি। ডব্লিউএন

ঠাকুরগাঁওয়ে যুবলীগ নেতার ছুরিকাঘাতে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা নিহত

ঠাকুরগাঁওয়ে যুবলীগ নেতার ছুরিকাঘাতে স্বেচ্ছাসেবক লীগের এক নেতা খুন হয়েছেন, আহত হয়েছেন আরও একজন। শহরের রোড মুন্সিরহাট এলাকার মঙ্গলবার রাত ১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নিহত আব্দুল মান্নান (২৭) উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। আহত জুম্মন খান (২৬) ছাত্রলীগের সাবেক নেতা। ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি মশিউর রহমান গণমাধ্যমকে জানান, মঙ্গলবার রাতে মান্নান ও তার দুই বন্ধু মোটরসাইকেলে করে শহরের দিকে আসছিলেন। পথে মুন্সিরহাটে যুবলীগ নেতা সজীব দত্ত তাদের থামায়। সেখানে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সজীব ধারালো অস্ত্র দিয়ে মান্নান ও জুম্মনকে কুপিয়ে জখম করেন। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে নিলে চিকিৎসকরা মান্নানকে মৃত ঘোষণা করেন। হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত সজীব দত্ত সদর উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক। সে জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক দেবাশীষ দত্ত সমীরের ছোট ভাই এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অরুনাংশু দত্ত টিটোর চাচাতো ভাই। জানা গেছে,  সপ্তাহ খানেক আগে সিগারেট খাওয়া নিয়ে সজীবের সঙ্গে মান্নানের হাতাহাতি হয়।ওই ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে সজীব তার সহযোগীদের নিয়ে এদিন মান্নানের ওপর হামলা চালায়। সদর হাসপাতালের চিকিৎসক সুব্রত কুমার দাস বলেন, মান্নানের পিঠে, হাতে ও মুখে ধারালো কিছু দিয়ে জখম করা হয়। অত্যাধিক রক্তক্ষরণে তার মৃত্যু হয়েছে। //এআর  

জঙ্গির খোঁজে গাইবান্ধার চরে অভিযান: গ্রেফতার ৬

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার দুর্গম চরাঞ্চলে জঙ্গি আস্তানার খোঁজে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ব্লক রেইড শেষ হয়েছে। সাড়ে ছয় ঘণ্টার অভিযানে ছয় সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। শনিবার দিবাগত রাত ৩টা থেকে আজ  সকাল পর্যন্ত চালানো অভিযানে ওই ছয়জনকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেপ্তার ছয়জনের পরিচয় জানা যায়নি। তারা সাজাপ্রাপ্ত ও নিয়মিত মামলার আসামি বলে দাবি করেছে পুলিশ। কাউন্টার টেররিজম ইউনিট, জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি), জেলা পুলিশ ও সুন্দরগঞ্জ থানা-পুলিশের প্রায় ৬০ জন সদস্য এই অভিযানে অংশ নেন। পুলিশের ভাষ্য, শনিবার  গভীর রাত থেকে সুন্দরগঞ্জ উপজেলার দুটি ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি চরে ব্লকরেইড (নির্দিষ্ট এলাকা চিহ্নিত করে অভিযান) দেন পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। অভিযানে নেতৃত্ব দিচ্ছেন গাইবান্ধার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ আল ফারুক। তাঁর সঙ্গে রয়েছেন গাইবান্ধার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বি সার্কেল) মইনুল হকসহ জেলা পুলিশ, জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) ও সুন্দরগঞ্জ থানা পুলিশের সদস্যরা। সুন্দরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতিয়ার রহমান জানান, জঙ্গি ও জঙ্গি আস্তানার খোঁজে উপজেলার খোর্দ্দ বেলকার চরসহ দুই ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি দুর্গম চরাঞ্চল চিহ্নিত করে অভিযান চালানো হচ্ছে। এর আগে বুধবার গাইবান্ধা সদর উপজেলার কামারজানি ও মোল্লারচর ইউনিয়নের কয়েকটি চরে অভিযান চালিয়ে এক ডাকাতকে আটক করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। বৃহস্পতিবার ফুলছড়ি উপজেলার এরেন্ডাবাড়ি, ফুলছড়ি ও ফজলুপুর ইউনিয়নে অভিযান চলে। শুক্রবার অভিযানে সাঘাটা উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের দুর্গম চরাঞ্চলে অভিযান চালিয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কিছুই পায়নি। //আর  

কাঁদলেন মির্জা ফখরুল

বক্তব্য দিতে গিয়ে দলের নেতাকর্মীদের দু:খ-কষ্টের কথা স্মরণ করে আবারও চোখের পানি ফেলেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি শনিবার ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলায় বিএনপির সদস্য সংগ্রহ অভিযান অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিতে গিয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। অশ্রুসিক্ত নয়নে ফখরুল বলেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের পরে আমি এখানে এসে আপনাদের সঙ্গে কথা বলেছিলাম। জেনেছিলাম, আপনারা অনেক কষ্টের মধ্যে দিনযাপন করছেন। আপনারা কেউ ঘরে থাকতে পারেননি। শীতের মধ্যে আপনারা ধানক্ষেতে অথবা বিভিন্ন জায়গায় রাত কাটিয়েছেন। এখনও এ কষ্টের শেষ হয়নি। আপনারা আমাকে ক্ষমা করবেন, আমি মাঝে মাঝে একটু আবেগাপ্লুত হয়ে পড়ি। এর আগে গত বছরের অগাস্টে ঢাকায় এক আলোচনা সভায় দলীয় নেতাকর্মীদের অবস্থা বর্ণনার এক পর্যায়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন বিএনপি মহাসচিব। তখন তিনি বলেছিলেন, রোজ  গাড়িতে আসি, যানজটে গাড়ি থামলে দেখি সব ইয়াং ছেলে-পেলে ছুটে আসে। বলে, স্যার আমি তো বিএনপি করতাম লক্ষ্মীপুরে। এতো মামলার ভারে পালিয়ে চলে এসেছি ঢাকায়, এখন এখানে হকারি করছি। রিকশা চালায় আমাদের ছেলেরা, বলেই কেঁদে ফেলেন ফখরুল। ঠাকুরগাঁওয়ে এই অনুষ্ঠানে বক্তব্যে সরকারের বিরুদ্ধে রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্প নিয়ে মিথ্যাচারের অভিযোগ করেন বিএনপি মহাসচিব। //এআর  

জঙ্গি খোঁজে গাইবান্ধার চরে ফের অভিযান

জঙ্গি আস্তানার সন্ধানে গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার দুর্গম চরাঞ্চলে অভিযান অব্যাহত রেখেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। বৃহস্পতিবার ভোরে দ্বিতীয় দিনের মত এ অভিযান শুরু হয়। গাইবান্ধার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ময়নুল হকের নেতৃত্বে এ অভিযানে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট, পুলিশ ও গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের সদস্যরা অংশ নিচ্ছেন। অভিযানে অংশ নেয়া ফুলছড়ি থানার ওসি আবু হাদার মো. আশরাফুল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানান, বৃহস্পতিবার ভোর ৪টার আগেই জঙ্গি আস্তানার খোঁজে অভিযান শুরু করেছে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিট, থানা ও গোয়েন্দা পুলিশ। ফুলছড়ি উপজেলার প্রায় দুর্গম চরাঞ্চলে এই অভিযান চালানো হচ্ছে। তবে বেলা সাড়ে ১০টা পর্যন্ত কোনো অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধার বা কাউকে আটক করতে পারেননি তারা। এর আগে বুধবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত সদর উপজেলার কামারজানি ও মোল্লারচর এলাকায় অভিযান চালায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। ওই অভিযানে মোল্লারচর ইউনিয়নে শুকুর (৩৭) নামে এক নৌডাকাতকে গ্রেপ্তার করার কথা জানায় পুলিশ। বুধবার সকাল থেকে প্রায় সাড়ে ছয় ঘণ্টার ওই অভিযানে কোনো জঙ্গি আস্তানা বা অস্ত্র পায়নি পুলিশ। গাইবান্ধা সদরসহ তিন উপজেলার চরাঞ্চলে গত বছরও অভিযান চালিয়েছিল আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। তবে সে অভিযানে বড় কোনো সাফল্য মেলেনি। //এআর

গাইবান্ধার চরে জঙ্গি আস্তানার খোঁজে অভিযান

গাইবান্ধার দুর্গম চরাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকায় জঙ্গি আস্তানার খোঁজে অভিযান চালাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। বুধবার ভোর থেকে সদর উপজেলার কামারজানি ও মোল্লারচরের চরাঞ্চলে এই বিশেষ অভিযান শুরু হয়। অভিযানে নেতৃত্ব দিচ্ছেন গাইবান্ধার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মইনুল হক। কাউন্টার টেররিজম ইউনিট, ডিবি, জেলা ও থানা পুলিশের সমন্বয়ে শতাধিক সদস্যের একটি দল এই অভিযানে অংশ নিচ্ছে। গাইবান্ধার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো.মইনুল হক গণমাধ্যমকে জানান, জঙ্গি আস্তানার খোঁজে গাইবান্ধা সদরসহ সুন্দরগঞ্জ, ফুলছড়ি ও সাঘাটার চরাঞ্চলগুলোতে অভিযান চালানো হচ্ছে। অভিযান চালাতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ রযেছে। অভিযানে অংশ নেয়া গাইবান্ধা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেহেদী হাসান গণমাধ্যমে বলেন, চরাঞ্চলে জঙ্গি আস্তানার খোঁজে অভিযান চালানো হচ্ছে। এ ছাড়া নৌ-ডাকাত গ্রেফতারেও অভিযান চলছে। পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ইতিমধ্যে চরাঞ্চলের কিছু এলাকা চিহ্নিত করা হয়েছে। এসব এলাকা ঘিরেই অভিযান চালানো হচ্ছে। চরাঞ্চলে অভিযান চলাকালে সকাল ১০টা পর্যন্ত কোনো জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পায়নি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।   //এআর

দিনাজপুরে বাসের ধাক্কায় নিহত ৩

দিনাজপুরের কাহারোলে যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় অটোরিকশার চালকসহ তিনজন নিহত হয়েছেন।  আহত হয়েছেন আরও ছয়জন। কাহারোল থানার এসআই এরশাদ আলী গণমাধ্যমকে জানান, সোমবার রাত ২টার দিকে উপজেলার বটতলা পীরের মাজার এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন - অটোরিকশার চালক শুভ রায় (২০),যাত্রী বৈশাগু রায় (৫৫) ও গোকুল রায় (৪৫)। আহতরা হলেন - দ্বিজেন রায়, রাধা রায়, রামপ্রসাদ ভুটিয়া, কৃষ্ণকান্ত রায়, কাঞ্জিয়া রায় ও নীপেন রায়। হতাহত সবার বাড়ি কাহারোল উপজেলার ডহণ্ডা গ্রামে। এসআই আরও জানান, এই নয়জন বীরগঞ্জ উপজেলায় একটি ধর্মীয় অনুষ্ঠান শেষে অটোরিকশায় করে কাহারোলের বাড়িতে ফিরছিলেন । দিনাজপুর-পঞ্চগড় সড়কের ওই মাজার এলাকায় ঢাকাগামী হানিফ পরিবহনের একটি বাস অটোরিকশাকে পেছন থেকে ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই তিনজনের মৃত্যু হয়। আহত ছয়জনকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনার পর পুলিশ বাসটি জব্দ করলেও চালক পালিয়ে গেছে। //এআর

রংপুরের ট্রাক উল্টে একই পরিবারের ৪ জনসহ ১৭ জন নিহত

রংপুরের পীরগঞ্জে ট্রাক উল্টে একই পরিবারের চারজনসহ ১৭ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে ১৮ জন। সিমেন্টবাহী ট্রাকে করে বাড়ি ফেরার পথে এই দুর্ঘটনা ঘটে। হতাহতদের অধিকাংশের বাড়ি লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে। ট্রাকটি অতিরিক্ত গতিতে চলছিলো বলে জানিয়েছেন আহতরা। দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে ৩ সদস্যের কমিটি গঠন করেছে রংপুর বিআরটিএ।  পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে ঈদ উদযাপনে গাজীপুর থেকে সিমেন্টবাহী ট্রাকে লালমনিরহাট যাচ্ছিলেন স্বল্প আয়ের এ’সব মানুষ।ভোর ৬টার দিকে রংপুরের পীরগঞ্জে কলাবাগান এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে যায় ট্রাকটি। ঘটনাস্থলেই নিহত হয় ১১ জন। আহত হয় ২৫ জন। দুর্ঘটনার পরপরই উদ্ধার কার্যক্রম শুরু করেন হাইওয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা। আহতদের পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে সেখানে আরও ৬ জন মারা যায়। গুরুতর আহত ১০ জনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।পুলিশ জানিয়েছে, হতাহতদের প্রায় সবাই তৈরি পোশাক শ্রমিক। তাদের সবার বাড়ি লালমনিরহাটের সীমান্তবর্তী কালীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে।নিহতদের মধ্যে ৪জন একই পরিবারের। তারা হলেন- আলমগীর, তার শ্যালক দেলোয়ার, চাচাতো ভাই সাদ্দাম ও মুনির। পরিচয় পাওয়া গেছে জসিম নামে নিহত আরো ১ জনের।আহতরা জানিয়েছেন, ড্রাইভারের পরিবর্তে হেলপার ট্রাকটি চালাচ্ছিলো। গতিও অনেক বেশি ছিলো বলে জানিয়েছেন তারা। এ’ ঘটনায়, ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে রংপুর বিআরটিএ। নিহতদের পরিবারের জন্য ২০ হাজার আর আহতদের জন্য ৫ হাজার টাকা অনুদান দেয়ার কথা জানিয়েছে রংপুর জেলা প্রশাসন।  

রংপুরে এক পরিবারে ৬সন্তানের মধ্যে ৫জনই থ্যালাসামিয়া রোগে আক্রান্ত

৫ বিঘা জমি আর শিক্ষকতার আয়ে ভালই চলছিলো রংপুরে সোলেয়মান আলীর সংসার। কিন্তু হঠাৎ কালো মেঘ নেমে এল সংসারে। জানা গেল তার ৬ সন্তানের মধ্যে ৫ সন্তানই থ্যালাসামিয়া রোগে আক্রান্ত। এরই মধ্যে এক ছেলে মারা গেছে। আরেক ছেলে মৃত্যুর সাথে লড়ছে। জমি জমা বিক্রি করে এতদিন চিকিৎসা চললেও এখন সর্বশান্ত পরিবারটি। রংপুর থেকে প্রায় ৩০ কিলোমিটার দুরে প্রত্যন্ত গ্রাম ভাংনি আদর্শপাড়া। এ গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক সোলায়মান আলীর বাড়িটি ঘিরে যেন দীর্ঘশ্বাস আর দু:খরা ঘুরে বেড়ায়। এ বাড়ির ৫ ছেলেমেয়ে থ্যলাসামিয়া রোগে আক্রান্ত। প্রতি ২/৩ মাস পর রক্ত নিতে নিতে ওরা আজ ক্লান্ত।সোলায়মান আলী জানান জমি চাষাবাদ করে মোটামুটি সুখেই চলছিলো সংসার। ১০ বছর আগে তার স্ত্রী মারা যাওয়ার পর ৫ ছেলে ও এক মেয়ে দুরারোগ্য থ্যালাসামিয়া রোগে আক্রান্ত হয়। এরই মধ্যে সাইফুল নামে এক ছেলে মারা যায়। এখন তার দুই ছেলে রবিউল ইসলাম, শাহিন, এক মাত্র মেয়ে তাসনিমা বেগম, বড় ছেলে শহিদুল ইসমলামের ২ শিশু সবাই আক্রান্ত। গড়ে তাদের জন্য মাসে ব্যয় হয় ২০ থেকে ২৫ হাজহার টাকা। অর্থাভাবে বন্ধ রয়েছে চিকিৎসা। পরিবারের একমাত্র সুস্থ সন্তান শফিকুল। এম এ পাশ করে বেকার। তার আকুতি একটা চাকরী হলে ভাইবোনদের চিকিৎসা আবার শুরু করতে পারবে সে। রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানান আক্রান্তদের সুস্থ্য রাখতে দরকার রক্ত, ওষুধ ও ভালো খাবার দাবার। রোজার মাস। প্রতিদিন কত খাবার আর নতুন জামা কাপড় কিনছে মানুষ। অথচ এক অসহায় বাবা তার সন্তানদের মুখে দুমুঠো ভালো খাবার আর চিকিৎসা করাতে না পেরে একাকী কাঁদছেন। অসহায় বাবার এই কান্না কি ছুঁয়ে যাবে না কোনো সহৃদয়বান মানুষের মন?

চাঁদা না পেয়ে হাট ইজারাদারের ৩ জনকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা

চাঁদা না পেয়ে ও হাটের একাংশ দখল করতে না পেরে হাট ইজারাদারের ৩ জনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করেছে সন্ত্রাসীরা।গুরুতর আহত ২ জনকে চিকিৎসার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় ৯ সন্ত্রাসীর বিরুদ্ধে গাইবান্ধা থানায় মামলা দায়ের করা হয়। মামলার বিবরন থেকে জানা যায়, দরপত্র অনুযায়ী আরিফ মিয়া রিজু নামে এক ব্যাক্তি গাইবান্ধার দাড়িয়াপুর হাটের ইজারা পায়। এর পরেই তার কাছে ওসমান আলী ও তার দলের সন্ত্রাসী বাহিনী ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে। হাট ইজারাদারের ম্যানেজার চাঁদা দিতে অস্বীকার করে চাঁদাবাজরা তাদের পিটায় ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে আহত করে । তাদের চিৎকারে লোকজন এগিয়ে এসে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।  

© ২০১৭ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি