ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৯ জানুয়ারি ২০২১, || মাঘ ৫ ১৪২৭

ঢাকার হ্যাটট্রিক হার দ্বিতীয় জয় খুলনার

নাজমুশ শাহাদাৎ

প্রকাশিত : ২২:৪১, ৩০ নভেম্বর ২০২০ | আপডেট: ২২:৪৬, ৩০ নভেম্বর ২০২০

ইমরুল কায়েস ও মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ

ইমরুল কায়েস ও মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ

চলমান বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপে সাকিব-মাহমুদুল্লাহর জেমকন খুলনার কাছে ৩৭ রানের ব্যবধানে হার মানলো মুশফিকের ঢাকা। এ নিয়ে টানা তৃতীয় ম্যাচেও হারলো আলোচিত এই দলটি। অন্যদিকে বোলারদের দাপটে ঢাকাকে হ্যাটট্রিক পরাজয়ের স্বাদ দিয়ে দ্বিতীয় জয় পেল খুলনা।

সোমবার (৩০ নভেম্বর) রাতের ম্যাচে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে বেক্সিমকো ঢাকার বিপক্ষে প্রথমে ব্যাট করে ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১৪৬ রান করে সাকিব-মাহমুদুল্লাহর জেমকন খুলনা। জবাবে খুলনার বোলারদের দাপটে পুরো ওভার খেলতে পারেনি মুশফিক-নাইম-আকবর আলীরা। অলআউট হয়ে যায় চার বল বাকি থাকতেই, আর ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় স্কোরে জমা হয় মাত্র ১০৯ রান।

এদিন মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টুর্নামেন্টের অষ্টম ম্যাচে টস হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নামে খুলনা। এনামুল হক বিজয়ের সাথে ওপেনিংয়ে নেমে আজও সুবিধা করতে পারেননি সাকিব। ২টি চারে ৯ বলে ১১ রান করেন তিনি। তার আগেই বিজয় ফেরেন ৫ রানে। তিন নম্বরে নামা জহিরুলও ব্যর্থ হন, করেন ৪ রান।

উপরের সারির এই তিন ব্যাটসম্যান ব্যর্থ হলেও, মিডল-অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যান- ইমরুল কায়েস ও আরিফুল হক ছোট-ছোট ইনিংস খেলেছেন। আর অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ চেষ্টা করেছেন বড় ইনিংস খেলার।

চতুর্থ উইকেটে ইমরুলকে নিয়ে ৫৬ ও পঞ্চম উইকেট আরিফুলের সঙ্গে দলকে ৩৫ রান এনে দেন মাহমুদুল্লাহ। ইমরুল ২৭ বলে ২৯, আরিফুল ১১ বলে ১৯ রান করেন। আর ক্যাপ্টেন মাহমুদুল্লাহর ব্যাট থেকে আসে ৪৭ বলে ৪৫ রান। তার ইনিংসে ছিলো ৩টি চারের মার।

আর শেষ দিকে ব্যাট হাতে ঝড়ো ইনিংস খেলেছেন শুভাগত হোম। ১টি করে চার ও ছক্কায় ৫ বলে অপরাজিত ১৫ রান করেন শুভাগত। ঢাকার পেসার রুবেল হোসেন ২৮ রানে ৩ উইকেট নেন। শফিকুল ইসলাম ২টি নেন।

জবাব দিতে নেমে সাকিব-শুভাগতের স্পিন বিষে শুরুতেই বিপাকে পড়ে ঢাকা। মাত্র ১৪ রানেই দুই ওপেনার তানজিদ হাসান তামিম (৪), মোহাম্মদ নাঈম (১) ও রবিউল ইসলাম রবিকে (৪) হারায় দলটি। যেখান থেকে দলকে উদ্ধার করার চেষ্টা চালান অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম ও ইয়াসির আলী রাব্বি। 

দুজনে গড়েন ৫৭ রানের অনবদ্য জুটিও। তবে তা যেমন জয়ের জন্য পর্যাপ্ত ছিলো না, তেমনি ছিল না হার এড়ানোর জন্যও যথেষ্ট। কেননা, এই জুটি ভাঙার পরেই যেন তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে ঢাকার ইনিংস। এই দুজন ছাড়া যে দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেনি আর কেউই। যাতে ৩৭ রানের আরও একটি হারের মালা গলায় পরে মাঠ ছাড়তে হয় মুশফিকদের।

তাদের ইনিংসে বার বার আঘাত হেনে বিপর্যস্ত করেছেন স্পিনার শুভাগত হোম ও পেসার শহিদুল ইসলাম। দুজনেই তুলে নিয়েছেন ৩টি করে উইকেট। এ ম্যাচে দলে ফিরেই ব্যাটে-বলে দ্যুতি ছড়ানোয় ম্যাচ সেরাও হয়েছেন শুভাগত। 

এছাড়া হাসান মাহমুদ ২টি ও সাকিব আল হাসান তুলে নেন একটি উইকেট। তবে রান দেয়ার ক্ষেত্রে সবাইকে চমকে দিয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। চার ওভারে মাত্র ৮টি রান দিয়েছেন তিনি দুই মেডেনসহ।   

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
জেমকন খুলনা: ১৪৬/৮; ২০ ওভার (মাহমুদুল্লাহ ৪৫, ইমরুল ২৯; রুবেল ৩/২৮)।
বেক্সিমকো ঢাকা: ১০৯/১০; ১৯.২ ওভার (মুশফিক ৩৭, ইয়াসির ২১; শুভাগত ৩/১৩, শহিদুল ৩/৩০)। 
ফল: জেমকন খুলনা ৩৭ রানে জয়ী।
ম্যাচ সেরা: শুভাগত হোম।

এনএস/


Ekushey Television Ltd.

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। একুশে-টেলিভিশন | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি